SCORE

পাঠানের ঝড়ে হায়দরাবাদের জয়

আইপিএলে দিল্লী ডেয়ারডেভিলসের বিপক্ষে সাত উইকেটের জয় পেয়েছে সাকিব আল হাসানের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ব্যাটিংয়ে ইউসুফ পাঠানের ঝড় জয় এনে দিয়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে। দলের জয়ের দিনে অন্যান্য বোলারদের মতো বল হাতে নিস্প্রভ ছিলেন সাকিব আল হাসান। ব্যাট হাতে নামেননি।

টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় দিল্লী ডেয়ারডেভিলস। শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি দিল্লী ডেয়ারডেভিলসের। দ্বিতীয় ওভারেই তারা হারায় ওপেনার গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে। ৩ বলে ২ রান করে রান আউট হয়ে যান ম্যাক্সওয়েল। এরপর পৃথ্বী শ’কে নিয়ে হাল ধরেন অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার। দুজন মিলে ৮৬ রানের জুটি গড়েন। অসাধারন সব শটে ভরপুর ছিল সে জুটি। পৃথ্বী শ’র ঝড়ো ব্যাটিং দিল্লী ডেয়ারডেভিলসকে বড় স্কোরের দিকে নিয়ে যায়।

তৃতীয় ওভারে বোলিংয়ে আনা হয় সাকিব আল হাসানকে। তার প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকান শ। প্রথম ওভারে দশ রান দেন সাকিব। সপ্তম ওভারে নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এসে রান দেন ছয়।

Also Read - সম্ভাব্য সেরা দলই খেলবে আফগানদের বিপক্ষে

নবম ওভারে নিজের তৃতীয় ওভার করতে এসে খরুচে বোলিং করেন তিনি। তার ঐ ওভারে এক ছক্কা এবং এক চার হাঁকান শ্রেয়াস আইয়ার। ঐ ওভারে ১৪ রান সংগ্রহ করে দিল্লী ডেয়ারডেভিলস।

শ আর শ্রেয়াসের জুটি ভাঙেন লেগ স্পিনার রশিদ খান। রশিদের বলে সিদ্ধার্থ কাউলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান শ। ৩৬ বলে ৬৫ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। 

রিশাভ প্যান্ট আর শ্রেয়াস আইয়ার মিলে যোগ করেন ৩০ রান। ৩৬ বলে ৪৪ রান করে সিদ্ধার্থের শিকার হন শ্রেয়াস। পরের ওভারে রান আউট হন নুয়ান ওঝা (১)।

১৮ তম ওভারে আবারো বোলিং আক্রমণে আনা হয় সাকিবকে। প্রথম তিন ওভারের চেয়ে চতুর্থ ওভারে তুলনামূলক ভালো করেন সাকিব। মাত্র চার রান দেন তিনি। চার ওভারে ৩৪ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন সাকিব। 

শেষদিকে ঝড় তুলেছিলেন বিজয় শঙ্কর। ১ চার এবং ১ ছক্কার সুবাদে ১৩ বলে ২৩ রান তুলেন শঙ্কর। ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬৩ রান করে দিল্লী ডেয়ারডেভিলস।

জবাবটা ভালোভাবেই দেয়া শুরু করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। দুই ওপেনার অ্যালেক্স হেলস এবং শিখর ধাওয়ান দলকে ৭৬ রানের ভিত গড়ে দেন। দলের রানের গতিও ছিল দারুণ। রান তাড়া করতে নেমে এক উড়ন্ত সূচনা করে হায়দরাবাদ। পাওয়ারপ্লের ছয় ওভারে তারা স্কোরবোর্ডে জমা করে ৬১ রান।

নবম ওভারে দলীয় ৭৬ রানের মাথায় তাদের জুটি ভাঙেন অমিত মিশ্র। ৩ চার আর ৩ ছক্কায় সাজানো ৩১ বলে ৪৫ রানের ইনিংস খেলে ফিরে যান হেলস। নিজের পরের ওভারে শিখর ধাওয়ানকে বোল্ড করেন অমিত। ৩০ বলে ৩৩ রান করেন ধাওয়ান। দুই ওভারে দুই উইকেট তুলে নিয়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে চেপে ধরেন অমিত মিশ্র।

দ্রুত দুই উইকেট হারানোর পর রানের গতিও কমে যায় সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং মানিশ পান্ডেকে সফলভাবেই আটকে রাখেন দিল্লী ডেয়ারডেভিলসের বোলাররা। এ জুটি ৪৩ বল টিকে থেকে রান সংগ্রহ করে ৪৬। ১৭ বলে ২১ রান করে লিয়াম প্লাঙ্কেটের বলে ফিরে যান মানিশ পান্ডে।

শেষ ১২ বলে ২৮ রান প্রয়োজন ছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। ইউসুফ পাঠান ১৯ তম ওভারের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচে দলকে টিকিয়ে রাখেন। পরের বলে আম্পায়ার তাকে এলবিডব্লিউ দিলেও বেঁচে যান রিভিউ নিয়ে। তৃতীয় বলে বাউন্ডারি হাঁকান পাঠান। পেসার ট্রেন্ট বোল্টের করা ১৯ তম ওভারে ১৪ রান সংগ্রহ করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

শেষ ওভারে আরো ১৪ প্রয়োজন ছিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। প্রথম বলে দুই রান সংগ্রহ করেন ইউসুফ পাঠান। দ্বিতীয় বলেই এক বিশাল ছক্কা মারেন পাঠান। তৃতীয় বলে পুল করে মারেন চার। তিন বলে ১২ রান নিয়ে দলের জয় অনেকটা নিশ্চিত করে ফেলেন ইউসুফ। চতুর্থ বলে প্রান্ত বদল করলে দুই দলের স্কোর সমান হয়। পঞ্চম বলে এক রান নিয়ে জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। ১২ বলে ২৭ রান করে অপরাজিত থাকেন ইউসুফ পাঠান। তার ইনিংসে ছিল দুই চার এবং দুই ছক্কা।

এ জয়ে আবারো পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে চলে আসলো সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ৯ ম্যাচে ৭ জয়ে তাদের পয়েন্ট ১৪।

সংক্ষিপ্ত স্কোর ঃ দিল্লী ডেয়ারডেভিলস ১৬৩/৫, ২০ ওভার
পৃথ্বী ৬৫, শ্রেয়াস ৪৪, শঙ্কর ২৩*
রশিদ ২/২৩, সিদ্ধার্থ ১/৩৭, সাকিব ০/৩৪

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ১৬৪/৩, ১৯.৫ ওভার
হেলস ৪৫, ধাওয়ান ৩৩, উইলিয়ামসন ৩২*, পাঠান ২৭*
মিশ্র ২/১৯, প্লাঙ্কেট ১/২৭


আরো পড়ুন : রুমানা-সালমাদের নতুন কোচ জাইন

 


 

 

Related Articles

‘চুলে নয়, বলে তাকাও’

বরখাস্ত হলেন ভেট্টোরি

ভারতছাড়া হচ্ছে আইপিএল!

বিগ ব্যাশকেও বিদায় বললেন জনসন

দুই বছর বিদেশি লিগে খেলবেন না মুস্তাফিজ