‘বাংলাদেশের অভিজ্ঞতার কাছেই হেরেছি’

0
320

মিরপুরে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে বাংলাদেশের কাছে ৩৩ রানে হেরেছে সফরকারী শ্রীলঙ্কা। এই পরাজয়ের পেছনে অবশ্য দুই দলের ‘অভিজ্ঞতাকে’ বড় করে দেখছেন লঙ্কান দলের অধিনায়ক কুশল পেরেরা।

পরাজয়ের জন্য ব্যাটসম্যানদের দুষলেন লঙ্কান অধিনায়ক কুশল পেরেরা। ছবিঃ এএফপি

 

Advertisment

বাংলাদেশ সফরে আসার আগে লঙ্কান ক্রিকেট দলের জন্য সবচেয়ে বড় ধাক্কা ছিল দলে করুনারত্নে, ম্যাথুজ, চান্দিমালের মতো সিনিয়র ক্রিকেটারদের না থাকা। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় এই সফরে তারুণ্যনির্ভর দল পাঠিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) । ওই তুলনায় পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে খেলেছে বাংলাদেশ।

তামিম, মুশফিক, সাকিব, মাহমুদউল্লাহর পাশাপাশি অভিজ্ঞ হিসেবে ছিলেন মুস্তাফিজ, লিটন, মেহেদীরা। অন্তত ম্যাচ শেষে দুই দলের মধ্যে ওই অভিজ্ঞতাই বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছে। মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, তামিমের মতো যে লঙ্কানদের কেউ দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করতে পারেননি। ম্যাচ শেষে সেটিই বললেন কুশল পেরেরা।

“পরাজয়ে কখনোই ভালোলাগা কাজ করে না। তবে এখান থেকে ইতিবাচক অনেক কিছু নেওয়ার আছে বলে মনে করি। বোলাররা তাঁদের নির্দিষ্ট এরিয়া অনুযায়ী বল করতে পেরেছে। ব্যাটিংয়ের কথা বললেন, ওয়ানিন্দু (হাসারাঙ্গা) দারুণ ব্যাট করেছে। তাঁদের দলে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার রয়েছে। ওই তুলনায় আমাদের বোলারদের তেমন অভিজ্ঞতা ছিল না। তবুও ২৫৭ রানে তাঁদের (বাংলাদেশ) আটকানোকে অবশ্যই ইতিবাচক দিক বলবো।”

শ্রীলঙ্কার অনভিজ্ঞ টপ অর্ডারে সবচেয়ে বড় ভরসা ছিলেন দলপতি কুশল পেরেরা ও কুশল মেন্ডিস। তবে তাঁদের কেউই দায়িত্ব নিয়ে বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। হাসারাঙ্গা বাদে পারেনি বাকি ব্যাটসম্যানরাও। ফলে ব্যাটসম্যানদের আরও দায়িত্ব নিতে বললেন এই লঙ্কান অধিনায়ক।

হাসারাঙ্গার বিদায়েই ম্যাচ বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে আসে। ছবিঃ এএফপি

“ব্যাটিংয়ে আমাদের ব্যাটসম্যানদের আরও দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। এই ধরণের কন্ডিশনের জন্য হাসারাঙ্গাকে উপযুক্ত মনে হয়। ১০ ওভার বোলিং করার পর ব্যাটিংয়ে তাঁর ইনিংসটি বেশ ভালো ছিল। আমাদের ব্যাটসম্যানদের (টপ অর্ডার) অবশ্যই ৩০-৩৫ ওভার পর্যন্ত ব্যাটিং করতে হবে। সত্যি বলতে এমন পারফরম্যান্স হতাশাজনক।”

১৪৯ রানে লঙ্কানদের ৭ উইকেট পড়ার পর ম্যাচ অনেকটাই বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। তবে শেষদিক বাংলাদেশের বোলারদের বেশ ভালোই পরীক্ষা নিয়েছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। তাঁর এবং ইসুরু উদানার ব্যাটে একসময় জয়ের আশা জাগালেও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হন তাঁরা। এই কারণে কৃতিত্বটা বাংলাদেশের বোলারদেরই দিচ্ছেন কুশল পেরেরা।

“হাসারাঙ্গা ও উদানা যখন ব্যাটিং করছিল তখন আমাদের সামনে ম্যাচ জয়ের সুযোগ তৈরি হয়েছিল। তবে তাঁদের বোলারদের প্রশংসা করতেই হয়। পরের ম্যাচের দিকে তাকিয়ে আছি, আশা করছি আগের চেয়ে ভালোভাবে ম্যাচে ফিরব।”