Scores

“বিপিএলে খেলাটা আমার বোকামি হয়েছে”

শুক্রবার (৮ মার্চ) শুরু হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বিকেএসপিকে ৬০ রানে হারায় আবাহনী লিমিটেড। আবাহনীর জয়ের পেছনে বড় অবদান ছিল জহুরুল ইসলাম অমির ১২১ রানের ইনিংসটির।

“বিপিএলে খেলাটা আমার বোকামি হয়েছে”

জহুরুলের ধীর ব্যাটিংয়ে এদিন আবাহনীর দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ২১৬। রান রেট কম মনে হলেও ম্যাচের জয় তুলে নেওয়ায় জহুরুলের ইনিংস ছিল বেশ কার্যকরী। ম্যাচ শেষে তিনি কথা বলেন তার এই ইনিংস নিয়ে।

Also Read - বৃথা গেলো কোহলির শতক

জহুরুল জানান, হাতে ব্যথা নিয়েই তিনি সাজিয়েছেন এই ইনিংস। বিপিএলের আগে চোট পেয়েছিলেন। সেই চোট নিয়েই বিপিএলে খেলেছে, ফলে বাঁধিয়েছেন বিপত্তি। এ কারণে বিপিএলে খেলা বোকামি কাজ বলেই মনে হচ্ছে তার কাছে।

জহুরুল বলেন, ‘বিপিএলের ঠিক আট দিন আগে চোটটা পেয়েছিলাম। বিপিএলে খেলাটা আমার বোকামি হয়েছে। ব্যাট ঠিকমতো ধরতেই পারতাম না।’

চোটের কারণে খেলা বাদ দিয়ে চলে যান বাসায়। এরপর সেরে ওঠার আগেই নেমেছেন ডিপিএলে। সেখানে অবশ্য সমর্থকদের হতাশ করেননি। দ্রুত উইকেট হারানো আবাহনীকে পথ দেখিয়েছেন দারুণ ব্যাটিং করে।

জহুরুল বলেন, ‘টুর্নামেন্ট অসমাপ্ত রেখেই বাসায় চলে যাই। এখন সেরে ওঠার পথে। তবে এখনো ঘাটতি আছে ব্যাটিংয়ে। ব্যথাটা এখনো পুরোপুরি সারেনি। চেষ্টা করছি, ফিজিওরা অনেক সাহায্য করছে। আশা করি দ্রুত সেরে যাবে।’

দলের ব্যাটিংয়ের হাল ধরতে গিয়ে জহুরুল ধীরে খেলেছেন। বড় শটের প্রয়োজন হয়নি। জানালেন, বড় শতট খেলার মত ফিটনেসও ছিল না। তার ভাষ্য, ‘আমার এই হাত নিয়ে আজ শট খেলা সম্ভব ছিল না। আর দল যে পরিস্থিতিতে ছিল, শট খেলার দরকারও ছিল না। সব মিলিয়ে আল্লাহর রহমতে ভালোই হয়েছে।’

পঞ্চম উইকেটে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের সাথে গড়েছিলেন দারুণ এক জুটি। সাইফউদ্দিনের প্রশংসাও তাই জহুরুলের কণ্ঠে। তিনি বলেন, ‘খুব ভালো চারজন ব্যাটসম্যান দ্রুত আউট হয়ে গিয়েছিল। সাইফুদ্দিন যখন নামল, এ রকম কঠিন সময়ে বাংলাদেশ দলের হয়ে গত কিছুদিনে বেশ কটি ভালো ইনিংস খেলেছে। ওর ওপর বিশ্বাস ছিল আমার।’

Related Articles

সৌম্যকে যেভাবে সাহায্য করেছেন জাফর

ওয়াসিম জাফরের পরামর্শ কাজে লাগানোর প্রত্যাশা

তাণ্ডবের আগে ‘নার্ভাস’ ছিলেন সৌম্য

গর্বিত ‘অধিনায়ক মোসাদ্দেক’, কৃতিত্ব মাশরাফিকে

শেখ জামালকে উড়িয়ে আবাহনী চ্যাম্পিয়ন