ব্যাটসম্যান নিয়ম ভাঙলে পাঁচ রান জরিমানা করে দিন : মুরালি

0
486

ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক জনপ্রিয় টি-টোয়েন্টি লিগ আইপিএল শুরু হওয়ার আগেই মানকাডিং ইস্যু নিয়ে সরব ক্রিকেটাররা। মানকাডিং রুখতে এবার এই ইস্যুতে কথা বলেছেন শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তী এবং সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বোলিং কোচ মুত্তিয়া মুরালিধরন।

Advertisment

গত বছর কিংস এলেভেন পাঞ্জাব এবং রাজস্থান রয়্যালসের ম্যাচ চলাকালীন নন-স্ট্রাইকে থাকা জস বাটলারকে মানকাডিং আউট করে বিতর্কের সৃষ্টি করেছিলেন কিংস এলেভেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক রবি অশ্বিন। সেবার তাকে ঘিরে তুমুল আলোচনা এবং সমলোচনা হয়েছিল। অনেকেই অশ্বিনের পক্ষে কথা বলেছেন আবার অনেকেই বাটলারের পক্ষে।

এবারও উঠে এসেছে মানকাডিংয়ের ইস্যুটি। দিল্লির কোচ রিকি পন্টিং তো এর বিরোধিতাই করেছেন। কয়েকদিন আগেও মানকাডিং ইস্যুতে দ্বিমত পোষণ করেছিলেন দিল্লির কোচ পন্টিং এবং অশ্বিন। এবার এই ইস্যু নিয়ে মুখ খুলেছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বোলিং কোচ মুরালি। তার মতে ব্যাটসম্যান কেন অন্যায়ভাবে সুবিধা নিবে।

“আমার মনে হয়, বোলারের উচিত, ব্যাটসম্যানকে একবার সতর্ক করে দেওয়া। আবার এটাও বলব, ব্যাটসম্যান কেন ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে গিয়ে অন্যায় সুবিধে নেবে?”

মুরালিধরন ব্যাটসম্যানকে সতর্ক করার কথা বললেও মানকাডিং বন্ধের উপায়ও বলে দিয়েছেন তিনি। মুরালি মনে করেন পাঁচ রান জরিমানার নিয়ম আনলেই মানকাডিং হবে না।

“যদি আম্পায়ার দেখতে পান, ব্যাটসম্যান আগেই ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে যাচ্ছে, তা হলে পাঁচ রান জরিমানা করে দিন ব্যাটিং দলকে। এই নিয়ম চালু হলে ব্যাটসম্যানও ক্রিজ ছেড়ে বেরোবে না। বোলারকেও আর মানকাড আউট করতে হবে না। বিতর্কও শেষ।”

করোনাভাইরাসের কারণে এবারের আইপিএল ভারত থেকে সরিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আনা হয়েছে। এমনকি ম্যাচগুলো আয়োজন হবে দর্শকবিহীন। ঘরের মাঠের দর্শকদের সমর্থন মিস করবেন মুরালিধরন।

“দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে খেলতে স্বাভাবিকভাবেই একটা মোটিভেশনের অভাব হয়। হায়দরাবাদ হোম সাপোর্টকে কাজে লাগিয়ে বরাবর ভাল ফল পেয়েছে। এবার সেই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে।”

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।