Score

“ভালো করার স্পৃহা থাকতে হবে”

ওয়ানডে ক্রিকেটের ছন্দটা বাংলাদেশ রপ্ত করেছে ভালোই। নিদাহাস ট্রফি আর সর্বশেষ উইন্ডিজ সিরিজের কথা বিবেচনা করলে, ধীরে ধীরে আয়ত্তে আসছে টি-২০ ফরম্যাটটাও। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটে এখনও বাংলাদেশের পারফরম্যান্স নড়বড়ে। এজন্য ঘরোয়া ক্রিকেটের মান বৃদ্ধির তাগিদ জানিয়ে আসছে ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।

“ভালো করার স্পৃহা থাকতে হবে”

কিন্তু কীভাবে বাড়বে ঘরোয়া ক্রিকেটের মান? কিংবা কীভাবেই বা আরও ফলপ্রসূ করা যাবে ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটকে?

সেই উত্তর মিলেছে বাংলাদেশ দলের বাঁহাতি ওপেনার এবং দেশসেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালের কথায়। তার অভিমত, খেলোয়াড়েরা ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করার ইচ্ছা বাড়ালে এবং চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলে বাড়তে থাকবে সাদা পোশাকে সাফল্যের হার।

Also Read - শেষ টি-টোয়েন্টিতেও আইরিশদের বড় সংগ্রহ

তামিম বলেন, ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে অনেকে অনেক ধরনের কথা বলেআপনি সব সুযোগ-সুবিধা দিতে পারেন, কিন্তু খেলোয়াড়দের মধ্যে যদি চ্যালেঞ্জটা না থাকে, তাহলে কোনো লাভ নেইভালো করার স্পৃহা থাকতে হবে।’

কন্ডিশন যা-ই হোক, বিদেশের মাটিতে খেলতে গেলে সুবিধা না থাকার বিষয়টিকে নিতে হবে চ্যালেঞ্জ হিসেবে। তামিম বলেন, বোলিংয়ের কথা যদি বলি, বোলারদের লম্বা স্পেলে বোলিংয়ের চেষ্টা থাকতে হবেএটা নিজের সঙ্গে নিজের চ্যালেঞ্জ, কী আমার পক্ষে আছে, আর কী নেইএসব না ভেবে ভালো করার চেষ্টা করা উচিতওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আমাদের প্রথম টেস্টের কথাই ধরুন, আমরা তো সেখানে গিয়ে বলতে পারি না যে আমাদের ফ্ল্যাট উইকেট দেনকন্ডিশন যেটা ছিল সেটাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেওয়া উচিত ছিল, আমরা নিতে পারিনি।’

তামিম বলেন, এমন অনেক টেস্ট সিরিজ আছে যেগুলো চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে ভালো করেছিঘরোয়া ক্রিকেটেও একই কথা, চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে হবে।’

খেলোয়াড়দের দূরদর্শী চিন্তাভাবনাই সাফল্য এনে দিবে উল্লেখ করে তামিম আরও বলেন, দশজন গড়পড়তা চিন্তা করলে আপনাকে আলাদা চিন্তা করতে হবেভাবতে হবে, এ সংস্করণে এই উইকেটে কীভাবে ভালো করতে পারিপ্রত্যেকে যদি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেয়, তাহলে সহজ হয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন: আফগানিস্তান সিরিজের জন্য আয়ারল্যান্ড স্কোয়াড ঘোষণা

Related Articles

“শুভেচ্ছা বাংলাদেশ, আমি শোয়েব মালিক!“

বিসিএলে ভালো খেলে দলে ফিরতে চান রাহী

বিসিএলে কে কোন দলে

ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসেও রঙিন রাজিন

বিদায়ের কথা জানাতে গিয়ে অশ্রুসিক্ত রাজিন