Scores

বাবর-হাফিজে সিরিজ জয় পাকিস্তানের

বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৯ উইকেটে হারিয়ে তিন ম্যাচ সিরিজের এক ম্যাচ হাতে রেখেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিজেদের করে নিল পাকিস্তান।

প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতেও পাকিস্তানকে বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দিতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ১৩৭ রানের যে মামুলি লক্ষ্য দিয়েছে সেটি হেসেখেলেই তাড়া করেছে পাকিস্তান। বাংলাদেশের দেওয়া লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুটা তেমন ভালো হয়নি পাকিস্তানের। দলীয় ৬ রানেই প্রথম উইকেট হারায় পাকিস্তান। বরাবরের মতো বাংলাদেশকে প্রথমে উইকেট এনে দেন শফিউল।

Also Read - লাইভ রিপোর্ট: হেসেখেলে সিরিজ জয় পাকিস্তানের


অবশ্য তারপর থেকে যেন পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি পাকিস্তানকে। অধিনায়ক বাবর আজম ও অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজের দায়িত্বশীল ব্যাটিং যেন বাংলাদেশকে পাত্তাই দেয়নি পুরো ম্যাচে। বাংলাদেশের বোলারদের যেন হেসেখেলেই খেলল পাকিস্তানের এই দুই ব্যাটসম্যান। শুরুতে ফিফটি হাঁকান অভিজ্ঞ হাফিজ। তারপর ফিফটি হাঁকান দলের অধিনায়ক বাবর আজম।

ম্যাচ ততক্ষণে হাত থেকে ফসকে গেলেও উইকেটের পেছনে সহজ ক্যাচ মিস করেন লিটন। শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেট হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান। ৬৭ করে অপরাজিত থাকেন হাফিজ এবং ৬৬ করে অপরাজিত থাকেন বাবর।

এর আগে প্রথম ম্যাচের মতো টস দ্বিতীয় ম্যাচেও আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। তবে এই ম্যাচেও ওপেনিং জুটিতে কোন পরিবর্তন আনেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে এই ম্যাচে গোল্ডেন ডাক মেরেই আউট হন মোহাম্মাদ নাঈম। দ্বিতীয় ওভারে শাহীন আফ্রিদির বলে আউট হন নাঈম। দ্বিতীয় ম্যাচে অভিষেক হয় বিপিএলে দারুণ করা মেহেদি হাসানের। প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও ধীর গতিতে ইনিংস শুরু করেন তামিম।

মেহেদি বিদায় নেন দলীয় ২২ রানে। তামিমের সঙ্গে লিটনও বেশি রক্ষণাত্মক ব্যাটিং করেন। তবে দলীয় ৪১ রানে সাদাবের বলে এল্বিডব্লিউর শিকার হন লিটন। ১৪ বলে ৮ রান করে আউট হন তিনি। দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ে তামিমের সঙ্গে হাল ধরেন আফিফ। দুইজনেই দলের রানের চাকা সচল রাখেন। তবে আফিফ কিছুটা আক্রমণাত্মক খেললেও তামিম ধীর গতির ব্যাটিংই চালিয়ে যান। তামিম-আফিফের ৪৫ রানের জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ হাসনাইন। ২১ করে আউট হন আফিফ।

অবশ্য এই ম্যাচেও রানের গতি বাড়াতে ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। তামিম ফিফটি তুললেও তখনও অনেক পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। ৫৩ বলে ৬৫ রানের ইনিংস খেলে এই সিরিজে টানা দ্বিতীয় বারের মতো রান আউট হন তামিম। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের ইনিংস আটকে যায় ১৩৬ এর ঘরে।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

“তামিমের জন্য ধারাভাষ্য কক্ষ আদর্শ জায়গা”

বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক : উইলিয়ামসন

তামিম-মুশফিকের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা উপভোগ করেন সাকিব

জাহানারার কণ্ঠে তামিমের সুর

বোনের জানাজায়ও যেতে পারলেন না আকরাম