Scores

নেতৃত্ব পাওয়ার পর রিয়াদের রাজসিক উত্থান

সাকিব আল হাসানের ডেপুটি হিসেবে যখন টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটে দায়িত্ব দেয়া হয় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে তখন তাকে টেস্ট স্কোয়াড থেকেই বাদ দেয়ার দাবি উঠেছিল। সাকিবের ইনজুরিতে গত কয়েক সিরিজে অধিনায়কত্বটাও করতে হচ্ছে রিয়াদকে। দায়িত্বের সাথে সাথে গত একবছরে বদলে গেছে তার টেস্ট ক্রিকেটের পারফরম্যান্সও।

মানসিকভাবে নিজেদের তৈরি করছি রিয়াদ

সাকিবের অনেকটা অপ্রত্যাশিতভাবেই টেস্ট অধিনায়কের দায়িত্ব এসে পড়ে রিয়াদের ঘাড়ে। মোট ছয়টি টেস্টে অধিনায়কত্ব করেছেন তিনি। একটিতে জয়, একটি ড্র আর বাকি চার ম্যাচ হার। এই ছয় টেস্টে দলের ফলাফল অনুকূলে না হলেও ব্যক্তিগত পারফর্মে উজ্জ্বল ছিলেন রিয়াদ। অধিনায়ক হিসেবে ২ শতক ও ২ অর্ধশতকে তার ব্যাটিং গড় ৫৯.৪৪। যেখানে ক্যারিয়ার গড় মাত্র ৩৩.১৯। বাংলাদেশের অধিনায়কদের মধ্যে সর্বোচ্চ গড় এখন তার। অধিনায়ক হিসেবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গড় মুশফিকুর রহিমের ৪১.৪৪।

Also Read - পিএসএল খেলতে পাকিস্তানে হেলস-জর্ডান


গত বছর দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলার সময় ইনজুরিতে পড়েন টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তারপরে গত বছর ফেব্রুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পড়ে দায়িত্ব পড়ে রিয়াদের ঘাড়ে। অধিনায়ক হিসেবে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে করেন অপরাজিত ৮৩ ও অপরাজিত ২৮ রান। সেই সিরিজের চার ইনিংসে তার গড় ছিল ৬৭।

গত বছর জুলাইয়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপে খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেখানে দলে ফেরেন নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব। সেই সিরিজে রিয়াদের পারফর্ম ছিল খুব হতাশাজনক। চার ইনিংসে করেছিলেন মাত্র ২১ রান। আবারো যেন তাকে টেস্ট দল থেকে বাদ দেয়ার দাবিতে জেগে ওঠে নিন্দুকরা।

বিপিএলকে ‘প্রস্তুতির বাধা’ মনে করেন না রিয়াদ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাঠেই আবারো ইনজুরিতে ছিটকে যান সাকিব এবং দায়িত্ব পান রিয়াদ। সিলেটে প্রথম টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারে সমালোচিত হচ্ছিল বাংলাদেশ ও রিয়াদের পারফরম্যান্স। টানা আট বছর টেস্ট ক্রিকেটে কোনো সেঞ্চুরি দেখা পাচ্ছিলেন না তিনি। সমালোচনা হওয়াটাই স্বাভাবিক।

সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা টেস্টে সেঞ্চুরি করে সেই আক্ষেপ মেটান রিয়াদ। দ্বিতীয় বারের মতো অধিনায়কত্ব করা এই টেস্ট সিরিজের চার ইনিংসে রিয়াদের ব্যাটিং গড় ছিল ৫১।

জিম্বাবুয়েরর বিপক্ষে সিরিজের রেশ না কাটতেই চলে আসে উইন্ডিজ। এই সিরিজে অবশ্য দলে ফেরেন নিয়মিত অধিনায়ক সাকিব। ফলে রিয়াদ আবারো হয়ে যান তার ডেপুটি। এবারে আরেকটি সেঞ্চুরির দেখা পেতে আর দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করা লাগেনি তাকে। মাত্র এক ম্যাচ পরেই সেঞ্চুরি পান উইন্ডিজের বিপক্ষে। এই সিরিজের তিন ইনিংসে ৫৬.৬৭ গড়ে করেন ১৭০ রান।

 

View this post on Instagram

 

Mahmudullah Riyad passing good times with the bat. #NZvBAN

A post shared by bdcrictime.com (@bdcrictime) on Mar 12, 2019 at 10:29pm PDT

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চলমান টেস্ট সিরিজে আবারো সাকিবের অনুপস্থিতিতে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন রিয়াদ। প্রথম টেস্টেই করেছেন সেঞ্চুরি। দ্বিতীয় টেস্টেও দেখা পেয়েছেন ফিফটির। প্রথম দুই ম্যাচের চার ইনিংসে ৬২ গড়ে রান ২৪৮।

সর্বশেষ ১০ টেস্টের ১৯ ইনিংসে ৪৫.২৫ গড়ে ব্যাট হাতে তার সংগ্রহ ৭২৪। গত বছরশ্রীলঙ্কা বিপক্ষে সিরিজে নেতৃত্ব দেয়া শুরুর আগে তার ক্যারিয়ার গড় ছিল ৩০.১৭। দশ ম্যাচ পরে এখন সেটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩.১৯।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন


Related Articles

বিশ্বকাপে যত প্রথম

আর্জেন্টিনায় ব্রিটিশ তরুণীর ক্রিকেট ছড়িয়ে দেওয়ার গল্প

দুশ্চিন্তার নাম টপ অর্ডার

মুশফিকের পথচলার তেরো বছর

‘টাইগার’ মাশরাফির বর্ণিল ১৬ বছর