SCORE

পরামর্শকই কারস্টেনের ভূমিকা

বাংলাদেশ দলের কোচ-শূন্যতা পূরণে ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ গ্যারি কারস্টেন এখন বাংলাদেশে। আইপিএলে নিজের দায়িত্ব পালন শেষ করেই ৫০ বছর বয়সী এই জনপ্রিয় ক্রিকেট ব্যক্তিত্ব পা রাখেন বাংলাদেশে।

পরামর্শকই কারস্টেনের ভূমিকা

নভেম্বরে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের স্বেচ্ছায় অব্যাহতি গ্রহণের পর থেকে এখনও বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচের পদ খালি। হাই প্রোফাইল কোচ নিয়োগের চিন্তা থেকে কারস্টেনের সাথে যোগাযোগ করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। তবে নানাদিকে জড়িয়ে আটকে থাকা কারস্টেন কোচ না হয়েই যুক্ত থাকতে চেয়েছেন বাংলাদেশের কোচিং স্টাফের সাথে।

Also Read - 'র‍্যাঙ্কিং নয়, সিরিজ জয় নিয়েই ভাবনা'

তার সেই ইচ্ছের মূল্যায়ন করেই কারস্টেনকে জাতীয় দলের পরামর্শকের ভূমিকায় রাখছে বিসিবি। সাবেক প্রোটিয়া ক্রিকেটার বাংলাদেশ সফরে আসার আগে তার ভূমিকাকে ‘ডিরেক্টর অব কোচিং’ হিসেবে আখ্যা দেওয়া হলেও কারস্টেনের বাংলাদেশ সফরের দ্বিতীয় দিনের মাথায় জানা গেল, তাকে পরামর্শক হিসেবেই কোচিং স্টাফে রাখছে বোর্ড।

সোমবার বিকেলে কারস্টেন প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। এ সময় তিনি পরিষ্কার করেন কারস্টেনের পদ-পদবীর ব্যাপারে।

‘ডিরেক্টর অব কোচিং’ হিসেবে কারস্টেন ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত বাংলাদেশের সাথে কাজ করার কথা থাকলেও আদতে তা হচ্ছে না। আর এ কারণে তার কাজের পরিধি আপাতত কোচ নিয়োগ পর্যন্তই। নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন-

‘উনি পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন। আগে আমাদের পরিকল্পনা ছিল উনি দীর্ঘ মেয়াদে আমাদের সাথে কাজ করবেন, বিশ্বকাপ পর্যন্ত প্রাথমিকভাবে তিনি সম্মতিও দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তিতে উনার অন্যান্য কাজের ব্যস্ততার কারণে তিনি জানিয়েছেন যে, আপাতত কোচ নিয়োগ প্রক্রিয়া পর্যন্ত তিনি আমাদের সাথে কাজ করবেন।’

কারস্টেন মূলত বোর্ডের পরামর্শক বা উপদেষ্টা হিসেবেই কাজ করবেন। সেই হিসেবে জাতীয় দলের বা বিসিবির কোনো কাজেই সরাসরি সংস্পর্শতা থাকবে না তার। তবে পেশাদারিত্বের টানে কারস্টেন যেখানেই থাকুন না কেন, সবসময়ই তিনি বাংলাদেশের ক্রিকেট পর্যবেক্ষণ করার কথা।

নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন-

‘আসলে গ্যারি কারস্টেন আপাতত বাংলাদেশ দলের একটি ইন্টার্নাল অডিট করছেন। সামনে আইসিসির যেসব কম্পিটিশন আছে, আইসিসি বিশ্বকাপ, ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টি; এগুলো সামনে রেখে কিভাবে বাংলাদেশ দলকে উন্নত করা যায়, কোন কোন জায়গায় কাজ করতে হবে, এই বিষয়গুলো পর্যালোচনা করছেন। তিনি বোর্ডকে এ বিষয়ে প্রতিবেদন দেবেন।’

বিসিবির প্রধান নির্বাহী জানান, জাতীয় দলের পরম আরাধ্য কোচ খুঁজে পেতে বড় ভূমিকাটা রাখবেন কারস্টেনই। তিনি বলেন,

‘একই সাথে কোচ নিয়োগ নিয়েও তিনি কাজ করছেন। আমরা ইতোমধ্যে কয়েকজন কোচের নাম দিয়ে সংক্ষিপ্ত তালিকা করেছি, গ্যারি কারস্টেনের কাছেও কিছু নাম আছে। আপাতত দলের পরিস্থিতি পর্যালোচনার পর তিনি হয়তো তার পরামর্শ আমাদের দেবেন যে, কোন এরিয়াতে আমাদের বেশি কাজ করতে হবে এবং এরপর তিনি বলবেন কোন কোচ আমাদের জন্য বেশি কার্যকর হবেন।’

উল্লেখ্য, গত রোববার (২০ মে) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে ঢাকা সফরে আসেন গ্যারি কারস্টেন। সফরের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে বৈঠকে বসেন তিনি। সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তারাও। বৈঠকে যে তিনজন সিনিয়র ক্রিকেটার ছিলেন তারা হলেন- মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিম। মূলত কোচ নিয়োগের ব্যাপারে ক্রিকেটারদের মতামত গ্রহণের জন্যই মাশরাফি-তামিম-মুশফিকদের সাথে এই বৈঠকে বসেছিলেন কারস্টেন। এর আগে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে দায়িত্ব পালনকালে সাকিব আল হাসান ও মুস্তাফিজুর রহমানের সাথেও কারস্টেন বৈঠক করেছিলেন বলে জানা যায়।

পর্যায়ক্রমে কারস্টেন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্তাদের সঙ্গেও বৈঠকে বসবেন। চলমান ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর সহকারী কোচের দায়িত্বে রয়েছেন কারস্টেন। তবে দলটি প্লে-অফে যেতে না পারায় আপাতত আর ব্যস্ততা নেই কারস্টেনের। আর তাই কালক্ষেপণ না করেই ঢাকা এসেছেন তিনি। অভিজ্ঞ ও হাই প্রোফাইল এই কোচিং স্টাফ সাকিব-মাশরাফিদের কোচ নিয়োগ প্রসঙ্গে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য তাই যথেষ্ট অবসর সময় পাচ্ছেন।

আরও পড়ুনঃ নিজে হারলেও মুম্বাইয়ের পরাজয়ে প্রীত প্রীতি!

Related Articles

অধিনায়কত্ব হারাচ্ছেন কোহলি!

দায়িত্ব ছাড়লেন গ্যারি কারস্টেন

হাথুরুসিংহের মতোই ‘স্বাধীন’ রোডস

কঠিন সময়ের চ্যালেঞ্জ সহজভাবেই নিচ্ছেন নতুন কোচ

তবু রোডসকে ‘চূড়ান্ত’ বলতে নারাজ বোর্ড প্রধান