বিশ্বকাপের আগে নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় দক্ষিণ আফ্রিকা

0
1155

কয়েকদিন সবকিছু ঠাণ্ডা থাকার পর আবারও তপ্ত হয়ে উঠেছে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেট অঙ্গন। দেশটির সরকার ও ক্রিকেট বোর্ড (ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা বা সিএসএ) ফের মুখোমুখি অবস্থানে। এতে নতুন করে নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছে প্রোটিয়ারা।

আর্থিক ক্ষতিপূরণ দাবি ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার
আবারও ঝড়ো হাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে। ফাইল ছবি

ক্রিকেটীয় আইন অনুযায়ী, কোনো ক্রিকেট সংস্থায় সরকার প্রভাব বিস্তার করলে নিষেধাজ্ঞা ভোগ করতে হয়। ক্রিকেট ছাড়াও ফুটবলসহ বেশ কিছু ক্রীড়া ইভেন্টে এমন নিয়ম প্রচলিত রয়েছে। এর মাঝে দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার ও ক্রিকেট বোর্ডের মধ্যে চলমান দ্বন্দ্ব বাজে রূপ নিয়েছে।

Advertisment

এ বছরই অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সরকার বোর্ডের ওপর থেকে হস্তক্ষেপ বন্ধ না করলে বিশ্বকাপের আগে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিষিদ্ধও করতে পারে আইসিসি। এমন নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়ে জিম্বাবুয়ে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য যে বাছাইপর্ব হয়েছিল সেখানে অংশ নিতে পারেনি।

এমন শঙ্কা আর অনিশ্চয়তায় দক্ষিণ আফ্রিকা পুরুষ ও নারী দলের তিন অধিনায়ক ডিন এলগার, টেম্বা বাভুমা ও ড্যান ভন নিকার্ক এক বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে অধিনায়কেরা বোর্ডের অচলাবস্থা নিরসনের আহ্বান জানিয়েছেন।

নিষিদ্ধ হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে বিবৃতিতে তারা জানিয়েছেন, ‘এমন এক সময়ে যখন আমাদের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে উচ্ছ্বসিত হওয়া উচিত ছিল, তখন আমরা আমাদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন। দক্ষিণ আফ্রিকার পুরুষ দলকে নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে হবে। প্রশাসনের বর্তমান অবস্থা আমাদের প্রস্তুতিকে প্রভাবিত করছে।’

বাভুমাদের দুশ্চিন্তা, বিশ্বকাপের আগে না দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিষিদ্ধ করা হয়! সেক্ষেত্রে বিশ্বকাপের অন্যতম দাবীদার ও ক্রিকেট বিশ্বের পরাশক্তি ক্রিকেট বিশ্ব থেকে একঘরে হয়ে পড়বে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, বিশেষত আইসিসির কোনো ইভেন্টে আর অংশ নিতে পারবে না।

বিবৃতিতে তিন অধিনায়ক বলেন, ‘অচলাবস্থা চলতে থাকলে আইসিসি দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিষিদ্ধ করতে পারে। এমন হলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারব না। সেটা কিন্তু আমাদের জন্য মোটেও গর্বের ব্যাপার নয়।’