নিশ্চিত হারা ম্যাচে সিন্ধের অবিশ্বাস্য জয়

ক্রিকেটে জয়-পরাজয় দুই-ই মেনে নেওয়ার মানসিকতা নিয়ে মাঠে নামে দুই দল। তবে কিছু দল থাকে জয় পেতে মরিয়া। যতই ব্যাকফুটে থাকা হোক, পরাজয় মেনে নেওয়া যাবে না! সেই প্রতিজ্ঞাই করেই বুঝি মাঠে নেমেছিলেন পাকিস্তানি ক্রিকেটার দানিশ আজিজ। পাকিস্তানের ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপে নিজ দল সিন্ধকে অবিশ্বাস্য এক জয় এনে দিয়েছেন তিনি।

ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপে সিন্ধের অবিশ্বাস্য জয়

রাওয়ালপিন্ডিতে আসরের ২৩তম ম্যাচে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৩৮ রান জড়ো করে খাইবার পাখতুনখাওয়া। বোলারদের দাপট আরও স্পষ্ট হয় সিন্ধের ইনিংসে। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই প্রথম উইকেট হারানো দলটি একপর্যায়ে ম্যাচ থেকে রীতিমত ছিটকে পড়ে।

Also Read - ধ্রুপদী লিটনের হওয়া চাই ধারাবাহিকও


কিন্তু ক্রিকেটে তো শেষ বলে কিছু নেই! ক্রিকেট বিধাতা তাই রোমাঞ্চকর এক চিত্রনাট্য একে খাইবার পাখতুনখাওয়াকে হাসালেও জয় এনে দিয়েছেন সিন্ধের মুঠোতেই। ১ রানে প্রথম উইকেট হারানো দলটি ৪, ১৪ ও ৩২ রানে হারায় দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ উইকেট। পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম উইকেটের পতন ঘটে ৩৪ রানেই।

এই অবস্থায় কে ভেবেছিলেন, বাকি ১২ ওভারে ঠিকই জয় পাবে সিন্ধ! আর কেউ না ভাবলেও দানিশ নিশ্চয়ই ভেবেছিলেন। আনোয়ার আলির ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে খুঁটি বানিয়ে খাইবার পাখতুনখাওয়ার বোলারদের তুলধুনো করতে এতটুকু ছাড় দেননি। শেষপর্যন্ত ৪৭ বলে ৭২ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে দলকে এনে দিয়েছেন অবিশ্বাস্য জয়। তাও কিনা ইনিংসের শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে!

শেষ ওভার পর্যন্ত ম্যাচ ছিল সিন্ধের চেয়ে অনেক দূরে। ইফতিখার আহমেদের করা ২০তম ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১৯ রান। দানিশ প্রথম বলে হাঁকান চার। পরের দুই বলই ডট হয়। ৩ বলে তখন প্রয়োজন ১৫ রান। চতুর্থ বলে ছক্কা, পঞ্চম বলে চার ও ষষ্ঠ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে অবিশ্বাস্য ও নাটকীয় জয় নিশ্চিত করেন দানিশ আজিজ।

স্বভাবতই ম্যাচসেরার পুরস্কারও তিনিই পেয়েছেন। ৮টি চার ও ৪টি ছক্কা হাঁকানো ইনিংস অবশ্য ম্যাচসেরার পুরস্কার না পেলেও জ্বলজ্বল করত দীর্ঘদিন!

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।