Scores

পাওয়েলের আউট নিয়ে কী আপত্তি ছিল ব্র্যাথওয়েটের?

মেহেদি হাসান মিরাজের বল উইন্ডিজ ব্যাটসম্যান রোভম্যান পাওয়েলের ব্যাট ছুঁয়ে চলে যায় পেছনে। প্রথমে উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের পায়ে লাগলে এরপর বল পায়ে লাগলেও গ্লাভসবন্দী করে ফেলেন মুশফিকুর রহিম। মেহেদি হাসান মিরাজ শুরু করে দেন চতুর্থ উইকেট শিকারের উদযাপন, আঙুল তুলে আউটের সংকেত দেন আম্পায়ারও। কিন্তু উইন্ডিজ ডাগ-আউট থেকে এসে আম্পায়ারদের সাথে কথা বলতে থাকেন উইন্ডিজের কার্লোস ব্র্যাথওয়েট।
পাওয়েলের আউট নিয়ে কী আপত্তি ছিল ব্র্যাথওয়েটের?

কার্লোস ব্র্যাথওয়েটের আপত্তি ছিল বাংলাদেশের ফিল্ডিং সাজানো নিয়ে। আইসিসির নিয়ম অনুসারে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে অন সাইডে পাঁচজনের বেশি ফিল্ডার রাখা যাবে না। অফ সাইডে তিন আর অন সাইডে ছয়জন ফিল্ডার রাখলে সেটি হবে নো বল। রোভম্যান পাওয়েল যে বলে আউট হয়েছেন তখন ঘটেছিল সেটিই। কিন্তু আম্পায়াররা তা খেয়াল না করে ডাকেন নো বল। রোভম্যান পাওয়েল জানালেন সেটি নিয়েই আপত্তি জানাতে এসেছিলেন কার্লোস ব্র্যাথওয়েট।

Also Read - নিউজিল্যান্ডে ভালো করার বিশ্বাস মাশরাফির


ম্যাচশেষে ভুল স্বীকার করে নিয়েছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। মাশরাফি বলেন, “হ্যাঁ, ছয় আর তিনের বিষয়টা আমরা জানি। সবাই জানি এমন হলে নো বল হয়। কিন্তু ঐ সময় আমরা আউট করার জন্য… আসলে মিরাজ যেরকম বোলিং করছে তখন ফিল্ডিং যত ক্লোজ করা যায় করছিলাম। করতে করতে ঐ পাশে ছয়টা নিয়ে ফেলেছি। যখন আম্পায়ার্স কল হয়ে গিয়েছে ওকে আউটই দিতে হয়েছে।”

বোলার মেহেদি হাসান মিরাজও জানালেন সেই ভুল খেয়াল করেনি কেউ। মিরাজ বলেন, “ক্রিকেট খেলায় ভুল হয়ই। অনে তিনটা, লেগে ছয়টা ফিল্ডার থাকলে নো হয়। আমরা কেউই লক্ষ্য করিনি। ও এসে আম্পায়ারকে বলছিল, আম্পায়ারও খেয়াল করেনি, আমরাও কেউ খেয়াল করিনি। ও এসে যখন আম্পায়ারকে বলেছিল তখনও প্রায় সব কিছু হয়েই গেছে।”

উইন্ডিজ অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েলও কথা বলেন এ বিষয়ে। পাওয়েল এবং অপর প্রান্তে থাকা হোপেরও চোখ এড়িয়ে গিয়েছে বিষয়টি। পাওয়েল বলেন, “এভাবে কেউ আউট হতে চায় না। এজন্যই কার্লোস মাঠে এসেছিল। আমি কিংবা হোপ- কেউই এটি খেয়াল করেননি।” 

 


আরো পড়ুনঃ  হেটমায়ারের ‘মিরাজ-জুজু’র রহস্য কী?


 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

নো-বল রোধী জুতা চান শেবাগ!