ভারতের কলকাঠিতে পাকিস্তান সফর প্রত্যাহার মালিঙ্গা-পেরেরাদের!

0
444

খুব কাঠখড় পুড়িয়ে শ্রীলঙ্কা দলকে পাকিস্তানে সিরিজ খেলার বিষয়ে রাজি করিয়েছিলো পিসিবি (পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড)। তবে শেষ মুহূর্তে এসে বেশ কয়েকজন লঙ্কান তারকা ক্রিকেটার পাকিস্তান সফর করতে অস্বীকৃত জানান। মালিঙ্গা-ম্যাথুসদের না যেতে চাওয়ার পিছনে ভারতের হাত দেখছেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী ফাওয়াদ হোসেন চৌধুরী।

মালিঙা-পেরেরা

Advertisment

ঘরের মাঠে পাকিস্তান যেন হয়ে পড়েছে নির্বাসিত। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলকে লক্ষ্য করে হওয়া সন্ত্রাসী হামলার পর থেকেই পাকিস্তান গিয়ে খেলতে আগ্রহী হয়না কোন দল। মাঝে জিম্বাবুয়ে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ খুব অল্পপরিসরে সফর করে আসলেও পূর্ণাঙ্গভাবে ক্রিকেট ফেরাতে সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছে পিসিবি। যেখানে পাকিস্তান বোর্ডের লক্ষ্য শ্রীলঙ্কা দলের সাথে সীমিত ওভারের অন্তত দুইটা সিরিজ আয়োজন করা।

এমতাবস্থায় সবকিছু চলছিলো ঠিকঠাকই। তবে সিরিজ শুরুর আগ দিয়ে হঠাৎ করে বেঁকে বসলেন শ্রীলঙ্কা দলের কয়েকজন তারকা ক্রিকেটার। নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে লাসিথ মালিঙ্গা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, দীনেশ চান্দিমাল, সুরাঙ্গা লাকমল, দিমুথ করুনারত্নে, থিসারা পেরেরা, আকিলা ধনঞ্জয়া, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, কুশল পেরেরা এবং নিরোশান ডিকওয়েলা সহ ১০ জন ক্রিকেটার প্রত্যাহার করে নিলেন নিজেদের নাম।

এতোজন ক্রিকেটারের এভাবে সরে যাওয়ার পিছনে ভারতের ইন্ধন দেখছেন পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ফাওয়াদ হোসেন চৌধুরী। মন্ত্রীর দাবি পাকিস্তান সফর করলে ক্রিকেটারদের আইপিএল খেলতে দেওয়া হবে না হুমকি দিয়ে তাদেরকে পাকিস্তান সফরে আসা থেকে বিরত রাখা হচ্ছে।

এই প্রসঙ্গে ফাওয়াদ হোসেন বলেন, ‘ঘটনা সম্পর্কে অবহিত একজন ধারাভাষ্যকার আমাকে জানিয়েছেন যে ভারত শ্রীলঙ্কার খেলোয়াড়দের হুমকি দিয়েছে। ক্রিকেটাররা যদি পাকিস্তান সফরে অস্বীকৃতি না জানান, তবে আইপিএলের পরবর্তী আসর থেকে বাদ দেয়া হবে তাদের। এটা আসলেই খুবই নিচু মানসিকতা, উগ্র জাতীয়তাবাদ।’

প্রসঙ্গত, আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে পাকিস্তানে সমান তিন ম্যাচের দুইটি ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার কথা আছে শ্রীলঙ্কার।