বিশ্বকাপ থেকে বাদ: মাশরাফির কাছে ‘শাপেবর’

0
608

২০১১ বিশ্বকাপে ঘরের মাঠে মাশরাফি বিন মুর্তজার খেলতে না পারাটা এখনো অনেকের কাছে বড় আফসোসের স্মৃতি হয়ে আছে। কিন্তু মাশরাফি নিজে এটাকে শাপেবর হিসাবে দেখেন। নিজ দেশে বিশ্বকাপ খেলতে না পারার আফসোস থাকলেও সেখান থেকে ইতিবাচক দিকটায় খুঁজে নিয়েছেন সাবেক অধিনায়ক।

বিশ্বকাপ থেকে বাদ মাশরাফির কাছে 'শাপেবর'

Advertisment

মাশরাফির ক্যারিয়ারের অধিকাংশ সময় কেটে গিয়েছে চোটের সাথে লড়াই করতে করতে। তবুও প্রতিবার ফিরে এসেছেন স্বরূপে, লড়েছেন বুক চিতিয়ে। তবুও ২০১১ বিশ্বকাপে তার ওপর ভরসা রাখা হয় না। বিশ্বকাপের আগে চোটে পড়লেও সুস্থ হওয়ার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করেন; পান চিকিৎসকের ছাড়পত্রও কিন্তু দলে খেলার জন্য আর ছাড়পত্র পাননি।





তামিম ইকবালের ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে এসে সেই গল্প শোনান মাশরাফি, ‘যখন শুনলাম ২০১১ বিশ্বকাপ বাংলাদেশে হবে তখন একটা স্বপ্ন ছিল। বিশ্বকাপ একটা খেলোয়াড়ের জন্য অনেক কিছু আর বাংলাদেশে হবে সেটা খেলবো স্বপ্ন। তার কয়েক দিন আগে চোট থেকে ফিরে ঢাকা লিগে আবার পড়ে যেয়ে চোট পাওয়ার পরেও ভাবিনি বিশ্বকাপ খেলবো না। লিগামেন্ট পুর ছিড়েছিল না। তারপর যখন শ্রীলঙ্কায় গেলাম, ডাক্তার বললো খেলতে গেলে লিগামেন্ট ছিড়ে যেতে পারে। তারপর ডাক্তার অনুমতি পাঠালো, আমিও রাজি ছিলাম খেলতে কিন্তু আমাকে নেয়নি।’

বিশ্বকাপ চলাকালীন পৃথিবীর আলো দেখে মাশরাফি প্রথম সন্তান। যখন কিনা তার স্ত্রী ও সন্তান উভয়ের অবস্থা অবনতির দিকে ছিল। বিশ্বকাপ খেলতে না পারার উছিলায় সেই সময়ে পরিবারের কাছে থাকার সুযোগ পাওয়ায় ইতিবাচক দিক খুঁজে নিয়েছেন এই পেসার।






জানান এখন আফসোসের থেকে তার কাছে ভালো লাগার পরিমাণটা বেশি, ‘এটা বলবো না যে আফসোস, খারাপ লাগা নেই। অবশ্যই আফসোস আছে। কিন্তু আমি কাউকে কখনো দোষারোপ করিনি আর করবোও। দক্ষিণ আফ্রিকার সাথে যেদিন বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ ছিল বিশ্বকাপে, ওইদিন আমার স্ত্রীকে ক্লিনিক্যালি ডেড বলা হয়েছিল। ওইসময় আমার মেয়েটা হয়েছিল। ডাক্তার বলেছিল, ৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রে এই সময় মা বাঁচে না। মেয়ের তখন কেবল ৭ মাস। বাচ্চার জন্যও সংশয় ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরের দিন অস্ত্রোপচার করা হলো। এখন মনে হয়, যদি সেদিন আমি বাসায় না থাকতাম তাহলে ওকে হাসপাতালেও নিতে পারতাম না। আল্লাহই জানে কী হতো তাহলে! তাই খারাপ লাগার থেকে এখন ভালো লাগাটা বেশি ওইটা চিন্তা করলে। হয়তো এইজন্যই আল্লাহ চাননি যে আমি ওই বিশ্বকাপটা খেলি। হয়তো বা এই উছিলায় আমার পরিবারকে আমি ফিরে পেয়েছি। আল্লাহ যা কিছু করেন ভালোর জন্যই করেন।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।