বিপিএলে দল না পেয়ে অনিশ্চয়তায় রুবেল

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের সর্বশেষ আসর চলাকালেই অসুস্থ বোধ করেন। পরবর্তীতে পরীক্ষানিরীক্ষা করে জানা যায়, ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত মোশাররফ হোসেন রুবেল। এরপর সর্বস্ব দিয়ে চিকিৎসা চালিয়ে গেছেন। সুস্থ হয়ে ক্রিকেটেও ফিরেছেন। কিন্তু বিপিএলের মত আসরে থেকে গেছেন ব্রাত্য।

“আমি বলব আল্লাহ আমাকে দ্বিতীয় জীবন দিয়েছেন”
জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার মোশাররফ হোসেন রুবেল। ফাইল ছবি: বিডিক্রিকটাইম

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে রুবেলকে দলে ভেড়ায়নি কোনো দল। অথচ কঠিন ও কষ্টসাধ্য চিকিৎসাপ্রক্রিয়ার মধ্যেও ফিটনেস ধরে রাখতে সংগ্রাম করেছেন, ক্রিকেটে ফিরতে কঠিন লড়াই চালিয়েছেন। ফিট হয়ে ক্রিকেটে ফিরলেও মাঠে ফেরা হচ্ছে না। আক্ষেপ তো বটেই, রুবেলের ভবিষ্যৎও পড়ে গেছে ঘোর অনিশ্চয়তায়।

Advertisment






গত মার্চে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে রুবেলের ব্রেইন টিউমারের অস্ত্রোপচার হয়। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে টিউমারের পুরো অংশ অপসারণ করা সম্ভব হয়নি, তাই নিতে হচ্ছিল কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপির আশ্রয়।

চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় বিপুল পরিমাণ অর্থের জোগানের জন্য নিজের ফ্ল্যাট বাড়িও বিক্রি করতে চেয়েছিলেন। ক্রিকেট বোর্ড, ক্রিকেটার ও সাবেক সহপাঠী-বন্ধুদের সহায়তায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তবে আক্ষেপ- বিপিএলে দারুণ রেকর্ড থাকার পরও এবার সুযোগ পাননি কোনো দলে। ড্রাফটের পরও দলে ভেড়ানোর সুযোগ থাকলেও তার প্রতি আগ্রহ নেই সাত অংশগ্রহণকারী দলের কারো।





বিডিক্রিটাইমের সাথে একান্ত আলাপকালে মোশাররফ রুবেলের কণ্ঠে ফুটে উঠেছে আক্ষেপ আর হতাশা। বিপিএলের বিশেষ সংস্করণকে সামনে রেখে জানিয়েছেন শুভকামনা। পাঠকদের জন্য সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হল।

বিডিক্রিকটাইম: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বিশেষ সংস্করণ বঙ্গবন্ধু বিপিএল শুরু হচ্ছে।

মোশাররফ রুবেল: হ্যাঁ। আমি আশাবাদী- টুর্নামেন্টটা জমবে। খেলোয়াড় ও দলগুলোর প্রতি শুভকামনা। একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ টুর্নামেন্ট আশা করব।

বিডিক্রিকটাইম: মাঠে ফেরার তাড়নায় আপনি তো চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

মোশাররফ রুবেল: চেষ্টা তো করেই যাচ্ছি। আমি এখন শতভাগ ফিট। গত বিপিএলের সময়ের চেয়েও ভালো অবস্থায় আছি। বোলিংও আলহামদুলিল্লাহ্‌ খুবই ভালো হচ্ছে। আশা করব কোনো দল যদি আমাকে মাঠে ফেরার সুযোগ দেয়… তাহলে আমার জন্য একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে। একটা ব্রেকথ্রু দরকার আমার। আমি তো পরীক্ষিত খেলোয়াড়। গত ছয়টা বিপিএলে খেলেছি। চারবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছি। ফাইনালে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হয়েছি। পাঁচ শীর্ষ বোলারের তালিকায়ও ছিলাম। বিপিএলে আমার মোট ৪৮টি উইকেট।

বিডিক্রিকটাইম: ঘরের মাঠে এত বড় আসর হচ্ছে, মাসব্যাপী। দল পাননি, ঘরে বসে টিভিতে খেলা দেখতে হবে। কোনো আক্ষেপ কাজ করে কি?

মোশাররফ রুবেল: হ্যাঁ। আসলে আমাদের অভিজ্ঞতা বিবেচনা করা উচিৎ। এসব আসর অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের জন্যই। আন্দ্রে রাসেলকে কীভাবে বল করতে হবে, কাইরন পোলার্ডকে কীভাবে বল করতে হবে সেটা আমরা অভিজ্ঞরা জানি। একজন জুনিয়র খেলোয়াড় হুট করে হয়তবা চাপ সামলাতে পারবে না। আমি পোলার্ডের উইকেট পেয়েছি, রাসেলকে আউট করেছি। অনেক বড় বড় ব্যাটসম্যানকেই আউট করেছি। কঠিন পরিস্থিতিতে কীভাবে মেজাজ নিয়ন্ত্রণ রেখে বল করতে হয় সেটা জানি।

বিডিক্রিকটাইম: আপনার জন্য তো সময়টা খুব চ্যালেঞ্জিং। চিকিৎসার পেছনে অনেক অর্থ খরচ হয়েছে। অনেকে সহায়তার হাতও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যেও অনুশীলন চালিয়ে গেছেন। যে ক্রিকেটের জন্য লড়াই করে ফেরা, সেই ক্রিকেটই যদি খেলতে না পারেন। মানসিক অবস্থাটা কেমন, বা আর্থিক দিক থেকে শঙ্কায় আছেন কি না।

মোশাররফ রুবেল: একটু তো অনিশ্চয়তা থাকেই। চিকিৎসার বিষয়টা তো তাও ব্যবস্থা হয়েছে, নিজের টাকাপয়সা আর সবার সহযোগিতা মিলে। এখন আমার একটা সুযোগ দরকার। আমি আবার মাঠে ফিরতে চাই। এত সংগ্রাম করেছি। ডাক্তার যেভাবে বলেছে ঠিক সেভাবে চিকিৎসা ও পুনর্বাসন সম্পন্ন করেছি। দেখা যাক, কোনো সুযোগ যদি পাই বিপিএলে। সুযোগ পেলে ইনশাআল্লাহ্‌ কাজে লাগাবো।

বিডিক্রিকটাইম: দল পেয়েছেন এমন কোনো সতীর্থ ক্রিকেটারের সাথে কথা হয়েছে? আপনি দল না পাওয়ায় কেউ কোনো চেষ্টা-তদবির করবে কি না।

মোশাররফ রুবেল: কথা হচ্ছে। অনুশীলনে আসছি নিয়মিত। অনেকেই জানে না আমি ফিট কি না, খেলতে পারব কি না। তবে সত্যি বলতে চিকিৎসার পর আগের চেয়েও ভালো বোধ হচ্ছে। মানসিক ও শারীরিক সব দিক দিয়েই ফিট আছি।

প্রথমবারের মত বিডিক্রিকটাইম নিয়ে এলো অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন। বাংলাদেশ এবং সকল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বল বাই বল লাইভ স্কোর, এবং সাম্প্রতিক নিউজ সহ সবকিছু এক মুহূর্তেই পাবেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় অনলাইন পোর্টাল BDCricTime এর অ্যাপে। অ্যাপটি ডাউনলোড করতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে সার্চ করুন BDCricTime অথবা ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।