মাস সেরার পর আইসিসির ‘বর্ষসেরায়’ চোখ মুশফিকের

0
643

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ব্যাট হাতে অনবদ্য পারফরম্যান্সের কারণে শ্রীলঙ্কার জয়াবিক্রমা ও পাকিস্তানের হাসান আলীকে পেছনে ফেলে আইসিসি প্লেয়ার অব দ্য মান্থের পুরস্কার জিতেছেন বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। মাস সেরার পুরস্কারের পর এবার তাঁর চোখ আইসিসি বর্ষসেরায়।

Advertisment

এই বছরের শুরুতে প্রথম ‘প্লেয়ার অব দ্য মান্থ’ পুরস্কার চালু করেছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা আইসিসি। গত চার মাসে সেরা ক্রিকেটারদের মধ্যে প্রথম তিনজনই ছিলেন ভারতীয়। মে’তে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম সিরিজ জয়ে ব্যাট হাত দারুণ অবদান রাখেন মুশফিক। যে কারণে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে আইসিসির প্লেয়ার অব দ্য মান্থ ক্যাটাগরিতে নাম আসে তার।

তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ছিলেন লঙ্কান স্পিনার জয়াবিক্রমা ও পাকিস্তানের পেসার হাসান আলী। তবে দর্শকদের ভোট এবং আইসিসি প্যানেলদের ভোটে তাঁদের পেছনে ফেলে পুরস্কার জিতেছেন মুশফিক। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে পাওয়া এই অর্জন অবশ্যই বিশেষ মুশফিকের কাছে। এই অর্জনে দর্শকদের প্রতি মন থেকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশের পাশাপাশি তাঁর চোখ আইসিসি বর্ষসেরা ক্রিকেটারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

“আলহামদুলিল্লাহ্‌। প্রথমত আইসিসিকে ধন্যবাদ আমাকে ‘প্লেয়ার অব দ্য মান্থ’ ক্যাটাগরিতে মনোনীত করার জন্য। বিশেষ ধন্যবাদ তাঁদের দিতে চাই যারা আমাকে ভোট দিয়ে জিতিয়েছেন। আমি মনে করি আপনারা শুধু আমাকে না আপনারা বাংলাদেশকে জিতিয়েছেন।”

তিনি আরও যোগ করেন, “আমার ধারাবাহিক পারফরম্যান্স ধরে রেখে শুধু প্লেয়ার অব দ্য মান্থ না, আমি চেষ্টা করব প্লেয়ার অব দ্য ইয়ার হতে। বাংলাদেশকে যেন আমি আরও অনেক ভালো ইনিংস, ম্যাচ জেতানো ইনিংস উপহার দিতে পারি। আমার জন্য দোয়া করবেন এবং বাংলাদেশ দলের জন্য দোয়া করবেন। এই উপহার আমাকে সামনে আরও ভালো করার জন্য অনুপ্রাণিত করবে।”

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে ৮৪ রানের ইনিংস খেলেন মুশফিক। প্রথম ওয়ানডেতে সেঞ্চুরি হাতছাড়া হলেও দ্বিতীয়টিতে ঠিকই তা পূর্ণ করেন এবং খেলেন ১২৫ রানের ইনিংস। তবে শেষ ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠতে না পারলেও তিন ম্যাচে ২৩৭ রান নিয়ে সিরিজ সেরা নির্বাচিত হন দলের এ অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান।