Scores

ফার্গুসনের দুর্দান্ত বোলিংয়ে সুপার ওভারে কলকাতার জয়

আইপিএলের ১৩তম প্রথমবারের মত মাঠে নেমেই বাজিমাত করেছেন কিউই ক্রিকেটার লকি ফার্গুসন। তার বোলিং তোপে কলকাতা নাইট রাইডার্স পেয়েছে পঞ্চম জয়ের দেখা। অন্যদিকে – রানের পরাজয়ে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ বন্দী রইল পরাজয়ের বৃত্তেই।

ফার্গুসনের বোলিং তোপে হারের বৃত্তে হায়দরাবাদ

আবুধাবিতে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬৩ রান সংগ্রহ করে কলকাতা নাইট রাইডার্স। শুবমান গিলের ৩৭ বলে ৩৬ ও রাহুল ত্রিপাথির ১৬ বলে ২৩ রানের ইনিংসে ভর করে ভালো শুরু পায় কলকাতা। তাদের বিদায়ের পর নিতিশ রানার ২০ বলে ২৯ রানের ইনিংস দলকে লড়াকু পুঁজির ভিত গড়ে দেয়।

Also Read - কর্পোরেট লিগের জন্য প্রস্তুতির ছক সাকিবের





আন্দ্রে রাসেল ১১ বলে মাত্র ৯ রান করে সাজঘরে ফিরলেও অধিনায়ক ইয়ন মরগান ও সদ্য সাবেক অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক দলের হাল ধরেন। মরগান ২৩ বলে ৩৪ রান করে বিদায় নিলেও ১৪ বলে ২৯ রান করে অপরাজিত থাকেন কার্তিক। হায়দরাবাদের পক্ষে থাঙ্গারাসু নটরজন শিকার করেন দুটি উইকেট।

ফার্গুসনের বোলিং তোপে হারের বৃত্তে হায়দরাবাদ

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দুই ওপেনার জনি বেয়ারস্টো ও কেন উইলিয়ামসনের ব্যাটে ভর করে দারুণ সূচনা পায় হায়দরাবাদ। পাওয়ারপ্লেতে দলটি জড়ো করে ৫৮ রান। কিন্তু ঠিক পরের বলেই সাজঘরে ফেরেন উইলিয়ামসন, ১৯ বলে ২৯ রান করে। ৪ রানে প্রিয়ম গার্গের বিদায়ের পর বেয়ারস্টোকেও ধরতে হয় সাজঘরের পথ। তার আগে ২৭ বলের মোকাবেলায় ৩৬ রান করেন ইংলিশ ওপেনার।





অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার বিপর্যয় প্রতিরোধের চেষ্টা করেন। যদিও মানিশ পাণ্ডে ও বিজয় শঙ্করের উইকেট হারিয়ে আবারো চাপে পড়ে যায় দল, শ্লথ হয়ে যায় রানের গতি। এরপর ওয়ার্নারের সঙ্গে জুটি বাঁধেন আব্দুল সামাদ। শেষ দুই ওভারে প্রয়োজন ছিল ৩০ রান। শিভাম মাভির করা ১৯ তম ওভারে ১২ রান হয়। শেষ বলে ছক্কা মারতে গিয়ে সীমানায় ধরা পড়েন সামাদ। ফার্গুসন আর শুবমান গিল মিলে ক্যাচ ধরেন।

শেষ ওভারে বোলিংয়ে আনা হয় আন্দ্রে রাসেলকে। আনফিট রাসেল প্রথম বলেই করেন নো-বল। ফ্রি হিটে এক রান নেন নতুন ব্যাটসম্যান রশিদ খান। এরপর ওয়ার্নার টানা তিন চার মেরে ম্যাচ নিয়ে আসেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের নাগালে। পঞ্চম বলে দুই রান নিলে শেষ বলে জয়ের জন্য দরকার হয় আরো দুই রান। কিন্তু ঐ বলে এক রান নিতে সক্ষম হন ওয়ার্নার-রশিদ।

সুপার ওভারে ম্যাচ গড়ালে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন ওয়ার্নার আর বেয়ারস্টো। ফার্গুসন আক্রমণে এসে প্রথম বলেই বোল্ড করেন ওয়ার্নারকে। এরপর তৃতীয় বলে আব্দুল সামাদকে বোল্ড করলে ২ রানের বেশি করতে পারেনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

ওয়ার্নার বল তুলে দেন রশিদ খানের হাতে। তিন রানের সহজ লক্ষ্য চার বলে পৌঁছে যায় ত্রিপাঠী-কার্তিক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

টস : সানরাইজার্স হায়দরাবাদ

কলকাতা নাইট রাইডার্স : ১৬৩/৫ (২০ ওভার)
গিল ৩৬, মরগান ৩৪, কার্তিক ২৯, রানা ২৯
নটরজন ৪০/২, শঙ্কর ২০/১

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ : ১৬৩/৬ (২০ ওভার)
ওয়ার্নার ৪৭*, বেয়ারস্টো ৩৬, উইলিয়ামসন ২৯
ফার্গুসন ১৫/৩, কামিন্স ২৮/১

ফল : কলকাতা নাইট রাইডার্স সুপার ওভারে জয়ী।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

Related Articles

১২৬ রান করেও জিতল পাঞ্জাব

বরুণের আসর-সেরা বোলিংয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ল দিল্লির

যাই স্পর্শ করি সোনা হয়ে যায় : ধাওয়ান

বিদায় মেনে নিয়েছেন ধোনি

চেন্নাইয়ের প্রতিরোধহীন পরাজয়ে আবারো শীর্ষে মুম্বাই