প্রতারণার শিকার মাশরাফি

ভোক্তা-গ্রাহকদের সাথে প্রতারণার অভিযোগ ওঠায় এসপিসি গ্রুপের সাথে চুক্তি বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠানটিকে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন তিনি। 

নির্বাচকদের চোখে তরুণরাই মাশরাফির 'বিকল্প'

Advertisment

চলতি বছরের এপ্রিলে এসপিসি গ্রুপের শুভেচ্ছাদূত হন মাশরাফি। সেই অনুযায়ী এসপিসি তাদের প্রচার প্রচারণায় মাশরাফির ছবি ও ভিডিও ব্যবহার করছে। কিন্তু মাশরাফি বুঝতে পারেন, প্রতারণা করা হয়েছে তার সাথেও, তাকে ব্যবসার ধরন সম্পর্কে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছিল এসপিসি। তাই শুভেচ্ছাদূতের ভূমিকা থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন তিনি।

মাশরাফির দাবি, নড়াইলে উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের আশ্বাসে তিনি প্রতিষ্ঠানটির সাথে যুক্ত হয়েছিলেন। তিনি বলেন, গত এপ্রিলে আমি এসপিসি গ্রুপ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছিলাম। তাদের সঙ্গে আমার চুক্তি ছিল, ‘শুভেচ্ছা দূত’ হিসেবে তারা তাদের প্রতিষ্ঠানের প্রচারে আমার ছবি ও ধারণকৃত ভিডিও ব্যবহার করতে পারবে। বিনিময়ে তারা নড়াইলে ১০০টি উন্নতমানের সিসিটিভি স্থাপনসহ সামাজিক উন্নয়নের কাজ করবে।’

সাম্প্রতিক সময়ে এসপিসি গ্রুপের কর্মকাণ্ড নিয়ে বেশ সমালোচনা হয়। অভিযোগ উঠেছে গ্রাহকদের সাথে প্রতারণারও। চটকদার বিজ্ঞাপন আর লোভনীয় প্রস্তাবে গ্রাহকদের কাছ থেকে অনৈতিকভাবে সুবিধা ভোগ করার অভিযোগ আছে এসপিএসের বিরুদ্ধে। সচেতন ও সতর্ক মাশরাফি তাই চুক্তি দীর্ঘায়িত করেননি তাদের সাথে। দুই বছরের চুক্তি শেষ হচ্ছে দুই মাসেই। 

মাশরাফি বলেন, ‘সম্প্রতি আমি জানতে পেরেছি, তাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যে ধারণা আমাকে দেওয়া হয়েছিল, তাদের ব্যবসার ধরন তা নয়। দুই বছরের চুক্তি থাকলেও দুই মাসের মধ্যেই তাদের সম্পর্কে জানার পরই আমি তাদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইতিমধ্যেই আমি তাদেরকে উকিল নোটিশ পাঠিয়েছি, আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি শেষ করার আইনী প্রক্রিয়া এগিয়ে নিচ্ছি। আমি সবাইকে অনুরোধ করব, আমার নাম বা ছবি দেখে বিভ্রান্ত হয়ে এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে না জড়াতে।’