Scores

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’

একটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে, তবে বাকি তিনটি ম্যাচে হেসেখেলে জয় তুলে নিয়ে অপরাজিত দল হিসেবেই আয়ারল্যান্ডে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে খেলবে বাংলাদেশ। ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ উইন্ডিজ, এই সিরিজের দুইবারের দেখায় যাদের বিপক্ষে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল পেয়েছে সহজ জয়। ক্যারিবীয়দের হারানোর ধারা অব্যাহত রেখে টাইগাররা কি পারবে আরও একটি জয় তুলে নিতে?

জাতীয় সঙ্গীতের সময় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ফাইল ছবি

Also Read - ওয়ালশকে রাহীর ‘বিশেষ ধন্যবাদ’


দুই দলের সাম্প্রতিক দ্বিপাক্ষিক লড়াইয়ের রেকর্ড আর বাংলাদেশের দুর্দান্ত ফর্ম দ্বিধাহীনভাবেই বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখছে। কিন্তু তবুও ম্যাচটি ‘ফাইনাল’ বলে আশঙ্কা থাকছেই। এটি বাংলাদেশের সপ্তম ফাইনাল। এর আগে ছয়টি টুর্নামেন্ট বা ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উঠলেও বাংলাদেশ জিততে পারেনি একটি ফাইনালও। তার চেয়েও বড় কথা, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই হারতে হয়েছে জয়ের খুব কাছাকাছি পৌঁছে।

স্বভাবতই তাই শঙ্কা জাগছে- দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বাংলাদেশের এবারো স্বপ্নভঙ্গ হয় কি না!

‘ফাইনাল’ ম্যাচ বাংলাদেশের কাছে এতটা ‘অপয়া’ হয়ে উঠেছে যে ফাইনাল জেতা এখন যেন রীতিমত ‘অসাধ্য সাধন’। সেই অসাধ্য সাধনে তামিম-মুস্তাফিজরা সফল হবেন কি না সেই উত্তর ১৭ মে’র আগে জানার সুযোগ নেই। তার চেয়ে বরং দেখে নেওয়া যাক ইতিপূর্বে বাংলাদেশের ছয়টি ফাইনাল, যেখানে প্রতিপক্ষ হিসেবে প্রতিবারই ছিল টেস্ট খেলুড়ে দল।

  • ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০০৯

স্বাগতিকদের ভূমিকায় থাকা বাংলাদেশ এই সিরিজে আতিথেয়তা করেছিল শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে। সেবারই প্রথম কোনো ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল খেলেছিল বাংলাদেশ। ৬ রানে লঙ্কানদের ৫ উইকেটের পতন ঘটিয়ে প্রথম ফাইনালেই বাজিমাত করার সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ম্যাচের শেষদিকে রুবেল হোসেনের বোলিংয়ে মুত্তিয়া মুরালিধরনের তাণ্ডব শ্রীলঙ্কাকে ২ উইকেটে জিতিয়ে দেয় মোহাম্মদ আশরাফুলের নেতৃত্বাধীন টাইগারদের বিপক্ষে। বাংলাদেশের ফাইনাল-দুঃস্বপ্নের সে-ই শুরু।

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
১৬ বলে ৩৩ রানের অবিশ্বাস্য ঝড়ো ইনিংস খেলে সেদিন এভাবেই উল্লাস করছিলেন বাংলাদেশকে প্রথম ‘ফাইনাল’ হারের স্বাদ দেওয়া মুত্তিয়া মুরালিধরন। ফাইল ছবি
  • এশিয়া কাপ, ২০১২

এশিয়া কাপের সেই আসরে বাংলাদেশ ছিল স্বাগতিকের ভূমিকায়। ভারত ও শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বাংলাদেশ জায়গা করে নেয় ফাইনালে। পাকিস্তানের ২৩৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জয়ের খুব কাছেই পৌঁছে গিয়েছিল মুশফিকুর রহিমের দল। তবে শেষপর্যন্ত ২ রানের পরাজয় বরণ করে নিতে হয়। খুব কাছে গিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের সুযোগ হারানোর বেদনায় সেদিন অঝোর ধারায় কেঁদেছিলেন ক্রিকেটাররা, যা এখনো দেশের ক্রিকেটের ইতিহাসের অন্যতম বেদনাদায়ক ঘটনা।

 

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
২০১২ এশিয়া কাপের ফাইনালে হারার পর এভাবেই কেঁদেছিলেন সাকিব-মুশফিক-নাসিররা। ফাইল ছবি
  • এশিয়া কাপ, ২০১৬

সেবারও এশিয়া কাপের আয়োজক ছিল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তানের মত দলকে হারিয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল নিশ্চিত করে ফাইনাল। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে অবশ্য বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ ভারতের কাছে পাত্তা পায়নি। ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে ঘরের মাঠে হজম করতে হয় ৮ উইকেটের পরাজয়।

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
শিখর ধাওয়ানের ব্যাটে ভর করে বাংলাদেশকে হেসেখেলে হারিয়েছিল ভারত। ফাইল ছবি
  • ত্রিদেশীয় সিরিজ, ২০১৮ 

এ যেন ২০১২ ত্রিদেশীয় সিরিজের পুনরাবৃত্তি। বাংলাদেশ ফাইনালে উঠে শ্রীলঙ্কাকে একটি ম্যাচে হারিয়ে, লঙ্কানরা আবার একটি ম্যাচে হেরে বসে জিম্বাবুয়ের কাছে। ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে মাত্র ২২১ রানে আটকে প্রথম ফাইনাল জয়ের মোক্ষম সুযোগও এসেছিল সামনে। কিন্তু ৭৯ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গিয়ে আরও একবার ব্যর্থতার ঢেউয়ে পর্যবসিত হয় টাইগাররা।

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়ে নতুন বছর শুরু করতে মরিয়া বাংলাদেশ সেবারও মুখ থুবড়ে পড়ে ফাইনালে। ফাইল ছবি
  • নিদাহাস ট্রফি, ২০১৮

বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম স্মরণীয় টুর্নামেন্ট বা ত্রিদেশীয় সিরিজ এটি। স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে দুইবার হারিয়ে বাংলাদেশ নিশ্চিত করে ফাইনাল। দু’টি ম্যাচই উত্তাপ ছড়িয়েছিল মাঠ থেকে শুরু করে গ্যালারি কিংবা অনলাইন জগৎ পর্যন্ত। ফাইনালে বাংলাদেশের সামনে ছিল ভারত, যে দলে ছিলেন না বিরাট কোহল ও মহেন্দ্র সিং ধোনির মত সিনিয়র খেলোয়াড়রা। রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দল টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের সেই ফাইনালে বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেওয়া ১৬৭ রান তাড়া করতে নামে। সৌম্য সরকারের করা শেষ ওভারে প্রায় জিতেই গিয়েছিল টাইগাররা। তবে শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে কাঙ্ক্ষিত ৫ রানের দেখা পেয়ে যান দীনেশ কার্তিক। ফলে বাংলাদেশ হারে ৪ উইকেটের ব্যবধানে।

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
আলোচিত নিদাহাস ট্রফিতে হারার পর এভাবেই ‘বাকরুদ্ধ’ হয়ে পড়েছিলেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। ফাইল ছবি
  • এশিয়া কাপ, ২০১৮

একই বছর আরেক ফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে আবারো ভারতকেই পায় বাংলাদেশ। মাত্র ২২২ রানের পূঁজি নিয়েও ওয়ানডে ফরম্যাটের ফাইনালে ভারতকে কোণঠাসা করে ফেলেছিল বাংলাদেশের বোলিং লাইনআপ। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের করা ইনিংসের শেষ বলে ভারত তুলে নেয় ৩ উইকেটের জয়।

বাংলাদেশের যত ‘ফাইনাল’
এক বছরে বাংলাদেশকে দুটি ফাইনালে হারের স্বাদ দেয় ভারত। ফাইল ছবি

‘৭’ সংখ্যাকে বলা হয় সৌভাগ্যের নম্বর। বাংলাদেশ দাঁড়িয়ে আছে নিজেদের সপ্তম ফাইনালের সামনে। অতীত ইতিহাসে স্বস্তির সংবাদ না থাকায় ‘ফাইনাল’ থেকে বাংলাদেশের প্রেরণা খুঁজে নেওয়ার সুযোগ নেই। তবে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে টাইগারদের যেমন পারফরম্যান্স, তাতে তো উইন্ডিজের চেয়ে বাংলাদেশই বেশি ফেভারিট। মাশরাফি-সাকিবরা কি পারবেন ফাইনালের ফাঁড়া কাটাতে? সপ্তম ফাইনাল সত্যিকার অর্থেই ‘লাকি সেভেন’ হয়ে উঠবে তো!

 

প্রথমবারের মত বিডিক্রিকটাইম নিয়ে এলো অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন। বাংলাদেশ এবং সকল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বল বাই বল লাইভ স্কোর, এবং সাম্প্রতিক নিউজ সহ সবকিছু এক মুহূর্তেই পাবেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় অনলাইন পোর্টাল BDCricTime এর অ্যাপে। অ্যাপটি ডাউনলোড করতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে সার্চ করুন BDCricTime অথবা ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন


Related Articles

বাংলাদেশের বিপক্ষেই ফিরতে পারেন স্টয়নিস

অজিদের দুশ্চিন্তার নাম ‘সাকিব’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বনিম্ন রানে অলআউটের নতুন রেকর্ড

“ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপ দিয়ে দাও!”

রশিদের ম্লান বোলিংয়ের দিনে আফগানিস্তানের বিশাল পরাজয়