পেস আক্রমণে ভরসা মাশরাফির

মেলবোর্নে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মাশরাফি বিন মুর্তজা
মেলবোর্নে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে মাশরাফি বিন মুর্তজা

মোঃ সিয়াম চৌধুরী

শক্তিমত্তার বিচারে শ্রীলঙ্কার চেয়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকলেও বিশ্বকাপের এবারের আসরে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ এগিয়ে আছে শ্রীলঙ্কা চেয়ে। সমান ২টি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশের পয়েন্ট ৩, শ্রীলঙ্কার ২। শ্রীলঙ্কা একটি ম্যাচে হারলেও আসরে এখনও অপরাজিত বাংলাদেশ।

Advertisment

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় মাঠ মেলবোর্নে শ্রীলঙ্কা সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশের চেয়ে এগিয়ে যাওয়ার। বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে নয়টায় শুরু হতে যাওয়া ম্যাচটিতে বাংলাদেশকে হারাতে পারলে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা কিছুটা হলেও কমবে লঙ্কানদের।

তবে শ্রীলঙ্কা ম্যাচের আগে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি। ২ পয়েন্ট পাওয়ার জন্য মাশরাফির মূল ভরসা পেস আক্রমণে। তিনি নিজেও একজন পেসার, দলের পাশাপাশি পেস আক্রমণের নেতৃত্বটাও তাঁকেই দিতে হয়। তবে মাশরাফি আশাবাদী তাসকিন আহমেদ ও রুবেল হোসেনকে নিয়ে।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে ভালো বল করেছেন রুবেল-তাসকিন দুজনই। রুবেল বলের গতি ১৪০-এরও উপরে তুলেছেন অনেকবার, তাসকিনের বল খেলতে বেশ অসুবিধা হয়েছে আফগানদের। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচেও এই দুই পেসারের কাছ থেকে এমন পারফরমেন্স চান অধিনায়ক, ‘মাত্র একটি ম্যাচ শেষেই সবাই রুবেল ও তাসকিনকে নিয়ে কথা বলছে, তাঁরা যথেষ্ট গতির পাশাপাশি ভালো বল করতে পারে। এসব উইকেটে নিখাদ বাউন্স থাকে, তাই আমাদের অতিরিক্ত পেসার নিয়ে খেলতে হবে।’

অধিনায়কের কথা থেকে কিছুটা ইঙ্গিত মিলেছে ম্যাচে চারজন পেসার খেলানোর। সেক্ষেত্রে একাদশে ঢুকতে পারেন আল-আমিনের বদলি হিসেবে স্কোয়াডে ঢুকা শফিউল। শফিউলের উপস্থিতিকে দলের শক্তি বৃদ্ধি হিসেবে দেখছেন মাশরাফি, ‘শফিউল একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। সে আমাদের এই পর্যায়ে কিছু ম্যাচ জিতিয়েছে, যেটা আল-আমিন করতে পারেনি। আমাদের যা আছে তা নিয়েই আমরা লড়াই করবো।’

শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কৃত আল-আমিনের ব্যাপারে মাশরাফি জানান, এই বিষয়টি দলে নেতিবাচক কোনো প্রভাব ফেলবে না। তিনি আরও বলেন, ‘আল-আমিনের বিষয়টি এই বিশ্বকাপেই ঘটেছে এবং আমরা চাইলেও তাঁকে ফিরিয়ে আনতে পারব না।’ মাশরাফি বাংলাদেশকে দাবি করেছেন বিশ্বকাপের অন্যতম শৃঙ্খল দল হিসেবেও, ‘আমার মনে হয় আমরা টুর্নামেন্টের অন্যতম শৃঙ্খলাবদ্ধ দল। যে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছিল সে শাস্তি পেয়েছে।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪টি ওয়ানডে ম্যাচ জয়ের বিপরীতে বাংলাদেশ হেরেছে ৩২টিতে। গত বছর এশিয়া কাপ ও দ্বিপক্ষীয় সিরিজে পরাজয়গুলো ছিল বাজেভাবে। তবে মাশরাফি অতীত ভুলে কেবল সামনে তাকাচ্ছেন, ‘সত্যি বলতে গত বছর কী হয়েছে সেটা নিয়ে আমরা ভাবছি না। হারের কথাগুলো আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের আগেও উঠেছিল।’

ব্যাটিং নিয়ে তেমন দুশ্চিন্তা না থাকলেও বাংলাদেশ অধিনায়ক ভয় পাচ্ছেন শ্রীলঙ্কান পেসার লাসিথ মালিঙ্গাকে। চাপের মধ্যে বিশেষ করে স্লগ ওভারগুলোতে মালিঙ্গা হয়ে উঠতে পারেন যেকোনো প্রতিপক্ষের আতংক। তবে এ জন্য লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানরা প্রস্তুত বলে আশা প্রকাশ করেছেন মাশরাফি।