Scores

বিজয়-অভিমন্যুর জোড়া শতকে প্রাইম ব্যাংকের জয়

বিকেএসপিতে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে আগে ব্যাটিং করে টপ অর্ডারের জোড়া শতকে ৩৪৪ রানের বড় সংগ্রহ পায় প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। বৃষ্টি আইনে ২৯ রানে ম্যাচ জিতেছে প্রাইম ব্যাংক। নিউজিল্যান্ড থেকে ফেরার পর আজ শেখ জামালের হয়ে মাঠে ফিরেছেন তাইজুল ইসলাম।

প্রাইম ব্যাংক

টস হেরে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ পাওয়া প্রাইম ব্যাংক শুরুতেই রুবেল মিয়ার উইকেট হারায়। দলীয় ৫ রানে ব্যক্তিগত রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন তিনি। দ্বিতীয় রেকর্ড জুটি গড়েন বিজয় ও ভারতীয় অভিমন্যু ঈশ্বরান। আসরের সর্বোচ্চ ১৯৪ রান আসে তাদের জুটিতে।

Also Read - “দল কিসের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন”


আগের ম্যাচের মতো আজো শতক এসেছে প্রাইম ব্যাংকের অধিনায়কের ব্যাট থেকে। ১২০ বলে ১০১ রান করেন তিনি। এই ইনিংসের মাধ্যমে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে বাংলাদেশিদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১১টি শতকের মালিক হলেন তিনি। সেই সাথে চার হাজার রানের মাইলফলকও পেরিয়েছেন ২৬ বছর বয়সী এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

 

অনন্য অর্জনে মুশফিক-আশরাফুলদের পাশে বিজয়

 

অভিমন্যু করেন ১২৬ বলে ১৩৩ রান। তার ইনিংসে ছিল ১০টি চার ও ১টি ছয়। শেষের দিকে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন আরিফুল। তার ব্যাট থেকে আসে ৩২ বলে ৬৭ রান। ৪টি চার ও ৩টি ছয়ে সাজানো ছিল তার টর্নেডো ইনিংসটি।

নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৩৪৪ রানের বড় সংগ্রহ পায় প্রাইম ব্যাংক। লেগ স্পিনার তানবীর হায়দার নেন দুইটি উইকেট। শহিদুল ইসলাম, জিয়াউর রহমান ও তাইজুল ইসলাম একটি করে উইকেট নেন।

ভালো শুরু করলেও ৫৯ রানের মধ্যেই তিনটি উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে শেখ জামাল। দুই ওপেনারকে ফিরিয়ে দেন নাহিদুল ইসলাম। চতুর্থ উইকেটে ১১৬ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেন নাসির হোসেন নুরুল হাসান সোহান।

নাসির ৭৬ বলে ৭৬ রান করে আব্দুর রাজ্জাকের শিকার হন। তার ইনিংসটিতে ছিল ১০টি চার ও ২টি ছয়। সোহান অপরাজিত থাকেন ৬৫ বলে ৫৪ রানে। তার সঙ্গী হিসেবে অপর প্রান্তে ছিলেন তানবীর হায়দার।

কিন্তু ম্যাচের ৭৭ বল বাকি থাকতেই বৃষ্টি নামলে থেমে যায় খেলা। তখনো জয়ের জন্য সোহানদের দরকার ছিল ১৪১ রান। আর বড় মাঠে না গড়ালে বৃষ্টি আইনে ২৯ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে প্রাইম ব্যাংক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

প্রাইম ব্যাংক: (৫০ ওভার) ৩৪৪/৬ (অভিমন্যু ১৩৩, বিজয় ১০১, আরিফুল ৬৭*, অলক কাপালি ১৬, নাহিদুল ৮*, আল আমিন ৮, জাকির ০, রুবেল ০; তানবীর ২/২৭, তাইজুল ১/৫৭, শহিদুল ১/৬৯, জিয়াউর ১/৭১)

শেখ জামাল: (৩৭.১ ওভার) ২০৬/৪ (নাসির ৭৬, সোহান ৫৪*, ইমতিয়াজ ২৬, ফারদীন ১৭, তানবীর ১৬*; নাহিদুল ১/৫১, রাজ্জাক ১/৫২, মনির ১/২৩)

ফল: ২৯ রানে জয়ী প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব।

ম্যাচসেরা: অভিমন্যু ঈশ্বরান।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

অনূর্ধ্ব উনিশের সেরা দশ ব্যাটসম্যান, কোথায় এখন তারা?

বিজয়ের বৌভাতে ক্রিকেটারদের মিলনমেলা

ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ক্রিকেটাররা

ঈদের পর বিজয়ের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা

যে কারণে কিপিং করেননি মুশফিক