পরিসংখ্যান কথা বলছে লংকানদের হয়ে

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা
এশিয়া কাপে বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা

আজমল তানজীম সাকির

বাঘ আর সিংহ। বনের দুই ক্ষমতাধর উপমহাদেশের দুই দেশ বাংলাদেশ আর শ্রীলংকার প্রতীক।

Advertisment

বিশ্বকাপে দুই দল মুখোমুখি হবে ২৬শে ফেব্রুয়ারি। মেলবোর্নে দুই দলই নামবে বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে। প্রথম ম্যাচে কিউইদের সাথে হার ও দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানদের সাথে জয়ের পর লংকানদের পয়েন্ট ২। অন্যদিকে, ৩ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের ৩ নম্বরে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের বিপক্ষে এক দিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে লংকানদের দলীয় সর্বোচ্চ ৩৫৭/৯। ২০০৮ সালে লাহোরে এই রান করে তারা। বাংলাদেশের দলীয় সর্বোচ্চ লংকানদের থেকে ঢের কম। লংকানদের বিরুদ্ধে ২০০৬ সালে ৯ উইকেটের বিনিময়ে ২৬৫ রান করে বাংলাদেশ। এটিই টাইগারদের দলীয় সর্বোচ্চ। বাংলাদেশের দলীয় সর্বনিম্ন রান ৭৬। বিপরীতে লংকানদের দলীয় সর্বনিম্ন ১৪৭।

ওয়ান-ডেতে বাংলাদেশের সাথে লংকানদের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন কুমার সাঙ্গাকারা। টাইগারদের সাথে ৪৪.০৪ গড়ে তার সংগ্রহ ১১০১। ৫৭৩ রান করে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক মোহাম্মদ আশরাফুল। শ্রীলংকার সাথে তার ব্যাটিং গড় ২৩.৮৭।

ওয়ান-ডেতে উইকেট শিকারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাথে সবার উপরে আবদুর রাজ্জাক। তিনি পেয়েছেন ১৯টি উইকেট। বাংলাদেশের সাথে শ্রীলংকার হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট পেয়েছেন মুরালীধরন। বাংলাদেশের সাথে এই স্পিনারের উইকেট সংখ্যা ৩১টি। শ্রীলংকার হয়ে সেরা বোলিং ফিগার চামিন্দা ভাসের। বাংলাদেশের হয়ে সেরা বোলিং ফিগার আবদুর রাজ্জাকের।

কমপক্ষে ১০ ওভার বোলিং করেছেন, তাদের মধ্যে সেরা ইকোনমি রেট শ্রীলংকার রামানায়েকের। তার ইকোনমি ১.৭২। টাইগারদের হয়ে সবচেয়ে কম ইকোনমি রেটের অধিকারী আজহার হোসেন। ওভারপ্রতি তার ইকোনমি ৩.৩৪।

লংকানদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি শূন্য রানে আউট হয়েছেন রুবেল হোসেন। ১০ ম্যাচে রুবেল শূন্য রানে আউট হয়েছেন তিনবার। শ্রীলংকার হয়ে এই তিক্ত রেকর্ডের অধিকারী কুলাসেকারা। বাংলাদেশের সাথে রানের খাতা না খুলেই তিনি সাজঘরে ফিরেছেন দুইবার।

বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার লড়াইয়ে উইকেট কীপার হয়ে সবচেয়ে বেশি ক্যাচ তালুবন্দী করেছেন সাঙ্গাকারা। বাংলাদেশের সাথে তিনি ধরেছেন ৪১ টি ক্যাচ।

পরিসংখ্যান কথা বলছে শ্রীলংকার হয়ে। তবে বিশ্বকাপে মাঠের লড়াইয়ে শেষ হাসি কার মুখে ফুটবে, তা জানতে ক্রিকেটপ্রেমীদের অপেক্ষা করতে হবে ২৬শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।