বিডিক্রিকটাইমের চোখে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেরা ‘১১’

মরুর বুকে দীর্ঘ এক মাস ক্রিকেট ঝড় তুলে অবশেষে পর্দা নেমেছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২১ আসরের৷ সপ্তম আসরে অংশ নিয়েছিলেন ১৬ দলের দেড় শতাধিক ক্রিকেটার৷ অনেক বড় নামের পাশাপাশি আলো ছড়িয়েছেন ছোট দলের অনেক বড় তারকাও৷ আর তাদের মাঝ থেকে শীর্ষ এগারো জনকে নিয়ে বিডিক্রিকটাইম সাজিয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২১ আসরের সেরা একাদশ।

অধরা শিরোপা জয়ের পর অজি ক্রিকেটারদের বাঁধভাঙ্গা উল্লাস।
অধরা শিরোপা জয়ের পর অজি ক্রিকেটারদের বাঁধভাঙ্গা উল্লাস।

১) ডেভিড ওয়ার্নার : টুর্নামেন্টের আগের অফ-ফর্মকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে বড় মঞ্চে ঠিকই আলো ছড়িয়েছেন ডেভিড ওয়ার্নার। মোট ৭ ইনিংসে ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে ৪৮.১৬ গড়ে করেছেন ২৮৯ রান৷ অস্ট্রেলিয়াকে ফাইনালে তোলায় রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। টুর্নামেন্টের শেষ তিন ম্যাচের দুটিতেই করেছেন ফিফটি। বাকি থাকা ম্যাচটিতে করেছেন ৪৯ রান৷ তারই সুবাদে ওয়ার্নার মনোনীত হয়েছেন টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হিসেবেও৷ বিডিক্রিকটাইমের একাদশেও তিনি পালন করবেন ওপেনারের ভূমিকা।

Advertisment

২) জস বাটলার (উইকেটরক্ষক) : পাওয়ার প্লেতে দ্রুত রান তোলার দায়িত্ব বিডিক্রিকটাইম তুলে দিয়েছে ইংলিশ ওপেনার জস বাটলারের কাঁধে। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে ১৫১ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করেছেন এই ব্যাটার৷ ইংলিশদের স্মরণীয় বিশ্বকাপ মিশনে রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান৷ ব্যাট হাতে ৬ ইনিংসে প্রায় ৯০ এভারেজে করেছেন ২৬৯ রান৷  বিশ্বকাপের একমাত্র শতকও এসেছে তার ব্যাট থেকেই৷ সাথে সাথে উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে নিয়েছেন ৪টি ক্যাচ৷ করেছেন একটি স্টাম্পিংও৷ ওপেনিং এর পাশাপাশি তিনিই দাঁড়াবেন উইকেটের পেছনে৷

৩) বাবর আজম : সুপার টুয়েলভের প্রতিটা ম্যাচ জিতে একমাত্র অপরাজিত দল হিসেবে সেমিফাইনালে কোয়ালিফাই করেছিল পাকিস্তান ক্রিকেট দল৷ আর পাকিস্তান দলের এই আগ্রাসী পারফরম্যান্সে ব্যাট হাতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন অধিনায়ক বাবর আজম। ৬ ম্যাচে ৬০ এভারেজে ৩০৩ রান করে তিনিই হয়েছেন এবারের আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। বিডিক্রিকটাইমের দলে তাই অবধারিতভাবেই জায়গা করে নিয়েছেন তিনি৷ তবে ওপেনিংয়ের বদলে বাবর ব্যাট করবেন তিনে৷

৪) কেন উইলিয়ামসন(অধিনায়ক) : ক্রিকেটের ধুমধাড়াক্কা সংস্করণ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অবহেলার সুযোগ নেই অভিজ্ঞতাকেও৷ আর সেই অভিজ্ঞতা আর বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সের বিচারে কেন উইলিয়ামসন জায়গা পেয়েছেন বিডিক্রিকটাইমের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে৷ এবারের আসরে ৭ ম্যাচে ২১৬ রান করেছেন উইলিয়ামসন৷ বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলেছেন ৮৫ রানের অনবদ্য ইনিংস৷ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের কোনো ফাইনালে অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসা এটাই সর্বোচ্চ ইনিংস৷ নিউজিল্যান্ড দলকে অসাধারণভাবে নেতৃত্ব দিয়ে ফাইনালে নিয়ে আসার পুরষ্কারস্বরুপ তিনিই সামলাবেন বিডিক্রিকটাইম দলকে৷

উইলিয়ামসন বিডিক্রিকটাইম
ফাইনালে ৮৫ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন উইলিয়ামসন।

৫) চারিথ আসালাঙ্কা : সপ্তম আসরে শ্রীলঙ্কা বিদায় নিয়েছে সুপার টুয়েলভ থেকেই৷ দল ভালো না করতে পারলেও ব্যাট হাতে উজ্জ্বল ছিলেন চারিথ আসালাঙ্কা৷ টুর্নামেন্ট শেষেও শীর্ষ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় তিনি আছেন পাঁচ নম্বরে৷ ৬ ইনিংসে ব্যাট করে তিনি করেছেন ২৩১ রান৷

৬) মিচেল মার্শ : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষের ফাইনালে অনবদ্য এক ইনিংস খেলে অস্ট্রেলিয়ার জয়ের রাস্তাটা সুগম করেছেন মিচেল মার্শ। তার করা অপরাজিত ৭৭ রানের ইনিংসে ভর করে একরকম হেসেখেলেই কিউইদের টানা দুইটি ফাইনালে হারানোর কীর্তি গড়েছে অজিরা৷ তিনি নির্বাচিত হয়েছেন ম্যান অব দ্য ফাইনাল হিসেবেও৷ পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে ব্যাট এবং বল হাতে উজ্জ্বল ছিলেন এই অলরাউন্ডার। তারই বদৌলতে তিনি জায়গা করে নিলেন বিডিক্রিকটাইমের বিশ্বকাপ সেরা টি-টোয়েন্টি একাদশে।

৭) মঈন আলী : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ধারাবাহিকভাবে আলো ছড়িয়েছেন ইংলিশ অলরাউন্ডার মঈন আলী৷ প্রতিপক্ষের রানের চাকা আটকে রাখতে সবসময় তার উপরই ভরসা রেখেছেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান৷ গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট তুলে নিয়ে অধিনায়কের সেই আস্থার প্রতিদানও দিয়েছেন তিনি৷ পুরো আসর জুড়ে তার ইকোনমি মাত্র ৫.৭৫৷ সুযোগ পেলে ব্যাট হাতেও রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান৷ সেমিফাইনালে তার করা ৩৭ বলে ৫১ রানে ভর করে বড় সংগ্রহ দাঁড় করাতে সক্ষম হয়েছিল ইংলিশরা৷

মঈন আলী
মঈন আলী। ফাইল ছবি

৮) ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরে দল হিসাবে খুব একটা দ্যুতি ছড়াতে পারেনি শ্রীলঙ্কা৷ তবে বল হাতে ঠিকই উজ্জ্বল ছিলেন শ্রীলঙ্কার লেগ স্পিনিং অলরাউন্ডার ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা৷ আর তারই ফলস্বরূপ বিশ্বাকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ডটা নিজের করে নিয়েছেন তিনি। এবারের আসরে বল হাতে ১৬ উইকেট বাগিয়েছেন তিনি৷ সাথে সাথে দলের বিপদে ব্যাট হাতে লড়াই করার মানসিকতা হাসারাঙ্গাকে জায়গা করে দিয়েছে বিডিক্রিকটাইম দলে৷

৯) জস হ্যাজেলউড : অনেকদিন ধরেই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিয়মিত নন অস্ট্রেলিয়ান গতিতারকা জস হ্যাজেলউড৷ শুধু টেস্ট ক্রিকেটেই ছিল তার সম্পূর্ণ মনযোগ। তবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসরের দলে জায়গা পেয়ে তিনি আলো ছড়িয়েছেন। দেখিয়েছেন, ক্ষুদ্র সংস্করণেও ঠিক কতটা ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারেন তিনি৷ অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে পেস আক্রমণকে নেতৃত্ব দিয়েছেন হ্যাজেলউড৷ ৭ ম্যাচে তার উইকেট সংখ্যা ৭৷

১০) অ্যাডাম জাম্পা : সপ্তম আসরে মোট সাতটি ম্যাচ খেলেছেন অ্যাডাম জাম্পা । তার মধ্যে মাত্র দুটি ম্যাচে ২৪ রানের বেশি দিয়েছেন তিনি। বাকি পাঁচ ম্যাচেই তার ইকোনমি ছিলো ছয়ের নিচে৷ সব মিলিয়ে ইকোনমিও তাই ঈর্ষনীয়। ওভার প্রতি ৫.৬৯ রান দিয়ে ৭ ম্যাচে ১৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। গুরুত্বপূর্ণ ফাইনাল ম্যাচেও মিতব্যয়ী ছিলেন অ্যাডাম জাম্পা । নির্ধারিত চার ওভারে মাত্র ২৬ রান দিয়েছেন তিনি। তুলে নিয়েছেন অভিজ্ঞ মার্টিন গাপটিলের উইকেট।

১১) ট্রেন্ট বোল্ট : নিজের অভিজ্ঞতার পুরোটাই সপ্তম আসরে এসে নিংড়ে দিয়েছেন কিউই গতিতারকা ট্রেন্ট বোল্ট। দলের বোলিং আক্রমণকে নেতৃত্ব দিয়েছেন পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই৷  ইনিংসের শুরুতে উইকেট নেওয়ার জন্য হোক কিংবা ইনিংস শেষ রান আটকাতে, উইলিয়ামসন ভরসা রেখেছেন ট্রেন্ট বোল্টের উপরই৷ সেই ভরসার প্রতিদান তিনি দিয়েছেন ৭ ম্যাচে ১৩ উইকেট তুলে নিয়ে৷ শীর্ষ উইকেট শিকারীর তালিকায় অ্যাডাম জাম্পার সাথে যৌথভাবে তিনি আছেন দুই নম্বরে

দ্বাদশ ক্রিকেটার :  তাসকিন আহমেদ

সঠিক নিয়ম মেনে পরিশ্রম করলে যে আসলেই নিজেকে পরিবর্তন করা যায়, তার উজ্জ্বল নিদর্শন হয়ে রইলেন তাসকিন আহমেদ৷ বিশ্বকাপ মঞ্চকে তাসকিন নিয়েছিলেন নিজেকে প্রমাণের মঞ্চ হিসেবে৷

 

View this post on Instagram

 

A post shared by bdcrictime.com (@bdcrictime)

আর সেই মিশনে তিনি যথেষ্ট সফলই বলা যায়৷ অবশ্য দলের পারফরম্যান্সের দৈন্যদশার কারণে সেই সুযোগ খুব একটা পাননি তাসকিন৷  তাতেই আলো ছড়িয়েছেন। বিশ্লেষকরা তার প্রশংসায় হয়েছেন পঞ্চমুখ।  ৬ ম্যাচে ৬.৫০ ইকোনমিতে বল করে উইকেট পেয়েছেন ৬টি। হাড় ভাঙা পরিশ্রম আর ইস্পাত কঠিন মনোবলে নিজেকে বদলে ফেলা তাসকিনের প্রতি সম্মান জানিয়ে তাকে দলের দ্বাদশ ক্রিকেটারের জায়গা দিয়েছে বিডিক্রিকটাইম।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।