Scores

বিতর্কিত মন্তব্যর জন্য পান্ডিয়া ও রাহুলকে বিসিসিআই’য়ের তলব

ভারতীয় ক্রিকেটার হার্দিক পান্ডেয়া ও কে এল রাহুল ভারতীয় দলের নারী ভক্তদের কাছে বেশ জনপ্রিয় দুই ক্রিকেটার। সম্প্রতি তারা দুইজনই এসেছিলেন ভারতের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান কফি উইথ কারানে। সেখানে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন দুই ক্রিকেটার। তবে তাদের বক্তব্য নিয়ে এখন পুরো ভারত জুড়ে চলছে তোলপাড়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার মুখে পড়ে নিজের বক্তব্যর জন্য ভক্তদের কাছে মাফও চেয়েছেন হার্দিক।

কফি উইথ কারানে পান্ডেয়া ও কে এল রাহুল
কফি উইথ কারানে পান্ডেয়া ও কে এল রাহুল। ছবিঃ সংগৃহীত

অনুষ্ঠানে হার্দিক পানশালায় মেয়েদের দেখা নিয়ে বলেন ‘ আমি পানশালায় সুন্দর মেয়েদের ভাব বোঝার চেষ্টা করি। কারন যেহেতু আমি দেখতে কিছুটা কালো তাই আমার দূর থেকে তাদের ভাব বুঝতে হয় আগে ‘। নিজেকে ওয়েস্টইন্ডিজের মানুষ মনে হয় বলে দাবি করে হার্দিক আরো বলেন ‘আমার নিজেকে ওয়েস্টইন্ডিজের মনে হয়। আমার চিন্তা চেতনা, জীবনযাপন সব তাদের সাথে মিল। মাঝে মাঝে বাবা মায়ের কাছে জানতে চাই আমি কি আসলেই আপনাদের সন্তান তো? হাসপাতালে কারো সাথে পরিবর্তন তো হয়ে যাই নি?’

পড়ালেখায় নিজের ব্যর্থতাকে গর্বের সাথে ব্যাখ্যা দিয়ে হার্দিক বলেন ‘আমি ২য় থেকে ৯ম শ্রেণী পর্যন্ত সকল শ্রেণীতে ফেল করেছি। পরীক্ষার খাতায় শুধু নাম ও রোল লিখে আসতাম, মাঝে মাঝে রোলও ভুলে যেতাম। যখন মুড ভালো থাকতো তখন শুধু প্রশ্ন লিখে আসতাম। নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় বুঝলাম আমাকে দিয়ে আর হবে না তখন পড়ালেখা ছেড়ে দিলাম। তখন মনে মনে ভাবলাম ক্রিকেটে ভালো কিছু করতে হবে নাহলে পিয়ন হয়ে থাকতে হবে ‘।

নিজের যৌন জীবন নিয়ে খোলামেলা আলোচনায় হার্দিক তার পরিবারের প্রশংসা করেন। পরিবার এসব বিষয়ে সব সময় যথেষ্ট সহায়ক ছিলো তার প্রতি। হার্দিক বলেন ‘যখন আমি আমার ভার্জিনিটি হারাই তখন আমি বাসায় এসে মাকে বলি , মা আজ আমি করে এসেছি ‘। এক পার্টিতে যখন তার বাবা তার কাছে জানতে চায় কোন মেয়েটা তোমার, তখন হার্দিকের উত্তর ছিলো ‘ এটা আমার, ওটা আমার, ওই যে ওই কোনারটা ওটাও আমার ‘। উত্তর শুনে তার বাবা হেসে বলেছিলেন ‘বাহ, দারুন আমরা তোমার উপর গর্বিত ‘।

হার্দিকের বন্ধু রাহুলও পিছিয়ে ছিলেন না। হার্দিকের ব্যাপারে রাহুল বলেন ‘ হার্দিক একবার তার দুই বান্ধবীকে একই মেসেজ পাঠায় কপি পেস্ট করে।সেই দুইজনই আমাকে সেই ম্যাসেজের স্ক্রিনশট পাঠিয়ে বলে নিজের বন্ধুকে বলে দাও কমপক্ষে এক ম্যাসেজতো দুইজনকে না পাঠাক’।

নিজের জীবন নিয়েও খোলাসা করেন রাহুল। রাহুল জানান ১৮ বছর বয়সে তার কাছ থেকে কনডমের প্যাকেট পায় তার মা। তিনি এইখবর তার বাবাকে জানান, তবে তাকে অবাক করে দিয়ে তার বাবা তাকে সাধুবাদ জানায় এবং বলেন ‘তুমি সঠিক কাজই করেছো, এটাই নিরাপদ ও সঠিক কাজ ‘।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ধরনের বক্তব্যের প্রতিবাদের পর শুধু ক্ষমা চেয়েই পার পেয়ে যান নি হার্দিক। তাকে ও রাহুলকে দুইজনকেই এখন মুখোমুখি হতে হবে বিসিসিআইয়ের প্রশ্নের।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড হার্দিক পান্ডেয়া ও কে এল রাহুল উভয়ের কাছে ২৪ ঘন্টার মাঝে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দিয়েছে বলে জানান সিওএ চেয়ারম্যান বিনোদ রায়। বিসিসিআইয়ের সাবেক জেনারেল ম্যানেজার রত্নাকর শেঠী পাবলিক প্ল্যাটফর্মে হার্দিকের এমন মন্তব্যকে ক্রিকেট কমিউনিটির জন্য লজ্জাজনক বলে উল্লেখ করেছেন।

Related Articles

নিউজিল্যান্ড সফরের দল ঘোষণা বুধবার

ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে কোহলির তিন অ্যাওয়ার্ড

আইসিসির বর্ষসেরা টেস্ট একাদশ ঘোষণা

আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে একাদশে মুস্তাফিজ

প্রাইজমানি না পেয়ে সিএর উপর ক্ষুব্ধ গাভাস্কার