Scores

বার্বাডোজকে হারিয়ে শীর্ষে ত্রিনবাগো

সিপিএলে দুই দিনে দুই ম্যাচে পরাজিত হল বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। নিজেদের পঞ্চম ম্যাচে ত্রিনবাগো নাইট রাইদার্সের কাছে পাত্তাই পায়নি বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। আসরের চতুর্থ জয় তুলে নিয়ে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স অবস্থান করছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে।

বার্বাডোজকে হারিয়ে শীর্ষে ত্রিনবাগো
৬৬ রানের ইনিংস খেলেন ম্যাককালাম। ©সিপিএল


ব্রিজটাউনে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। শুরুটা ছিল দুঃস্বপ্নের মতো। দ্বিতীয় ওভারেই টপ অর্ডারের তিন মূল্যবান উইকেট হারিয়ে বসে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। বার্বাডোজ ট্রাইদেন্টসের হয়ে ইনিংস সূচনা করেন ডোয়াইন স্মিথ এবং সাই হোপ। দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে খ্যারি পিয়েরে বোল্ড করেন স্মিথকে।

Also Read - সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মোসাদ্দেক


পরের বলে রানের খাতা খোলার আগেই রান আউট হন তিনে নামা শামার স্প্রিঙ্গার। এক বল পর ক্রিজের বাইরে বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে পরাস্ত হন স্টিভ স্মিথ। সুযোগ হাতছাড়া করেননি দীনেশ রামদিন। স্টাম্পিং করে তাকেও ফেরান সাজঘরে। তিন রানেই পতন ঘটে তিন উইকেটের। এত বাজে সূচনা যেন কল্পনাও করেনি বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস।

এরপর হাল ধরেন নিকোলাস পুরান এবং সাই হোপ। তাদের ৭০ রানের জুটির সুবাদে যেন ব্যাটিং বিপর্যয় কাটিয়ে উঠে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। আশা জাগে লড়াকু স্কোরের। তাদের জুটি ভাঙেন ডোয়াইন ব্রাভো। নিকোলাস পুরানকে বোল্ড করেন তিনি। ৩ চার ও ২ ছক্কায় ২১ বলে ৩৪ রান করেন নিকোলাস পুরান।

এক প্রান্ত আগলে রাখা ওপেনার সাই হোপ ফিরেন ফাওয়াদ আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে। ৫ চারে সাজানো ৩৪ বলে ৪৩ রান করেন হোপ। ঐ ওভারে টিয়ন ওয়েবস্টারকেও ফেরান ফাওয়াদ আহমেদ। দেখেশুনে খেলছিনে জেসন হোল্ডার। শেষদিকে রেমন্ড রেফারকে নিয়ে গড়েন ২২ রানের জুটি। ১০ রান করেন রেফার। ৩৩ বলে ৩ চারে ৩০ রান করে ১৯ তম ওভারে ব্রাভোর শিকার হন হোল্ডার। ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১২৮ রানের স্কোর দাঁড় করায় বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। জোড়া উইকেট লাভ করেন পিয়েরে, ব্রাভো এবং ফাওয়াদ।

ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের লক্ষ্যটা ছিল সহজ। দুই ওপেনার ক্রিস লিন এবং সুনীল নারাইন উদ্বোধনী উইকেটে রান তুলেন ১৮। ১০ বলে ৮ রান করে মোহাম্মদ ইরফানের শিকার হন ক্রিস লিন। এরপর দলীয় ৩০ রানের মাথায় সুনীল নারাইনকেও ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ ইরফান। ১০ বলে ১৩ রান করেন নারাইন। ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড়ের আভাস দিয়েছিলেন কলিন মানরো। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি। নারাইনের বিদায়ের পরের ওভারে দলীয় ৩৭ রানের মাথায় অ্যাশলে নার্সের বলে বোল্ড হন তিনি। ৩ চারে ৯ বলে ১৪ রান করেন মানরো।

ড্যারেন ব্রাভো ও ব্রেন্ডন ম্যাককালাম চতুর্থ উইকেটে গড়েন ২৩ রানের জুটি। তবে তাতে ড্যারেন ব্রাভোর অবদান ছিল মাত্র ২। ১০ বলে ২ রান করে রেমন্ড রেফারের শিকার হন ব্রাভো। ৬০ রানে ৪ উইকেট তুলে নিয়ে আশা জিইয়ে রাখে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস।

পঞ্চম উইকেটে ব্রেন্ডন ম্যাককালাম এবং দীনেশ রামদিনের ৬৬ রানের জুটিতে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। এ জুটি জয়ের নাগালে চলে আসে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। ৮ চার ও ৩ ছক্কায় ৪২ বলে ৬৬ রানের এক চমৎকার ইনিংস খেলেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। ২০ রান আসে দীনেশ রামদিনের ব্যাট থেকে। রামদিনকে ফিরিয়ে দিয়ে তাদের জুটি ভাঙেন স্প্রিঙ্গার। তখন চার ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজন মাত্র তিন। পরের ওভারে স্টিভ স্মিথ নিজের বলে নিজে ক্যাচ ধরে ব্রেন্ডন ম্যাককালামকে ফেরালেও তা শুধু পরাজয়ের ব্যবধান কমায়।

ডোয়াইন ব্রাভো এবং স্ক্যান্টলবুরি-সিয়ারলেস মিলে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস ১২৮/৮, ২০ ওভার
হোপ ৪২, পুরান ৩৪, হোল্ডার ৩০
ফাওয়াদ ২/১৩, ব্রাভো ২/২৩, পিয়েরে ২/২৯

ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ১৩০/৬, ১৬.৩ ওভার
ম্যাককালাম ৬৬, রামদিন ২০, মানরো ১৪
ইরফান ২/২৪, স্মিথ ১/৪, নার্স ১/১৭


আরো পড়ুনঃ 


 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

সিপিএলে ত্রিনবাগোর টানা দ্বিতীয় শিরোপা

মানরো-ব্রাভোর ঝড়ে ত্রিনবাগোর শ্বাসরূদ্ধকর জয়

ব্র্যাথওয়েটের অলরাউন্ড নৈপূণ্যে সেন্ট কিটসের বড় জয়

থমাস, ব্র্যাথওয়েট ঝড়ে সেন্ট কিটসের বড় সংগ্রহ

ব্যাটিংয়ে সেন্ট কিটস, খেলছেন মাহমুদউল্লাহ