ভিক্টোরিয়াকে রুখে দিল মাশরাফির কলাবাগান

ওয়ালটন ঢাকা ডিভিশনাল প্রিমিয়ার লীগ ২০১৫-১৬ আসরের আজকের ম্যাচে ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবকে ৮ রানে হারিয়েছে মাশরাফির কলাবাগান ক্রীড়া চক্র। এই হারের ফলে পয়েন্ট তালিকার পঞ্চমস্থানে নেমে গেল ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব, পক্ষান্তরে ৮ ম্যাচ থেকে ৬ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি তলিকার দশমস্থানে অবস্থান করছে কলাবাগান ক্রীড়া চক্র।

কলাবাগান ক্রিকেট অ্যাকাডেমির টিম মিটিং

প্রথমে ব্যাট করতে গিয়ে সাদমান ইসলাম ও জসিমুদ্দিন উদ্বোধনী জুটিতে ৪৪ রান এনে দেন কলাবাগানকে। তবে এই জুটি বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর কলাবাগানের কিছুটা ছন্দ পতন ঘটে। পরবর্তী ১০ রানের মধ্যেই আরো  ৩ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। সেখান থেকে তাসামুল হক ও মেহরাব হোসেন জুনিয়র দলের হাল ধরেন। তাসামুল ২০০ রান করে ফিরে গেলেও ৮৪ বল মোকাবেলা করে অর্ধ-শতক পূরণ করেন মেহরাব হোসেন।

Also Read - আইপিএলে নিষিদ্ধ হচ্ছেন ক্রিস গেইল?


একপ্রান্তের ব্যাটসম্যানদের আশা-যাওয়া অন্যপ্রান্ত মেহরাব হোসেনের ধৈর্য্যশীল ইনিংস, এভাবেই বাড়তে থাকে ম্যাচের দৈর্ঘ্য। সময় বাড়ার সাথে-সাথে প্রশিক্ষিত সব ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থতা যেন নিজের কাঁধেই চাপিয়ে নেন মেহরাব হোসেন। বোলারদের সঙ্গ নিয়ে ছোট-ছোট জুটি গড়ে ৪৬.৩ ওভারে কলাবাগানের স্কোরবোর্ডকে ২০০ রানের সম্মানজনক সংগ্রহ এনে দেন। তবে থেমে থাকে নি ভিক্টোরিয়ার বোলাররাও, মেহরাব হোসেনকে ফেরাতে না পারলেও ঠিকই অন্য প্রান্তের ব্যাটসম্যানদের ফিরিয়ে ৪৯ ওভারের মধ্যেই থামিয়ে দেয় কলাবাগানকে ২১৩ রানে। ম্যাচ শেষেও মেহরাব হোসেন অপরাজিত ছিলেন ৮৬ রান নিয়ে। ভিক্টোরিয়ার পক্ষে মাহবুবুল আলম ৩টি, সিলভা, আল-আমিন ও রাব্বি ২টি করে উইকেট নেয়।

জিতলেই পয়েন্ট তালিকার তৃতীয় নিশ্চিত হবে, এমন সমীকরণ মাথায় নিয়ে খেলতে নামে ভিক্টোরিয়া। কিন্তু ৫২ রানে আব্দুল মজিদ, সোহরাওয়ার্দী শুভ ও মুমিনুল হক, নাদিফ চৌধুরির উইকেট হারিয়ে এই সমীকরণকে উৎসাহ নয় বরং চাপ হিসেবে প্রমাণ করে ভিক্টোরিয়া।  পঞ্চম উইকেট জুটিতে সিলভা ও আল-আমিন দলকে সামাল দেওয়ার চেষ্ঠা করলেও সে প্রচেষ্ঠাকে ব্যর্থ করে দেন সিলভাকে ফেরানোর মাধ্যমে মাশরাফি মর্তুজা। নিজের প্রথম ওভারে এসেই সিলভা কে ফেরান দেশসেরা এই পেসার।

এরপর মাশরাফি বাহিনীর নিয়মিত হানায় ছিন্নবিন্ন হতে থাকে ভিক্টোরিয়ার ব্যাটিং লাইন আপ, যদিও আল-আমিন ছিলেন ব্যাট হাতে নিজের ফর্ম ধরে রাখার বিষয়ে অনড়। অর্ধ-শতক তুলে দলকে টিকিয়ে রাখেন ম্যাচে। আল-আমিন ব্যক্তিগত ৬৮ রান করার পর তাসামুল হকের ত্রুতে রান আউটের ফাঁদে পড়লে ম্যাচের হাল ধরেন জুবায়ের। উইকেট ধরে রেখে রক্ষণশীল উপায়ে ব্যাট চালাতে থাকেন তিনি। ম্যাচ নিয়ে যান শেষ ওভার পর্যন্ত। শেষ ওভারে ভিক্টোরিয়ার প্রয়োজন ছিল ১২ রান আর কলাবাগানের ১ উইকেট, এমতাবিস্থায় বল তুলে দেওয়া হয় দেওয়ান সাব্বিরের হাতে। তার প্রথম তিন বল থেকে তিন রান আসলেও চতুর্থ বলে কামরুল ইসলাম রাব্বিকে ফিরিয়ে দিয়ে দলের মুখে শেষ হাসি এনে দেন সাব্বির।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

কলাবাগান ক্রীড়া চক্রঃ ২১৩-১০ (৪৯ ওভার)
মেহরাব ৮৬*, জসিমুদ্দিন ২৪; মাহবুবুল ৫৪-৩

ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবঃ ২০৫-১০ (৪৯.৪ ওভার)
আল-আমিন ৬৭; শরিফুল্লাহ ৩২-৩

-ইমরান হাসান, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন