Score

বোলিংয়ে উজ্জ্বল তাসকিন, ব্যাট হাতে লড়ছেন তাসামুল

জাতীয় ক্রিকেট লিগে চট্টগ্রাম বিভাগের বিপক্ষে চালকের আসনে রয়েছে ঢাকা মেট্রো। ঢাকা মেট্রো থেকে দ্বিতীয় দিনের খেলাশেষে ১০০ রান পিছিয়ে আছে চট্টগ্রাম বিভাগ। হাতে আছে চারটি উইকেট। বল হাতে ঢাকা মেট্রোর হয়ে আলো চহড়িয়েছেন ডানহাতি পেসার তাসকিন আহমেদ। ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রাম বিভাগের হয়ে দৃঢ়তার সাথে লড়াই করছেন চট্টগ্রাম বিভাগের তাসামুল হক।

বোলিংয়ে উজ্জ্বল তাসকিন
৩ উইকেট শিকার করেছেন তাসকিন।

 

৬ উইকেটে ২৬৬ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করে ঢাকা মেট্রো। ২১ রান করে তাসকিন আহমেদ এবং ৭৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন জাবিদ হোসেন। দ্বিতীয় দিনও জাবিদ ও তাসকিন মিলে শুরুটা করেছিলেন ভালোই। দলীয় ২৮৫ রানের মাথায় তাদের জুটি ভাঙেন মেহেদি হাসান রানা। এ বাঁহাতি পেসারের বলে এলবিডব্লিউ হন জাবিদ।

Also Read - দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ স্টুয়ার্ট ল

মাত্র ১০ রানের জন্য শতক থেকে বঞ্চিত হন জাবিদ। ১৮৩ বল খেলে ৯০ রানের ইনিংস খেলে সাজঘরে ফিরে যান জাবিদ। পরের ওভারেই আসকিন আহমেদকে ফিরিয়ে দেন স্পিনার নাঈম হাসান। ২৯ রান করেন তাসকিন। শেষ দুই ব্যাটসম্যান আরাফাত সানি এবং শহিদুল ইসলাম বিদায় নেন রানের খাতা খোলার আগেই। ২৮৭ রানে গুটিয়ে যায় ঢাকা মেট্রো। ৫১ রান করে অপরাজিত থাকেন রিটায়ার্ড হার্ট হওয়া শামসুর রহমান।

জবাবে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতে উইকেট হারায় চট্টগ্রাম বিভাগ। ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই আঘাত হানেন তাসকিন আহমেদ। তাসকিনের বলে চট্টগ্রাম বিভাগের ওপেনার সাদিকুর রহমান ক্যাচ দেন শহিদুল ইসলামের হাতে। ২ রানের মাথায় প্রথম ইকেট হারায় চট্টগ্রাম বিভাগ।

দ্বিতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন পিনাক ঘোষ এবং অধিনায়ক মুমিনুল হক। ৪৫ রানের জুটি গড়েন দুজন। থিতু হলেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি পিনাক ঘোষ। ৫৬ বল খেলে মাত্র ১২ রান করে আরাফাত সানির শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন পিনাক ঘোষ। এরপর ইয়াসির আলির সাথে মুমিনুল হকের জুটি দীর্ঘ হতে দেননি মোহাম্মদ আশরাফুলআশরাফুলের বলে শরীফুল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মুমিনুল। ৫ চারের সাহায্যে ৬১ বলে ৩৪ রান করেন মুমিনুল হক।

তাসামুল হককে সাথে নিয়ে ৩৬ রানের জুটি গড়েন ইয়াসির আলি। তাদের জুটি ভাঙেন তাসকিন আহমেদ। ইয়াসির আলিকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন তাসকিন আহমেদ। ৬৬ বলে ২৯ রান করে বিদায় নেন ইয়াসির আলি। ঐ ওভারেই তাসকিন আহমেদ ফিরিয়ে দেন মাহদিল ইসলাম অঙ্কনকে। রানের খাতা খোলার আগেই এলবিডব্লিউ হন মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন। এক ওভারে দুই উইকেট শিকার করে চট্টগ্রাম বিভাগকে বিপাকে ফেলে দেন তাসকিন।

১০২ রানে পাঁচ উইকেট হারায় চট্টগ্রাম বিভাগ। নাঈম হাসানকে সাথে নিয়ে ৩৩ রান যোগ করেন তাসামুল হক। এক প্রান্ত আগলে রাখা তাসামুল হক তুলে নেন অর্ধশতক। ৩৭ বলে ৮ রান করে শহিদুল ইসলামের বলে নাঈম হাসান বোল্ড হলে এ জুটি ভাঙে। মেহেদি হাসান রানাকে সাথে নিয়ে সপ্তম উইকেটে প্রতিরোধ গড়েছেন তাসামুল হক। গড়েছেন ৫২ রানের নিরবিচ্ছিন্ন জুটি।

৯ চার ও ১ ছক্কা হাঁকানো তাসামুল হক ১৪৪ বল মোকাবেলা করে ৮১ রান করে অপরাজিত আছেন। অপর প্রান্তে থাকা মেহেদি হাসান রানা ৭২ বলে ১৫ রান করে অপরাজিত থাকেন। ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান করেছে চট্টগ্রাম বিভাগ।

ঢাকা মেট্রোর হয়ে তিনটি উইকেট শিকার করেছেন তাসকিন আহমেদ। মোহাম্মদ আশরাফুল, আরাফাত সানি এবং শহিদুল ইসলাম পেয়েছেন একটি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ দ্বিতীয় দিনশেষে,

ঢাকা মেট্রো ২৮৭/১০, ১০৪.৫ ওভার
জাবিদ ৯০, শামসুর ৫১,  শরীফুল্লাহ ৪৫*
নাঈম হাসান ৩/৭৪, শাখাওয়াত ২/৩৬, রানা ২/৩১

চট্টগ্রাম বিভাগ ১৮৭/৬, ৭৪ ওভার
তাসামুল হক ৮১*, মুমিনুল ৩৪, ইয়াসির ২৯
তাসকিন ৩/৪৬, আশরাফুল ১/৩০, শহিদুল ১/৩২


আরো পড়ুনঃ  বাট-আসিফের জন্য জাতীয় দলের দরজা বন্ধ!


 

Related Articles

শতক হাঁকালেন শামসুর রহমান

মুমিনুলের শতকে সহজে জিতল চট্টগ্রাম

তাসকিন-নাঈমের পাঁচ, জাকির-রাজিনের অর্ধশতক

মুমিনুলকে ফেরালেন আশরাফুল

‘বাংলাদেশ এখন বিশ্বের সেরা পাঁচ-ছয়টি দলের একটি’