বড় হারে ধবলধোলাই শ্রীলঙ্কা

0
315

ওয়ানডে সিরিজে ধবলধোলাই হলেও টি-টোয়েন্টি সিরিজে এসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আবারো ঠিকই প্রমাণ করে দিয়েছে এই সংস্করণটাকে কেন তাদের খেলা বলা হয়। সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার দেয়া ১৫৬ রানের লক্ষ্য ৭ উইকেট ও ১৮ বল হাতে রেখেই টপকে গেছে ক্যারিবিয়ানরা।

বড় হারে ধবলধোলাই শ্রীলঙ্কা

Advertisment

পাল্লেকেলেতে টস জিতে শ্রীলঙ্কাকে আগে ব্যাটিং করার জন্য আমন্ত্রণ জানায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরুটা ভালো করতে ব্যর্থ হয় স্বাগতিকরা। দলীয় ১৬ রানে প্রথম উইকেট হারায় তারা। তারপর দলীয় ৪৮ রানে জোড়া আঘাত হানেন ফ্যাবিয়ান অ্যালেন। দ্রুতই টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে লঙ্কানরা।

নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকা শ্রীলঙ্কা নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে সংগ্রহ করে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৫৬ রান। শেষ চার ওভারে থিসারা পেরেরা ও দাসুন শানাকা জুটি যোগ করে ৪৬ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩১ রান করেন (২৪ বল) শানাকা। থিসারার ব্যাট থেকে আসে ১৩  বলে ২১ রান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে দুইটি উইকেট শিকার করেন অ্যালেন।

জবাবে ২৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় সফরকারীরা। তবে ব্রেন্ড কিং ও আন্দ্রে রাসেলের ঝড়ো ইনিংসে জয় পেতে কোনো বেগ হয়নি তাদের। লাহিরু কুমারার শিকার হওয়ার আগে কিং করেন ২১ বলে ৪৩ রান। ব্যাট হাতে স্বভাবসুলভ ঝড় তোলেন রাসেল; করেন ১৪ বলে অপরাজিত ৪০ রান। এছাড়া শিমরণ হেটমায়ার অপরাজিত থাকেন ৪২ বলে ৪৩ রান করে।

৩ ওভার বাকি থাকতেই ৭ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে ক্যারিবিয়ানরা। এই জয়ে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কাকে ধবলধোলাই করল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

এই হারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কার পরাজিত ম্যাচের সংখ্যা হলো ৬৫টি। তারপরেই লজ্জার এই রেকর্ডে যৌথভাবে আছে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দুই দলেরই হারের সংখ্যা ৬২টি করে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

শ্রীলঙ্কা ১৫৫/৬ (২০ ওভার)
শানাকা ৩১*, পেরেরা ২১*;
অ্যালেন ২/২৪।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৫৬/৩ (১৭ ওভার)
কিং ৪৩, হেটমায়ার ৪৩*, রাসেল ৪০*;
শানাকা ১/১০।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭ উইকেটে জয়ী।