বল হাতে খরুচে সাকিব, কলকাতার সামনে বড় লক্ষ্য

0
572

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) চতুর্দশ আসরের দশম ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ২০৫ রানের বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের তাণ্ডবের দিনে বল হাতে খরুচে ছিলেন কলকাতার বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

বল হাতে খরুচে সাকিব, কলকাতার বড় লক্ষ্য
ম্যাক্সওয়েলের তাণ্ডবের সামনে অসহায় ছিলেন কলকাতার বোলাররা। 

চেন্নাইয়ে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২০৪ রান জড়ো করে ব্যাঙ্গালোর। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৮ রান আসে ম্যাক্সওয়েলের ব্যাট থেকে। দারুণ ছন্দে থাকা এই ব্যাটসম্যানের তোপের মুখে পড়তে হয় সাকিবকেও।

Advertisment

মাত্র ৪৯ বলের মোকাবেলায় ম্যাক্সওয়েল হাঁকান ৯টি চার ও ৩টি ছক্কা। ম্যাক্সওয়েলের বিদায়ের পর মারকুটে ব্যাটিং করেছেন এবি ডি ভিলিয়ার্সও। ২৭ বলে অর্ধশতক হাঁকিয়ে মাত্র ৩৪ বলে ৭৬ রান করে অপরাজিত থাকেন, তিনিও হাঁকান ৯টি চার ও ৩টি ছক্কা।

যদিও ম্লান ছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ৬ বলে ৫ রান করে বরুণ চক্রবর্তীর শিকারে পরিণত হন তিনি। ৯ রানে ২ উইকেট হারিয়ে শুরুতে চাপেও পড়েছিল ব্যাঙ্গালোর, যা দূর করে ম্যাক্সওয়েলের ঝড়ো ব্যাটিং।

বল হাতে খরুচে সাকিব, কলকাতার বড় লক্ষ্য
ম্যাক্সওয়েলের বিদায়ের পর চড়াও হন ডি ভিলিয়ার্স।

সাকিব এদিন তার প্রথম ওভার করেন ইনিংসের চতুর্থ ওভারে। প্রথম বলেই তাকে চার হাঁকান ম্যাক্সওয়েল, যা ছিল ম্যাক্সওয়েলের প্রথম বাউন্ডারি। ঐ ওভারে ৭ রান বিলি করেন সাকিব। ষষ্ঠ ওভারে তার ওপর চড়াও হন ম্যাক্সওয়েল। হাঁকান একটি করে চার-ছক্কা। একটি চার হাঁকান দেবদূত পাড়িকালও। ঐ ওভারে সাকিব বিলি করেন ১৭ রান। এরপর আর বল হাতে নিতে দেখা যায়নি তাকে।

শুধু সাকিব নন, বল হাতে খরুচে ছিলেন কলকাতার সবাই। ২ উইকেট শিকার করা বরুণও খরচ করেন ৩৯ রান। সাকিবের সমান ২ ওভার বল করে আন্দ্রে রাসেল খরচ করেছেন ৩৮ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

টস : রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর : ২০৪/৪ (২০ ওভার)
ম্যক্সওয়েল ৭৮, ডি ভিলিয়ার্স ৭৬*, পাড়িকাল ২৫
বরুণ ৩৯/২, কৃষ্ণ ৩১/১, কামিন্স ৩৪/১

জয়ের জন্য কলকাতা নাইট রাইডার্সের প্রয়োজন ২০৫ রান।