Score

ফাইনালেও সেরাটা দিবে ক্রিকেটাররা বিশ্বাস মাশরাফির

অলিখিত সেমিফাইনালে পাকিস্তানকে ৩৭ রানে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে বাংলাদেশ দল। এইদিনে সব বিভাগেই নিজের সেরাটা দিয়েছে ক্রিকেটাররা। তবে এই ভীতটা শুরু হয়েছিলো মুশফিক-মিঠুনের অসাধারণ ব্যাটিংয়ের মাধ্যমেই। ম্যাচ শেষে এই দুই ক্রিকেটারকে কৃতিত্ব দিতে ভুলেননি মাশরাফি। সেই সাথে ফাইনালে জমজমাট লড়াইয়ের আশা অধিনায়কের।

ফাইনালে কঠিন লড়াইয়ের আশা মাশরাফির

আবুধাবিতে বাংলাদেশ বনাম পাকিস্তান ম্যাচটি ছিল অলিখিত সেমিফাইনাল। প্রথম দুই ম্যাচ জিতেই ফাইনাল নিশ্চিত করেছিলো ভারত। তাদের প্রতিপক্ষ কে হবে সে লড়াইয়ে নেমেছিল দুই দল। তবে শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানকে ৩৭ রানে পরাজিত করেছে মুশফিক-মাশরাফিরা। ব্যাটিংয়ে মুশফিক-মিঠুনের দায়িত্বশীল ব্যাটিং, ফিল্ডিংয়ে প্রাণপণ দিয়ে দেওয়া এবং বোলিংয়ে, বোলারদের সেরাটা। সবকিছু মিলিয়ে তিন বিভাগেই অসাধারণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছে বাংলাদেশ।

ব্যাটিং লাইনআপে অভিজ্ঞ তামিম ইকবাল না থাকাতে দায়িত্ব কাঁধে এসেছে মুশফিক, মিঠুন, মাহমুদউল্লাহর উপর। তারা বেশ ভালোভাবেই সামলেছেন নিজেদের দায়িত্ব। তাই পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে মুশফিক-মিঠুনকে জয়ের কৃতিত্ব দিতে ভুলেননি মাশরাফি।

Also Read - ঢাকায় ফিরলেন সাকিব

“সাধারণত বোলিংটা আমার মাধ্যমেই শুরু করি কিন্তু আজকে এটাতে একটু পরিবর্তন এনেছি। মেহেদী হাসান মিরাজ ও মুস্তাফিজকে দিয়ে করিয়েছি। বোলাররা তাদের নিজেদের কাজটা ঠিকঠাক করতে পেরেছে। মুশি (মুশফিক) তো অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। সাথে মিঠুনও ভালো ব্যাটিং করেছে। দিনশেষে বোলারদেরও কৃতিত্ব দিতে হয়। ফিল্ডিং বিভাগেও সবাই নিজেদের সেরাটা দিয়েছে। ঠিক মনে নেই কবে আমরা এমন ফিল্ডিং করেছিলাম। আশা করছি এইটা বজায় থাকবে”

আফগানিস্তানের বিপক্ষে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গিয়েছিলেন শোয়েব মালিক। দারুণ ইনিংস খেলেছিলেন ভারতের সাথেও। এমনকি ভয়ংকর হয়ে উঠছিলেন বাংলাদেশের বিপক্ষেও। তবে ২১তম ওভারে অবিশ্বাস্য এক ক্যাচ ধরে মালিকের অবিশ্বাস্য এক ক্যাচ লুফে নেন মাশরাফি। আর তাতেই ম্যাচের মোড় ঘুরে যায়। ঐ ক্যাচ সম্পর্কে মাশরাফি বলেন,

“আমি ভাগ্যবান যে ঐ ক্যাচটা ফেলে দেইনি। মালিক পুরো টুর্নামেন্টেই দারুণ ফর্মে ছিল। ঐ মুহূর্তে আউট না হতো তাহলে হয়ত ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিত ও। আমার মনে হয় আমাদের ব্যাটিং নিয়ে আরও কাজ করা উচিৎ।”

 

শোয়েব মালিকের দুর্দান্ত ক্যাচ নেওয়ার পর মাশরাফি মুর্তজার উদযাপন।

শোয়েব মালিকের দুর্দান্ত ক্যাচ নেওয়ার পর মাশরাফি মুর্তজার উদযাপন। ছবি: এএফপি।

 

ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ শক্তিশালী ভারত। আগের আসরেও ভারতের কাছে ফাইনালে হেরে এশিয়া কাপ জয়ের স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণতে হয়েছিলো। এবারও সুপার ফোরে ভারতের কাছে পাত্তা পায়নি বাংলাদেশ। ফাইনালে কঠিন লড়াইয়ের আশা করছেন মাশরাফি।

“আমরা সবাই জানি ভারত অনেক শক্তিশালী দল এবং এক নাম্বার দল। তামিম এবং সাকিবকে মিস করবো কিন্তু ছেলেরা নিজেদের সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছে এবং আশা করছি সেটি ফাইনালেও বজায় রাখবে।”

আরও পড়ুনঃ ঢাকায় ফিরলেন সাকিব

Related Articles

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

এই মিরাজ অনেক আত্মবিশ্বাসী

মিঠুনের ‘মূল চরিত্রে’ আসার তাড়না

‘আঙুলটা আর কখনো পুরোপুরি ঠিক হবে না’

এক নয় মাশরাফির তিন ইনজুরি