Scores

বিয়ের আগেও গোছানো ছিলাম : সাব্বির

বলা হয়ে থাকে, বিয়ে মানুষের জীবনে অনেক পরিবর্তন নিয়ে আসে। ক্রিকেটার সাব্বির রহমানের ক্ষেত্রেও তাই। তবে বিয়েকে নিজের জীবন গোছানোর কারণ হিসেবে দেখেন না তিনি। বরং সাব্বির মনে করেন, তার জীবন আগে থেকেই গোছানো ছিল। প্রিয়তমা মালিহা তাসনিম অর্পাকে বিয়ের পর পরিপূর্ণতা পেয়েছে তার জীবন।

বিয়ের আগেও গোছানো ছিলাম সাব্বির

সম্প্রতি বিডিক্রিকটাইমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সাব্বির খুলে দেন তার জীবনের ‘দ্বিতীয় ইনিংস’ তথা বিয়ে পরবর্তী জীবনের গল্পের ঝুলি। তিনি মনে করেন, বিয়ের পর জীবনে যে পূর্ণতা আসে তা প্রত্যেকের জন্যই জরুরী।

Also Read - মাঠে দর্শকদের কৃত্রিম আওয়াজ চান আর্চার







সাব্বির বলেন, ‘বিয়ে আল্লাহর একটা নেয়ামত। অশেষ রহমতের জিনিস। বিয়ে না করলে মানুষ অনেক কিছুই বুঝতে পারে না। বিয়ে এমন একটা আশীর্বাদ যেটা নিজে করার আগে কেউ বুঝতে পারে না যে মানুষ কেন বিয়ে করে।’

তবে সাব্বির মনে করেন, বিয়ের আগে অগোছালো বা অনিয়ন্ত্রিত ছিলেন না তিনি। জানান, ‘আমি ব্যাচেলর ছিলাম, তবে তখন অগোছালো ছিলাম না। প্রত্যেক ব্যাচেলরই কিন্তু অগোছালো না। গোছালোও থাকে অনেকে। আমি আগে থেকেই গোছালো। এমন নয় বিয়ের পর গোছালো হয়েছি। বিয়ের আগের ছয় বছর ও (স্ত্রী) আমার পরিচিত ছিল। ও জানে আমি কেমন ছেলে, কী পছন্দ করি বা না করি। সে আমার সবই জানে।’





সাব্বিরের সাথে অর্পার সম্পর্ক ছিল দীর্ঘদিন। তবে সেই সম্পর্ক পূর্ণতা পেয়েছে বিয়ের মাধ্যমে। বিয়ের আগের সাব্বিরের সাথে ‘স্বামী’ সাব্বিরকে কীভাবে মানিয়ে নিয়েছেন অর্পা? ক্রিকেটের মত জীবনেও পার্টনারশিপ কতটা গুরুত্বপূর্ণ, সেই দিক তুলে ধরে সাব্বির বলেন, ‘বিয়ের আগে তো একসাথে ছিলাম না। বিয়ের পর একসাথে থাকছি। এখন আমাকে আরও ভালো জানতে পারছে। ক্রিকেটে যেমন পার্টনারশিপ গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি জীবনেও। বাবা-মা তো আছেন, ভাই-ব্রাদার, বন্ধুবান্ধবরা আছেন। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্ত্রী। আমার কাছে সে আশীর্বাদস্বরূপ। জীবন আগেই গোছানো ছিল, তবে ও আসার পর পরিপূর্ণতা পেয়েছে।’

করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউনে ঘরে বসে অনেকেই এমন সব কাজ করছেন, যা সচরাচর করা হয় না। অনেক ক্রিকেটার রান্নায় হাত পাকাচ্ছেন। সাব্বির অবশ্য রান্নার জন্য স্ত্রীর হাতের দিকেই তাকিয়ে। রান্নার মত কঠিন কাজে তিনি অপটু বলে মনে করেন। তিনি বলেন, ‘আমি তো ছেলেমানুষ, রান্না তেমন পারি না। গত দুই মাসে কাছ থেকে দেখেছি। রান্না করা অনেক কঠিন কাজ। যখন রান্না করে তখন সাহায্য করি। মাছ ভাজি, ডাল নেড়ে দিই, ভাত ঠিকঠাক করে দিই, খিচুড়ি রাঁধি। অনেক কঠিন কাজ। চুলার পাশে সারাদিন থাকা অনেক কঠিন। এতদিন এই অভিজ্ঞতা নিলাম। সে অনেক ভালো রান্না করে। প্রতিদিন বিশেষ কিছু রেঁধে খাওয়ায়।’

বিয়ের আগেও গোছানো ছিলাম সাব্বির

ক্রিকেট বন্ধের অনাকাঙ্ক্ষিত সময়টা সাব্বির উপভোগ করছেন ধর্ম-কর্ম করে ও পরিবারের সাথে একান্তে মুহূর্তগুলো কাটিয়ে। সাব্বির বলেন, ‘বাসায় থেকে যা যা করা যায় তাই করছি। নামাজ-কালাম পড়ি, পরিবারকে সময় দেই, জিম-রানিং সেশন মেনে চলি। খেলা থাকলে পরিবারকে সময় দেওয়া হয় না, তাই এটা ভালো একটা সুযোগ। আল্লাহর রহমতে এখনো সুস্থ আছি, ভালো আছি।’

অবশ্য করোনা না থাকলেও সাব্বির ক্রিকেটের বাইরের সময়টা ঘরেই থাকতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। সাব্বির বলেন, ‘বিবাহিত জীবনের আগে বন্ধু ছিল চারজন, এখনো তাই। বাইরে আড্ডাবাজি করি না কখনো, কোথাও গিয়ে আড্ডা দেওয়া পছন্দ করি না। (লকডাউনের আগে) বাসায় মাঝেমাঝে বন্ধুবান্ধব আসতো, বাসায়ই আড্ডা দেই।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

সাকিবকে সাইফউদ্দিনের ‘চ্যালেঞ্জ’

২২ গজে ফিরতে প্রস্তুত হচ্ছে বিসিবি

বিদেশে ভালো করার প্রচেষ্টায় তাইজুল

আমার সাথে চরম অন্যায় করা হয়েছে : নাফীস

সপরিবারে করোনামুক্ত নাফিস ইকবাল