বাংলাদেশকে ৭০ রানে হারিয়ে সিরিজ ড্র করলো শ্রীলঙ্কা

0
993

Bangladesh vs Srilanka

বৃষ্টিতে দ্বিতীয় ওয়ানডে পরিত্যক্ত হওয়ার পর বেশ ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মাশরাফি। হয়তো ম্যাচটি হলে সেটি জেতার মত আত্মবিশ্বাসও ছিল তাদের। সেক্ষেত্রে তৃতীয় ম্যাচটি হারলেও ঐতিহাসিক এক সিরিজ জয় হতো বাংলাদেশের জন্য। কিন্তু ভাগ্য বুঝি সহায় হলো না বাংলাদেশের। সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে ৭০ রানে হারিয়ে সিরিজ ড্র করলো উপুল থারাঙ্গার দল।

Advertisment

টস ভাগ্যে অবশ্য মাশরাফিই জিতেছিলেন। কিন্তু তাঁর বোলিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত কতটা যৌক্তিক ছিল সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাবে হয়তো। শুরুতেই ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশি বোলারদের উপর তাণ্ডব চালাতে থাকেন দুই লংকান ওপেনার গুনাথিলাকা এবং উপুল থারাঙ্গা। দুজনের ৭৬ রানের জুটি ভাঙ্গেন মিরাজ। গুনাথিলাকা আউট হন ৩৪ রান করে। সঙ্গীকে হারিয়ে উপুল থারাঙ্গাও ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ৩৫ রান করে তিনি তাসকিনের শিকার হন।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে চান্দিলাম এবং কুশল মেন্ডিস ভালো কিছুর ইংগিত দিলেও চান্দিমালের ছেলেমানুষি রানআউটে চাপে পড়ে শ্রীলঙ্কা। ১২ রান করা সিরিবর্ধনকে রানআউট করেন শুভাগত হোম।   ১৬১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ধুকতে থাকা শ্রীলঙ্কাকে একাই টেনে তোলেন থিসারা পেরেরা। ৪০ বলে ঝড়ো ৫২ রানের ইনিংস খেলে শুধু বিপর্যয়ই সামাল দেননি, দলের রান ২৮০ করতে সাহায্য করেন এই বা হাতি হার্ড হিডার ব্যাটসম্যান। ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৮০ রান করে শ্রীলঙ্কা। বল হাতে ৬৫ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন মাশরাফি।

২৮১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। প্রথম ওভারেই ৪ রান করে আউট হন তামিম ইকবাল। ওয়ান ডাউনে সাব্বির নামলেও রানের খাতা খোলার আগেই তাকে বিদায় করেন কুলাসেকারা। মুশফিককে প্রথম বলেই এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফালান লাকমল। ১১ রান ৩ উইকেট হারিয়ে বড় হারের শঙ্কায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে ইনিংস মেরামতের কাজ করেন সৌম্য এবং সাকিব। চতুর্থ উইকেট জুটিতে ৭৭ রান যোগ করে দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন এই দুই বা হাতি ব্যাটসম্যান।

সৌম্যের আউটের পর পরই কার্যত শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশের ম্যাচে ফিরে আসার সম্ভাবনা। ৩৮ রান করে দিলরুয়ান পেরেরার শিকার হন সৌম্য। এক প্রান্ত আগলে রেখে নিজের ৩৪ তম হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন সাকিব। ৫৪ রান করে তিনিও ফিরে যান পেরেরার বলে। টিকতে পারেননি মাহমদউল্লাহ (৭) এবং মোসাদ্দেকও (৯)। দল যখন বড় হারের লজ্জায় পড়তে যাচ্ছে তখনই ত্রাতা হয়ে আসেন মেহেদি হাসান মিরাজ। মাশরাফি এবং তাসকিনের সঙ্গে জুটি গড়ে তুলে নেন নিজের প্রথম হাফসেঞ্চুরি। ৫১ রান করে কুলাসেকারার বলে আউট হন তিনি। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে নিজের নামের পাশে ১৫ রান লেখেন তাসকিন। ৫.৩ ওভার বাকি থাকতেই অলআউট হয় ২১০ রানে।   এর ফলে সিরিজে ১-১ এ সমতায় রইল। আট ম্যাচ পর কোন ওয়ানডে ম্যাচ জিতলো উপুল থারাঙ্গার শ্রীলঙ্কা দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বাংলাদেশঃ (তামিম ৪, সৌম্য ৩৮, সাব্বির ০, মুশফিক ০, সাকিব ৫৪, মোসাদ্দেক ৯, মাহমুদউল্লাহ ৭, মিরাজ ৫১, মাশরাফি ১৬, তাসকিন ১৪, মোস্তাফিজ ১*; কুলাসেকারা ৪/৩৭, লাকমল ২/৩৮, থিসারা ০/১৪, দিলরুয়ান ২/৪৭, গুনারাত্নে ০/১৬, প্রসন্ন ২/৩৩, সিরিবর্ধনা ০/২৩)

শ্রীলঙ্কা: ৫০ ওভারে ২৮০/৯ (গুনাথিলাকা ৩৪, থারাঙ্গা ৩৫, মেন্ডিস ৫৪, চান্দিমাল ২১, সিরিবর্ধনা ১২, গুনারত্নে ৩৪, থিসারা ৫২, প্রসন্ন ১, দিলরুয়ান ১৫, কুলাসেকারা ১*, লাকমল ২*; মাশরাফি ৩/৬৫, মুস্তাফিজ ২/৫৫, মিরাজ ১/৪৯, তাসকিন ১/৫০, মাহমুদউল্লাহ ০/৫, সাকিব ০/৪১, মোসাদ্দেক ০/১৩)

আরো পড়ুনঃ নাসির-মুমিনুলদের হারিয়ে ফাইনালে শ্রীলঙ্কা

রুশাদ রাসেল, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম.কম