বড় বিপদের হাত থেকে রক্ষা পেলেন সাকিব

পাকিস্তানের বিপক্ষে দল যখন অলিখিত সেমিফাইনালে লড়ছে তখন হাতের ব্যথার তীব্রতা নিয়ে দেশের পথে রওনা করেন সাকিব আল হাসান। দেশে ফিরে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করলে এক প্রকার বাধ্য হয়েই স্থানীয় হাসপাতালে একটি অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে যেতে হয় তাকে। বিষয়টি নিশ্চিত করে সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন তিনি।

সিদ্ধান্ত সাকিবের উপরেই ছেড়ে দিল বিসিবি
ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে আঙুলে চোট পান সাকিব। ফাইল ছবি

 

বুধবার দেশে ফিরে কথা ছিল পরদিন মেলর্বোন কিংবা আমেরিকাতে যাত্রা করবেন হাতের অস্ত্রোপচার করাতে। তবে হাতের অবস্থা এতটা প্রকট আকার ধারণ করেছিল যে এক প্রকার বাধ্য হয়েই দেশে অস্ত্রোপচার করাতে হয়েছে সাকিবকে।

বুধবার ব্যথার তীব্রতা আরও প্রকট আকার ধারণ করলে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি হন সময়ের অন্যতম সেরা এ অলরাউন্ডার। এসময় কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দেখা যায় তার হাতের বর্তমান অবস্থা সুবিধেজনক নয়। তাই এদিনই হাতে করানো হয় একটি অস্ত্রোপচার।

Also Read - টাইগারদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী

হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন সাকিব।
হাসপাতালে চিকিৎসারত আছেন সাকিব।

ইনফেকশনের কারণে আঙ্গুলের ভিতর জমে যাওয়া পুঁজ বের করে আনা হয় এ অস্ত্রোপচারে। প্রায় ৬০-৭০ সে.মি. পুঁজ আঙ্গুলের ভিতর জমে গিয়েছিল বলে নিশ্চিত করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের নামে সত্যায়িত করা পাতায়  নিজের বর্তমান অবস্থার কথা ব্যক্ত করেছেন তিনি।

আরও একটি অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে খুব শীঘ্রই তাকে যেতে হবে উল্লেখ করে এসময় সকলের কাছে দোয়া চেয়ে তিনি আরও যোগ করেন,

“হাতের ব্যাথায় যখন দল ছেড়ে দেশে ফিরছি তখনও বুঝতে পারিনি এত খারাপ পরিস্থিতির সম্মুখিন হতে হবে।
দেশে আসার পর প্রচন্ড ব্যাথা অনুভব ও হাত অস্বাভাবিক রকম ফুলে যাওয়ায় দ্রুত হসপিটালে এডমিট হয়ে একটি সার্জারী করাতে হয়েছে। আঙ্গুলের ভেতর ইনজেকশনের ফলে ৬০-৭০ সে: মি: পুঁজ বের করতে হয়েছে। আপনাদের দোয়াই খুব অল্পের জন্য বড় ধরণের বিপদ থেকে এই যাত্রায় রক্ষা পেয়েছি তবে দ্রতই আরও একটি সার্জারী করাতে হবে। আপনারা সকলের দোয়া প্রার্থনা করছি। আপনারদোর দোয়া ও ভালবাসায় দ্রুত সুস্থ হয়ে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধিত্ব করতে পারি। ধন্যবাদ।”


আরও পড়ুনঃ
টাইগারদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী