Scores

প্রস্তুতি ম্যাচে অসহায় আত্মসমর্পণ মুশফিক-সাব্বিরদের

প্রস্তুতি ম্যাচে বিসিবি একাদশকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে সফরকারী জিম্বাবুয়ে। আফিফ হোসেন ছাড়া স্বাগতিক দলের বাকি  বোলারদের অসহায়ত্বের দিন ৬ বল বাকি থাকতেই ১৪৩ রানের লক্ষ্যমাত্রা টপকে যায় সফরকারীরা।

যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশে আফিফ
জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়েকে শুভ সূচনা এনে দেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও ব্রেন্ডন টেলর। প্রথম থেকেই আক্রমণাত্বক হয়ে ব্যাট করতে থাকেন তডঃ রান তুলতে থাকেন দ্রুতগতিতে।

এমন পরিস্থিতিতে ইনিংসের পঞ্চম ওভারে আফিফের হাতে বল তুলে দেন সাইফ হাসান। নিজের প্রথম ওভারেই অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান তিনি। ৩১ রান করা মাসাকাদজাকে জাকের আলির হাতে স্টাম্পড করে সাজঘরে ফেরান তিনি। এর ফলে দলীয় ৪৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় সফরকারীরা।

ব্যক্তিগত প্রথম ওভারে দলকে ব্রেকথ্রু এনে দেওয়ার পর দ্বিতীয় ওভারে এসে আবারও আঘাত হানেন আফিফ। তার বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ে এ যাত্রায় স্টাম্পড হন ক্রেইগ আরভান। এখানেই থামেননি আফিফ। ব্যক্তিগত তৃতীয় ওভারের প্রথম বলে আবারও উইকেটের দেখা পান তিনি। এ যাত্রায় ২ রান করা শন উইলিয়ামসকে এলবির ফাঁদে ফেলেন তিনি। এতে করে দলীয় ৬৬ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

Also Read - থাকছে না কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি, বিসিবির নিজস্ব অর্থায়নে বিপিএল


তবে শেষ পর্যন্ত এ চাপ ধরে রাখতে পারেনি স্বাগতিক বোলাররা। বিপর্যয় কাটিয়ে চতুর্থ উইকেটে সফরকারীদের খেলায় ফেরান টেলর ও মারুমা। তাদের অবিচ্ছিন্ন ৭৮ রানের জুটিতে শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা। অর্ধশতক হাঁকিয়ে ২ চার ও ৩ ছক্কায় ৫৭ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন টেলর। আর ২৮ বলে ঝড়ো ৪৬ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন ৪৬ রানে।

স্বাগতিক বোলারদের মধ্যে ৪ ওভার থেকে ১৯ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন আফিফ।

এর আগে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন স্বাগতিক দলের অধিনায়ক সাইফ হাসান। নাইম শেখকে সাথে নিয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নেমে দলকে ভালো শুরুও এনে দেন সাইফ। যদিও ক্রিজে বেশিক্ষণ থিতু হতে পারেননি, আউট হন সমান ১ চার ও ছক্কায় ২১ রান করে।

তার বিদায়ে দলীয় ২৬ রানে প্রথম উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসেন সাব্বির রহমান। এরপর জ্বলে ওঠেন নাইম। আক্রমণাত্বক ব্যাটিংয়ে তুলতে থাকেন দ্রুত রান। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে চারবার সীমানা ছাড়া করেন বল। ঐ ওভার থেকে ১৬ রান আদায়ের পরের ওভারেই বিদায়ঘন্টা বাজে তার। আউটের আগে ৫ চারের সাহায্যে ১৪ বল থেকে করেন ২৩ রান।

প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাট হাতে ধীরগতির ইনিংস খেলেন সাব্বির-মুশফিক।

দুই ওপেনারের বিদায়ের পর সাব্বিরের সাথে স্বাগতিকদের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম। তৃতীয় উইকেট জুটিতে দু’জনের ব্যাটে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখে স্বাগতিকরা। যদিও ৫৩ রানে যোগ করেই বিচ্ছিন্ন হয় এ উইকেট জুটি। ব্যক্তিগত ৩০ রানে উইলিয়ামসের বলে সাব্বির স্টাম্পড হলে ভাঙ্গে এ জুটি। সাব্বিরের বিদায়ের পর এক বলের বেশি ক্রিজে থাকতে পারেননি মুশফিক।

২৬ বলে ২৬ রান করে উইলিয়ামসের হাতে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। তার বিদায়ে দলীয় ১০৭ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। এরপর ক্রিজে যোগ দেন আফিফ হোসেন ও ইয়াসির আলি। তবে ব্যাট হাতে দলের প্রয়োজনে এগিয়ে আসতে পারেননি কেউ-ই। আফিফ ৮ বলে ১০ ও ইয়াসির ১০ বলে ৬ রান করে ফিরেন সাজঘরে।

এর ফলে ১৯তম ওভারে দলীয় ১২৫ রানে ৬ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। শেষদিকে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ৭ বলে ৭ ও আরিফুল হকের ৪ বলের ৯ রানের কল্যাণে ৭ উইকেটে ১৪২ রানের পুঁজি পায় বিসিবি একাদশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ড-
বিসিবি একাদশ: ২০ ওভারে ১৪২/৭
সাইফ ২১ (১৯), নাইম ২৩ (১৩), সাব্বির ৩০ (৩১), মুশফিক ২৬ (২৬), আফিফ ১০ (৮), ইয়াসির ৬ (১০), সাইফউদ্দিন ৭* (৭), আরিফুল ৯ (৪), ইয়াসিন ২* (২)।

জিম্বাবুয়ে: ১৭.২ ওভারে ১৪৩/৩

টেলর ৫৭* (৪৪), মাসাকাদজা ৩১ (২৩), মারুমা ৪৬* (২৮); আফিফ ৪-০-১৯-৩।
ফলাফল: জিম্বাবুয়ে ৩ উইকেটে বিজয়ী।

প্রথমবারের মত বিডিক্রিকটাইম নিয়ে এলো অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন। বাংলাদেশ এবং সকল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বল বাই বল লাইভ স্কোর, এবং সাম্প্রতিক নিউজ সহ সবকিছু এক মুহূর্তেই পাবেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় অনলাইন পোর্টাল BDCricTime এর অ্যাপে। অ্যাপটি ডাউনলোড করতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে সার্চ করুন BDCricTime অথবা ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

আফিফের বোলিংয়ে দিশেহারা জিম্বাবুয়ে

প্রথম ইনিংসে ভালো সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ

লঙ্কানদের বিপক্ষে শান্ত’র দুর্দান্ত সেঞ্চুরি

সাইফ-আফিফে এইচপির বড় সংগ্রহ

প্রেমের প্রস্তাবকে আফিফের ‘না’!