Scores

বিশ্বাস-ই তামিমের সাফল্যের রহস্য

বেশ লম্বা সময় পরে তামিম ইকবালের ব্যাট থেকে দ্রুত গতিতে রান তোলা ও বড় ইনিংসের দেখা মিলিছে মঙ্গলবার (৩ মার্চ) জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে। আপাত দৃষ্টিতে তার ব্যাটিংয়ের ধরণ ভিন্ন দেখালেও তিনি তা মানছেন না। তবে এই বড় ইনিংসের সাফল্যের রহস্য জানিয়েছেন তামিম।

সাফল্যের রহস্য জানালেন তামিম
তামিম ইকবাল। ছবি- বিডিক্রিকটাইম।

ব্যাটে রান খরা ও ধীর গতিতে ব্যাটিং নিয়ে বেশ চাপে ছিলেন তা অকপটেই স্বীকার করেছেন তামিম। কিন্তু তার কৌশলগত দিকে যে কোনো ভুল ছিল না তা ভালো করেই জানতেন। তাই বড় ইনিংস যেকোনো সময় আসবে এই বিশ্বাস নিয়ে খেলে যাচ্ছিলেন তিনি।

তামিম বলেন, ‘একটু চাপে তো অবশ্যই ছিলাম। এটা না বললে মিথ্যা কথা হবে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়, আমি ব্যাটিং খুব ভালো করছিলাম, হয়ত এইরকম বড় ইনিংস খেলতে পারছিলাম না। আমি অনুশীলনেও ভালো করছিলাম । একটা বিশ্বাস অবশ্যই ছিল, বড় ইনিংস খেলতে পারব কিন্তু দুর্ভাগ্য যে অনেক দিন ধরেই হচ্ছিল না।’

Also Read - পেরির কান্নায় কাঁদলো ক্রিকেট বিশ্ব


নিজের পূর্বের রেকর্ডকে ছাপিয়ে দেড় শতাধিক রানের ইনিংস উপহার দিয়েছেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তবে এতেই সন্তুষ্ট হয়ে থেমে যাচ্ছেন না তিনি। এই ধারাটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চান তামিম, ‘এটা কিছুই না, যেহেতু একটা সুন্দর শুরু হয়েছে আমি এটা ধরে রাখতে চাই। যদিও সবসময় ভালো করার চেষ্টা করি, কিন্তু সম্ভব হয়ে উঠে না । আর এভাবেই চেষ্টা করে যাব। দেখা যাক কি হয়।’

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচেও ৪৩ বলে ২৪ রান করে ফিরেছিলেন সাজঘরে। তবে পরের ম্যাচেই দেখা যায় সেই আগের তামিমকে। ১৩৬ বলে ২০টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ১৫৮ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন তিনি। স্বাভাবিকভাবেই মনে হয়েছিল, সাম্প্রতিক সময়ের থেকে কিছুটা ভিন্নভাবে ব্যাটিং করেছেন এই ব্যাটসম্যান, তবে তিনি বলছেন কিছুই পরিবর্তন করেননি।

ভাগ্যও গতকাল তামিমকে সাহায্য করেছে জানিয়ে তিনি বলেন , ‘সত্যি কথা বলতে আমি কিন্তু কালকে কোনো কিছুই ভিন্ন কিছু করিনি। সুবিধা হয়েছে যে প্রথমে আমি কয়েকটা বাউন্ডারি বেশি পেয়ে গেছি। ওভারে দুটো বল হয়ত ফ্লিক করে দিয়েছি। তাছাড়া কিন্তু ঐভাবে ভিন্ন কিছু খেলিনি। অনেক সময় হয় যে ফাঁকায় পড়ে গেছে বলে বাউন্ডারি হচ্ছে, কিন্তু একই ব্যাটিং অন্যদিন সেটা হয়নি বলে বাউন্ডারি হয়নি।

তিনি আরও বলেন, ‘কাল বল আর রান প্রায় সমান সমান চলছিল বলে মনে হয়েছে পরিবর্তন এনেছি কিন্তু তা নয়। যেটা আমি সবসময়ই যে মানসিকতা নিয়ে ব্যাটিং করি সেটাই করেছি। আমার মনে হয় ইতিবাচক চিন্তা নিয়ে খেলতে নামলে সব ভালোই হয়।’

এই দুর্দান্ত ফেরার পেছনে টিম ম্যানেজমেন্ট ও সতীর্থদের অবদানের কথা জানিয়েছেন তামিম। তিনি হতাশ হলেও সতীর্থরা ও টিম ম্যানেজমেন্ট তাকে সাহস যুগিয়েছে, তার প্রতি বিশ্বাস রেখেছে বলে কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছেন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

অস্ট্রেলিয়ায় ভারতের দিবারাত্রির টেস্ট চূড়ান্ত

আইসিসিকে ভারতের পাল্টা হুমকি

বিশ্বকাপের ম্যাচ ‘ইচ্ছা করে হেরেছিল’ ধোনি

আইসিসি ক্রিকেটকে শেষ করে দিচ্ছে: শোয়েব

বোলারদের ‘মাস্ক’ পরে খেলার পরামর্শ মিসবাহর