বন্ধ ঘোষণার আগেই আইপিএল ছাড়তে চেয়েছিলেন রোহিতরা

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে করোনার সংক্রমণ যেন বিনা মেঘে বজ্রপাতের মত ঘটনা ছিল ক্রিকেটারদের কাছে। বায়োসেফটি বাবলে করোনা ছড়িয়ে পড়ার কথা জানতে পেরে আতঙ্কে বলয় ছেড়ে চলে যেতে চেয়েছিলেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের সিনিয়র ক্রিকেটাররা।

মুম্বাইয়ের হয়ে মাঠে নেমে বিতর্কিত রোহিত
আইপিএলে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রোহিতের দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। ফাইল ছবি

মুম্বাইয়ের ভারতীয় ক্রিকেটারদের নিয়ে এমন চমকপ্রদ তথ্য প্রকাশ করেছেন দলটির ফিল্ডিং কোচ জেমস প্যামেন্ট। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বলয়ে করোনা পজিটিভ কেউ ছিলেন না। কিন্তু অন্য যেসব দলে করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছিলেন, লিগ পর্বের খেলায় তাদের সংস্পর্শে এসেছিল মুম্বাই। তাছাড়া ভারতের ডাবল মিউট্যান্ট ভাইরাস অতি সংক্রামক বলে শঙ্কা তো ছিলই।

Advertisment

সেই শঙ্কায় নাকি দলের সিনিয়র ভারতীয় ক্রিকেটাররা বলয়ে ছেড়ে বাড়ি চলে যেতে চাইছিলেন! পরে অবশ্য আইপিএল স্থগিত ঘোষণা করলে বাড়িতেই ফিরে যেতে হয় সবাইকে।

নিউজিল্যান্ডে ফিরে সাংবাদিকদের প্যামেন্ট বলেন, ‘আইপিএলের মাঝে করোনা হানা দিলেও আমরা (মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স) জৈব বলয়ে সুরক্ষিত ছিলাম। তবে কয়েকজন সিনিয়র ভারতীয় ক্রিকেটার একেবারেই স্বস্তি বোধ করেনি। ওরা তো প্রচন্ড ভয় পেয়ে গিয়েছিল। একাধিক ভারতীয় ক্রিকেটার বলয় থেকে বেরিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে চেয়েছিল।’

উল্টো চিত্র ছিল বিদেশিদের ক্ষেত্রে। দেশে ফেরার ঝামেলার কথা ভেবে প্যামেন্টরা বলয়কেই সুরক্ষিত ভাবছিলেন। তিনি জানান, ‘আমরা দেশে ফেরার ব্যাপারে সংকোচ করছিলাম। কারণ আমাদের মনে হয়েছিল সেই অবস্থায় বলয়ের মধ্যে থাকলেই বরং সুরক্ষিত থাকব।’

ভারতীয় ক্রিকেটারদের অনেকে ছিলেন পরিবার নিয়ে। মূলত পরিবারের সদস্যের কারণেই তারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এবং আইপিএল বন্ধ ঘোষণার আগেই বলয় ছেড়ে চলে যেতে চেয়েছিলেন।

প্যামেন্ট জানান, ‘আমরা ওদের অনেক বোঝানো সত্ত্বেও কাজ হচ্ছিল না। আসলে একাধিক ভারতীয় ক্রিকেটারের পরিবার আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। কেউ আর বলয়ে থাকতে রাজি হচ্ছিল না। আইপিএল বন্ধ করে দেওয়ার সেটাও বড় এক কারণ।’