SCORE

সর্বশেষ

ফিজবিহীন মুম্বাইকে হারাল কোহলির বেঙ্গালোর

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে আরও একটি পরাজয় বরণ করে নিতে হয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে। আসরে নিজেদের অষ্টম ম্যাচে মুম্বাই হেরেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালোরের কাছে, ১৪ রানের ব্যবধানে। এই ম্যাচে মুম্বাই একাদশে ছিলেন না বাংলাদেশি ক্রিকেটার মুস্তাফিজুর রহমান।

ফিজবিহীন মুম্বাইকে হারাল কোহলির বেঙ্গালোর

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৬৭ রান সংগ্রহ করেছিল বেঙ্গালোর। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৫ রান (৩১ বল) এসেছিল মানান ভোহরার ব্যাট থেকে। এছাড়া ব্রেন্ডন ম্যাককালাম ৩৭ ও অধিনায়ক বিরাট কোহলি ৩২ রান করেন। মুম্বাইয়ের পক্ষে হার্দিক পাণ্ড্য শিকার করেন তিনটি উইকেট।

Also Read - এখনও পুরোপুরি সেরে ওঠেননি মুশফিক

জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই ওপেনার ঈশান কিষাণের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় মুম্বাই। দ্রুত আরেক ওপেনার সূর্যকুমার যাদবকে হারালে ঘনীভূত হয় বিপদ। জেপি ডুমিনি ২৩ রানের ধীরগতির ইনিংস খেলে উইকেট পতন রোধ করলেও তাতে দূরে চলে যায় জয়। শেষদিকে হার্দিক পাণ্ড্যর ৫০ ও ক্রুনাল পাণ্ড্যর ২৩ রানের ইনিংস দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যেতে পারেনি। বেঙ্গালোরের পক্ষে টিম সাউদি, উমেশ যাদব ও মোহাম্মদ সিরাজ দুটি করে উইকেট শিকার করেন। নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারানো মুম্বাইয়ের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৫৩।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালোর ১৬৭/৭ (২০ ওভার); ভোহরা ৪৫, ম্যাককালাম ৩৭, কোহলি ৩২; হার্দিক ২৮/৩

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১৫৩/৭ (২০ ওভার); হার্দিক ৫০, ক্রুনাল ২৩; সাউদি ২৫/২, সিরাজ ২৮/২, উমেশ ২৯/২

ফল: রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালোর ১৪ রানে জয়ী।

আরও পড়ুনঃ ‘সাবেক অধিনায়ক’ হিসেবেই মুশফিকের ‘সেরা অর্জনে’র রোমাঞ্চ

[২০১১ সালে একসাথে তিন ফরম্যাটের অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পেয়েছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। অবশ্য দলের ব্যর্থতার কারণে ২০১৪ সালেই রঙিন পোশাকে তার অধিনায়কত্বের অবসান ঘটে।টেস্টে অবশ্য মুশফিকের উপরই আস্থা রেখেছিল বোর্ড। তবে গত ১০ ডিসেম্বর সেই…বিস্তারিত]

Related Articles

ভারতছাড়া হচ্ছে আইপিএল!

বিগ ব্যাশকেও বিদায় বললেন জনসন

দুই বছর বিদেশি লিগে খেলবেন না মুস্তাফিজ

১০০ বলের ফরম্যাটের প্রস্তুতি শুরু করেছে ইংল্যান্ড

আইপিএল খেলে যাবেন ডি ভিলিয়ার্স