প্লেয়ার্স ড্রাফটে চমক ব্রিটিশ বাংলাদেশি তরুণ রবিনের নাম

বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের ড্রাফটে থাকা ‘রবিন জেমস দাস’ নামটি অনেকের কাছেই হয়তো অপরিচিত। বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত এ ব্রিটিশ ক্রিকেটারের বয়স মাত্র ১৮। পুষেন লাল-সবুজের জার্সিতে খেলার স্বপ্ন।

প্লেয়ার্স ড্রাফটে চমক ব্রিটিশ বাংলাদেশি তরুণ রবিনের নাম

বাবা মৃদুল কান্তি দাসের জন্ম সুনামগঞ্জে। এরপর তিনি পাড়ি জমান লন্ডনে।  ২০০২ সালে  রবিন জন্মগ্রহণ করেছেন ইংল্যান্ডের লিটনস্টোনে। পড়াশোনা করেছেন সেখানকার ব্রেন্টউড স্কুলে।  ওয়ানস্টেড ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে ক্লাব ক্রিকেট খেলেন তিনি। এছাড়া যোগ দিয়েছেন এসেক্স ক্রিকেট একাডেমিতে। এসেক্সের অনূর্ধ্ব-৯ দল থেকেই ক্রিকেট খেলে যাচ্ছেন তিনি।

Advertisment

এ বছর এসেক্সের অনূর্ধ্ব-১৮ দলের হয়ে ও এসেক্সের দ্বিতীয় দলের হয়ে খেলছেন তিনি। অনূর্ধ্ব-১৮ খেলেছেন দুইটি ম্যাচ। একটি ম্যাচে করেছেন ৬৪ রান।

দারুণ পারফর্ম করে এসেক্সের মূল টি-২০ দলেও জায়গা করে নিয়েছেন রবিন।  এবারের ভাইটালিটি টি-২০ ব্লাস্টে সাসেক্স শার্কসের বিপক্ষে টি-২০ অভিষেক ঘটে। অভিষেক ম্যাচে সাত নম্বরে নেমে ৮ বলে ৭ রান করে আউট হয়ে যান তিনি।

প্লেয়ার্স ড্রাফটে চমক ব্রিটিশ বাংলাদেশি তরুণ রবিনের নাম
ছবি : এসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের ফেইসবুক পাতা।

২০১৯ সালটা দুর্দান্ত কাটিয়েছেন ডানহাতি ব্য্যাটসম্যান রবিন। এসেক্স অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ২০১৯ সালে খেলেন ১০ টি ম্যাচ। ১৩ ইনিংসে ৫৭.৬৪ গড়ে তিনি রান করেন ৬৩৪। হাঁকান দুইটি শতক ও দুইটি অর্ধশতক। একটি শতককে তিনি পরিণত করেন দ্বিশতকে।  ২০১৯ সালের জুলাইয়ে কেন্টের বয়সভিত্তিক দলের বিপক্ষে দ্বিশতক  হাঁকানোর পর আলোচনায় এসেছিলেন তিনি। তখনই জানিয়েছিলেন বাংলাদেশের হয়ে খেলার ইচ্ছা। ২০১৯ সালে এসেক্সের ‘অ্যাকাডেমি প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার’ও নির্বাচিত হন রবিন। জিতে নেন ‘অ্যামেচার ইয়ং ক্রিকেটার অব দ্য ইয়ার’ পুরস্কারও।

২০১৮ সালেও দারুণ ছন্দে ছিলেন তিনি। ব্যাটিং গড় ছিল ৬৩.৮৬।  ঐ বছর এসেক্সের তরুণ ক্রিকেটারদের একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের নক আউট ম্যাচে ওয়ানস্টেড ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে ব্রেন্টউডের বিপক্ষে ২০০ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। ম্যাচটিতে  শতরান থেকে দ্বিশতকে পৌঁছাতে মাত্র ৮ ওভার নিয়েছিলেন রবিন।

দ্রুতগতিতে রান তোলার সক্ষমতা রয়েছে রবিন দাসের। অ্যাকাডেমির পরিচালক ব্যারি হ্যামও মনে করেন সাদা বলের ক্রিকেটের দিকে ঝোঁক রয়েছে রবিনের।

রবিনের খেলার ব্যাপারে তিনি বলেন, “সে লাল বল ও সাদা বলে দারুণ ফর্ম দেখিয়েছে যদিও সে সাদা বলের ক্রিকেটের দিকে হালকা ঝুঁকে আছে। সে একজন শক্তিশালী ছেলে যে বলকে দারুণভাবে হিট করতে পারে। সে খুবই সজাগ থাকে যেন সে ম্যাচের বিভিন্ন পরিস্থিতিতে ভালো করতে পারে।”

ইংল্যান্ডের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সঙ্গেও অনুশীলন করেছেন রবিন। এ বছর সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ড তাদের সম্ভাবনাময় তরুণদের নিয়ে আয়োজন করে তিন দিনের লাল বলের ম্যাচ এবং দুইটি সাদা বলের ম্যাচ। দুই ফরম্যাটের স্কোয়াডেই জায়গা পেয়ে ছিলেন তিনি।

রবিন দাসের বড় ভাই জোনাথান দাসও একজন ক্রিকেটার। বর্তমানে ২৭ বছর বয়সী জোনাথান দাস এসেক্সের বয়সভিত্তিক দল, ও এসেক্সের দ্বিতীয় দলের হয়ে খেলেছেন। তিনি উইকেটরক্ষক এবং ডানহাতি ব্যাটসম্যান। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি এবং মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব ইউনিভার্সিটির হয়েও খেলেছেন জোনাথান।

আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠিত হবে বৃহস্পতিবার। প্লেয়ার্স ড্রাফটের জন্য চার ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে ১৫৭ জন ক্রিকেটারকে। রবিন দাস রয়েছেন ‘ডি’ ক্যাটাগরিতে। তানজীদ হাসান তামিম, পারভেজ হোসেন ইমন, আকবর আলি সহ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও রয়েছেন এ ক্যাটাগরিতে।  এ ক্যাটাগরির ক্রিকেটারদের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে চার লক্ষ টাকা।

টুর্নামেন্টে অংশ নিবে পাঁচটি দল। প্রত্যেক দল স্কোয়াডে সর্বোচ্চ ১৬ জন ক্রিকেটার রাখতে পারবে।


বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।