পিএসএলকে ‘না’ আইসিসি সভাপতির

0
728

আগামী ১৭ মার্চ করাচি স্টেডিয়ামে গড়াবে পিএসএল ফাইনাল। এই ম্যাচ দেখতে বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তাদেরকে আমন্ত্রণ করেছে পিসিবি। এমনকি বাদ পড়েনি আইসিসি এবং বিসিসিআই ও। আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহর, প্রধান নির্বাহী ডেভ রিচার্ডসনকে আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছে পিসিবি। তবে পিসিবি সভাপতি এহসান মানি জানিয়েছেন, তাঁদের দাওয়াত প্রত্যাখ্যান করেছে বিসিসিআই। পিএসএল ফাইনাল দেখতে আসছেন না বিসিসিআইয়ের কোনো কর্মকর্তা।  পাশাপাশি ‘না’ করে দিয়েছেন আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহর।

 

Advertisment

শশাঙ্ক মনোহর

কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে যুদ্ধ প্রায় লেগেই গিয়েছিল দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে। কিন্তু পাকিস্তান ভারতীয় পাইলটকে ফেরত দেওয়ায় পরিস্থিতি এখন আগের তুলনায় শান্ত। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডও (পিসিবি) তাঁদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী কিন্তু প্রতিবেশী দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে পদক্ষেপ নিয়েছে। পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনাল দেখতে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) কর্মকর্তাদের আমন্ত্রণ করেছিল পিসিবি।

পিসিবি সভাপতি এহসান মানি  জানান, ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পিএসএল ফাইনাল দেখতে পাকিস্তানে যাওয়ার ব্যাপারে অপারগতা প্রকাশ করেছেন বিসিসিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সি কে খান্না। একই কারণে যেতে পারবেন না আইসিসি সভাপতি শশাঙ্ক মনোহরও—যিনি একজন ভারতীয়।

এহসান মানি  বলেন, ‘খান্না ও মনোহর দুজনেই ব্যক্তিগত কারণে পাকিস্তানে এসে ফাইনাল দেখার ব্যাপারে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। তবে আইসিসির প্রধান নির্বাহী রিচার্ডসন ফাইনাল দেখতে করাচিতে থাকবেন।’

এদিকে বাংলাদেশ, ভারত, ইংল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ডকে দাওয়াত করেছে পিসিবি। অবশ্য এসব দেশের বোর্ডকে বলার পেছনে একটি উদ্দেশ্যও আছে পিসিবির।

পিসিবি সভাপতি এহসান মানি বলেন, ‘তাঁদের ডাকার কারণ হলো, এখানে এসে তাঁরা ফাইনালের আয়োজন দেখলে পাকিস্তানে নিরাপত্তার ব্যাপারে সবার ভুল ভাঙবে। পাকিস্তানে যে এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা যায় আমরা তা নিশ্চিত করতে চাই।’

২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কার দলীয় বাসে হামলা করেছিল সন্ত্রাসীরা। এরপর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ রয়েছে পাকিস্তানে। বড় কোনো দল আর পাকিস্তান সফরে যায়নি।