Scores

‘নিজেই বলব ধন্যবাদ’

২০০৮ সালে ওয়ানডেতে অভিষেক হয়েছিল ইমরুল কায়েসের। ১০ বছরে খেলেছেন মাত্র ৭৪টি একদিনের ম্যাচ। পর্যন্ত সুযোগ না পাওয়ার পাশাপাশি আছে ক্যারিয়ারে অনেক উত্থান-পতনের গল্প। বার বার বাদ পরে ফিরে এসেছেন কায়েস। দেশের হয়ে খেলে যেতে চান, সময় হলে নিজেই জানাবেন অবসরের কথা।  

 

ওয়ানডেতে জাতীয় দলে আসা-যাওয়ার মধ্যে থাকেন কায়েস। ফর্মহীনতায় বাদ পড়লে আবার সুযোগের অপেক্ষায় থাকেন। এরপর সুযোগ পেলে নিজেকে পুনরায় প্রমাণের চেষ্টা করেন। কায়েসের পুরো ক্যারিয়ার জুড়েই গল্পটা এমন। কিছুদিন আগে এশিয়া কাপে আকস্মিক দলে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করেছিলেন কায়েস। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে টাইগারদের ব্যাটিং বিপর্যয়ে করেছিলেন অপরাজিত ৭২ রান।

এভাবে ফিরে আসতে আর দেশের জন্য খেলতে মুখিয়ে থাকেন কায়েস। গতকাল ম্যাচসেরা হয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে কথা বলেন ৩১ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। তিনি বলেন, ‘যখনই সুযোগ পাই, চেষ্টা করি ভালো করতে। সব সময়ই সুযোগের অপেক্ষায় থাকি। খেলোয়াড়দের জীবনে উত্থান-পতন থাকে। টানা ভালো খেলা কঠিন। আমার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। আমি বাদ পড়লে, সে জায়গায় যে এসেছে ভালো খেলেছে বলে আমার আর প্রয়োজন হয়নি। যেহেতু দেশের হয়ে খেললে অনেক ভালো লাগে। আমি এ সুযোগের অপেক্ষায় থাকি।’

Also Read - ১৪৪ ভালো ইনিংস, তবে সেরা নয়!


কায়েসের সাথে জাতীয় দলে যাদের অভিষেক হয়েছিল অনেকেই ছিঁটকে পড়ার পর আর কামব্যাক করতে পারেননি। তবে এতে যেন ব্যতিক্রম এই বামহাতি ব্যাটসম্যান! বার বার দল থেকে বাদ পড়ার পর নিজেকে আবার প্রস্তুত করেছেন। দেশের জন্য এভাবেই খেলে যেতে চান অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার।

নিজের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে কায়েস বলেন, ‘আমার সঙ্গে অনেক খেলোয়াড়ের অভিষেক হয়েছে, যারা এখন দৃশ্যপটেই নেই। লক্ষ্য ঠিক রাখাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সব সময়ই বিশ্বাস করি, আমার ক্যারিয়ার এত দ্রুত শেষ হতে পারে না। নিজেকে সে কারণেই তৈরি রাখি জাতীয় দলের জন্য। যেদিন আর জাতীয় দলে খেলার সুযোগ থাকবে না, নিজেই বলব ধন্যবাদ।’

[আরও পড়ুনঃ মুস্তাফিজকে কম বল করানোর কারণ ব্যাখ্যা মাশরাফির]

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

মুস্তাফিজ-কায়েসের দলে না থাকার কারণ

বৃষ্টির কল্যাণে রক্ষা পেল বাংলাদেশ ‘এ’ দল

কায়েসের পর আফিফের ব্যাটে লড়ছে বাংলাদেশ

আক্ষেপ নিয়ে ফিরলেন ইমরুল

বিজয়-নাইমের ব্যাটে বাংলাদেশের প্রতিরোধ