বিশ্বকাপ কাঁপানোর আভাস বাবর-রিজওয়ান জুটির

0
1525

বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ান- দুজন মিলে আন্তর্জাতিক টি-২০ তে এখন পর্যন্ত ইনিংস সূচনা করেছেন দশবার। তাতেই হয়ে গিয়েছেন পাকিস্তানের টি-২০ ইতিহাসের সেরা ওপেনিং জুটি। বিশ্বকাপের মঞ্চে পাকিস্তানের আত্মবিশ্বাসের পালে বাড়তি হাওয়া দিচ্ছে এ জুটি।

 

Advertisment

বিশ্বকাপ কাঁপানোর আভাস বাবর-রিজওয়ান জুটির

টি-২০ বিশ্বকাপের আগে পাকিস্তানের সূচিতে দুইটি টি-২০ সিরিজ থাকলেও মাঠে গড়াচ্ছে না একটিও। নিরাপত্তা ইস্যুতে পাকিস্তান সফর বাদ করেছে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। তাই প্রস্তুতিটা শতভাগ সম্পন্ন হয়নি তাদের। তবু বিশ্বকাপের মঞ্চে ভালো পারফর্ম করার সামর্থ্য আছে বাবর আজমদের। ব্যাটিং অর্ডারের দুই স্তম্ভ বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানের সাম্প্রতিক অসাধারণ পারফরম্যান্স বাড়িয়েছে পাকিস্তানের সম্ভাবনা। ছন্দ ধরে রাখতে পারলে বিশ্বকাপও কাঁপবে বাবর-রিজওয়ানের ব্যাটে।

রিজওয়ানের রেকর্ড শতকে পাকিস্তানের রোমাঞ্চকর জয়

দুজনের মাঝে বোঝাপড়াটা চমৎকার। দারুণ জুটি গড়ার জন্য এটাই তো পূর্বশর্ত। বোঝাপড়াটা কতটা ভালো সেটা বোঝা যায় রানিং বিটউইন দ্যা উইকেটের দিকে তাকালে। বাবর নিজেই বলেছিলেন, “আমাদের একে অপরের ওপর বিশ্বাস আছে। তাই যখনই বল গ্যাপে যায় আমরা দুই রানের জন্য দৌড়াই। আমি ক্যারিয়ারের শুরুতে ৮-১০ বার রান আউট হয়েছিলাম। কিন্তু রিজওয়ানের সাথে আমার বোঝাপড়াটা সত্যিই খুব ভালো।”

এ দুজন পাওয়ারপ্লের ছয় ওভারও কাজে লাগাতে পারেন দারুণভাবে। বেপরোয়া ব্যাটিং নয়, দুর্দান্ত ও নান্দনিক সব শট খেলে প্রভার তিপক্ষের আত্মবিশ্বাস শুরুতেই দুমড়ে মুচড়ে দেন এ জুটি। জুটি লম্বা করার পাশাপাশি এ জুটি রানও তোলে ঝড়ের বেগে।

এখন পর্যন্ত দশ ইনিংসে ওপেনিং করে বাবর-রিজওয়ান জুটি রান তুলেছে ৫০২। পাকিস্তানের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-২০ তে সব মিলিয়ে ৪৬ টি ওপেনিং পেয়ার এখন পর্যন্ত দেখা গেলেও একমাত্র বাবর-রিজওয়ান জুটিই পাঁচশ রানের চৌকাঠ অতিক্রম করতে পেরেছেন। রানের হিসেবে দ্বিতীয় স্থানে থাকা বাবর আজম ও ফখর জামানের জুটি ১৯ ইনিংসে রান তুলেছে ৪৮৯। এছাড়া ইমরান নাজির ও মোহাম্মদ হাফিজের ওপেনিং জুটি ১২ ইনিংসে তুলেছে ৩৮৫ রান।

শুধু রান নয়, গড়ও সাক্ষ্য দিচ্ছে বাবর-রিজওয়ানরাই সফলতম। এ জুটি ছাড়া পাঁচ ইনিংসের বেশি ওপেনিং করেছে পাকিস্তানের এমন কোনো জুটির গড় ৫০ পার হয়নি। বাবর-রিজওয়ানের জুটির গড় ৫২.১০, ওভারপ্রতি রান তোলার হার ৯.১৬। বিশ্বকাপ জিতে পাকিস্তানের শ্রেষ্ঠত্ব ফিরিয়ে আনতে চান বাবর

১০ ইনিংসের মধ্যে এ জুটি শতরান অতিক্রম করেছে দুইবার। এ বছর সেঞ্চুরিয়নে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গড়া তাদের ১৯৭ রানের জুটিটি শুধুমাত্র তাদেরই সর্বোচ্চ নয়, পাকিস্তানের ইতিহাসেরই সর্বোচ্চ।

দুজনের ব্যক্তিগত পরিসংখ্যানও বেশ সমৃদ্ধ। দুজনের স্ট্রাইক রেটই ১৩০-এর আশেপাশেই। দুজনেরই আছে একটি করে শতকও। ৪৮.৪০ গড়ে ৩২ ইনিংসে রিজওয়ানের সংগ্রহ ১০৬৫ রান। অধিনায়ক বাবর ৫৬ ইনিংসে ৪৬.৮৯ গড়ে করেছেন ২২০৪ রান।

আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে ভারত-নিউজিল্যান্ড-আফগানিস্তান সহ পাকিস্তানের প্রতিপক্ষগুলোকে তাই আলাদা করে ছক কষতে হবে এ জুটির জন্য। তবে এ জুটিকে শুরুতেই থামিয়ে দেওয়া দুঃসাধ্য এক কাজ হবে বটে!

টি-২০ বিশ্বকাপের আগে পাকিস্তানের সূচিতে দুইটি টি-২০ সিরিজ থাকলেও মাঠে গড়াচ্ছে না একটিও। নিরাপত্তা ইস্যুতে পাকিস্তান সফর বাদ করেছে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। তাই প্রস্তুতিটা শতভাগ সম্পন্ন হয়নি তাদের। তবু বিশ্বকাপের মঞ্চে ভালো পারফর্ম করার সামর্থ্য আছে বাবর আজমদের। ব্যাটিং অর্ডারের দুই স্তম্ভ বাবর আজম আর মোহাম্মদ রিজওয়ানের সাম্প্রতিক অসাধারণ পারফরম্যান্স বাড়িয়েছে পাকিস্তানের সম্ভাবনা। ছন্দ ধরে রাখতে পারলে বিশ্বকাপও কাঁপবে বাবর-রিজওয়ানের ব্যাটে।

দুজনের মাঝে বোঝাপড়াটা চমৎকার। দারুণ জুটি গড়ার জন্য এটাই তো পূর্বশর্ত। বোঝাপড়াটা কতটা ভালো সেটা বোঝা যায় রানিং বিটউইন দ্যা উইকেটের দিকে তাকালে। বাবর নিজেই বলেছিলেন, “আমাদের একে অপরের ওপর বিশ্বাস আছে। তাই যখনই বল গ্যাপে যায় আমরা দুই রানের জন্য দৌড়াই। আমি ক্যারিয়ারের শুরুতে ৮-১০ বার রান আউট হয়েছিলাম। কিন্তু রিজওয়ানের সাথে আমার বোঝাপড়াটা সত্যিই খুব ভালো।”

এ দুজন পাওয়ারপ্লের ছয় ওভারও কাজে লাগাতে পারেন দারুণভাবে। বেপরোয়া ব্যাটিং নয়, দুর্দান্ত ও নান্দনিক সব শট খেলে প্রভার তিপক্ষের আত্মবিশ্বাস শুরুতেই দুমড়ে মুচড়ে দেন এ জুটি। জুটি লম্বা করার পাশাপাশি এ জুটি রানও তোলে ঝড়ের বেগে।

এখন পর্যন্ত দশ ইনিংসে ওপেনিং করে বাবর-রিজওয়ান জুটি রান তুলেছে ৫০২। পাকিস্তানের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-২০ তে সব মিলিয়ে ৪৬ টি ওপেনিং পেয়ার এখন পর্যন্ত দেখা গেলেও একমাত্র বাবর-রিজওয়ান জুটিই পাঁচশ রানের চৌকাঠ অতিক্রম করতে পেরেছেন। রানের হিসেবে দ্বিতীয় স্থানে থাকা বাবর আজম ও ফখর জামানের জুটি ১৯ ইনিংসে রান তুলেছে ৪৮৯। এছাড়া ইমরান নাজির ও মোহাম্মদ হাফিজের ওপেনিং জুটি ১২ ইনিংসে তুলেছে ৩৮৫ রান।

শুধু রান নয়, গড়ও সাক্ষ্য দিচ্ছে বাবর-রিজওয়ানরাই সফলতম। এ জুটি ছাড়া পাঁচ ইনিংসের বেশি ওপেনিং করেছে পাকিস্তানের এমন কোনো জুটির গড় ৫০ পার হয়নি। বাবর-রিজওয়ানের জুটির গড় ৫২.১০, ওভারপ্রতি রান তোলার হার ৯.১৬।

১০ ইনিংসের মধ্যে এ জুটি শতরান অতিক্রম করেছে দুইবার। এ বছর সেঞ্চুরিয়নে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে গড়া তাদের ১৯৭ রানের জুটিটি শুধুমাত্র তাদেরই সর্বোচ্চ নয়, পাকিস্তানের ইতিহাসেরই সর্বোচ্চ।

দুজনের ব্যক্তিগত পরিসংখ্যানও বেশ সমৃদ্ধ। দুজনের স্ট্রাইক রেটই ১৩০-এর আশেপাশেই। দুজনেরই আছে একটি করে শতকও। ৪৮.৪০ গড়ে ৩২ ইনিংসে রিজওয়ানের সংগ্রহ ১০৬৫ রান। অধিনায়ক বাবর ৫৬ ইনিংসে ৪৬.৮৯ গড়ে করেছেন ২২০৪ রান।

আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে ভারত-নিউজিল্যান্ড-আফগানিস্তান সহ পাকিস্তানের প্রতিপক্ষগুলোকে তাই আলাদা করে ছক কষতে হবে এ জুটির জন্য। তবে এ জুটিকে শুরুতেই থামিয়ে দেওয়া দুঃসাধ্য এক কাজ হবে বটে!


বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।