ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও কেন বায়োবাবলের কড়াকড়ি, প্রশ্ন শাস্ত্রীর

করোনা মহামারীর পর ক্রিকেটের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে পড়েছে জৈব সুরক্ষা বলয় বা বায়োসেফটি বাবল, অর্থাৎ বায়োবাবল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সব দলকেই কঠোর বায়োবাবল মেনে খেলা ও অনুশীলন চালিয়ে যেতে হয়। তবে ভ্যাকসিন নেওয়ার পর বায়োবাবলের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রী।

ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও কেন বায়োবাবল, প্রশ্ন শাস্ত্রীর

Advertisment

সাবেক এই অলরাউন্ডার দীর্ঘদিন ধরে ভারতের প্রধান কোচ। ভারত টেস্ট দল বর্তমানে ইংল্যান্ড সফরে। মূল খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া টেস্ট দলের সাথে আছেন শাস্ত্রী। দ্বিতীয় সারির দল আছে শ্রীলঙ্কা সফরে, সেই দলকে কোচিং করাচ্ছেন রাহুল দ্রাবিড়।

টেস্ট দলের সাথে থাকায় শাস্ত্রী অনেক দিন ধরেই ইংল্যান্ডে অবস্থান করছেন। সেখানে ম্যাসাজ থেরাপিস্ট দয়ানন্দ গরানী করোনায় আক্রান্ত হলে আইসোলেশনে যেতে হয় তার সংস্পর্শে আসা ভারত অরুণ, ঋদ্ধিমান সাহা ও অভিমন্যু ঈশ্বরণকে; যদিও তাদের শরীরে করোনার উপস্থিতি মেলেনি।

অরুণরা অবশ্য ১০ দিনের আইসোলেশন পর্ব শেষ করেছেন, যোগ দিয়েছেন দলের সাথেও। দলের অনেকের মত তিনিও ভ্যাকসিনের দুই ডোজ গ্রহণ করেছিলেন। শাস্ত্রী একটা জিনিস বুঝতেই পারছেন না, কারও পূর্ণ মাত্রার ভ্যাকসিন দেওয়া থাকলে কেন আবার আইসোলেশন আর বায়োবাবলে থাকার বাধ্যবাধকতা প্রয়োগ করা হচ্ছে।

নিজের সাবেক সতীর্থ অরুণকে নিয়ে পোস্ট করা এক টুইটে শাস্ত্রী লিখেছেন, ‘অনেক দিন পরে আমার ডান হাত, আমার বন্ধু ফিরে এসেছে। ওকে আগের থেকে অনেক বেশি ফিট লাগছে। তবে কোভিড পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসার পরেও ১০ দিন ঘরবন্দী থাকা খুবই বিরক্তিকর। এটা খুব খারাপ নিয়ম। দুবার টিকা নিলেই তো সমস্যা মিটে যায়।’

শুধু শাস্ত্রী বা ভারতীয় দলই নয়, বিশ্বের অধিকাংশ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার-কোচই ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। যদিও তাতেও সহসা বায়োবাবলের চাপ থেকে মুক্তির সম্ভাবনা নেই।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।