Score

মাহমুদউল্লাহ-কায়েসকে কৃতিত্ব দিচ্ছেন মাশরাফি

শেষ ওভারে জয়ের জন্য আফগানিস্তানের দরকার ছিল আট রান। মুস্তাফিজুর রহমানের করা ওভারে আফগানিস্তান সক্ষম হয় মাত্র চার রান নিতে। এর মধ্যে ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র দুই রান। শুরু থেকেই দুর্দান্ত বোলিং করা মুস্তাফিজুর রহমানের এ পারফরম্যান্সকে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা আখ্যা দিয়েছেন জাদুকরী বোলিং হিসেবে।

জাদুকর মুস্তাফিজ

রান তাড়া করতে গিয়ে তীরে এসে  তরী ডোবার ঘটনা বাংলাদেশের কম নয়। অনেকবারই হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ শেষের দিকে বের হয়ে গিয়েছে হাত থেকে। এবার বোলিংয়ে এসে এমন একটি ম্যাচ জেতা আনন্দ দিচ্ছে মাশরাফিকে।  ম্যাচশেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের অধিনায়ক, “এ ম্যাচে মুস্তাফিজ একজন জাদুকর ছিল। শেষ ওভারে আটরান ডিফেন্ড করা কঠিন ছিল। কৃতিত্বটা মুস্তাফিজের। এমন অনেক ম্যাচ আমরা হেরেছি যেখানে শেষ ওভারে ৮-৯ রান করতে পারিনি। আজ আমরা তা ডিফেন্ড করলাম।”

Also Read - এশিয়া কাপ ২০১৮: সুপার ফোর পর্বের পয়েন্ট তালিকা

দারুণ ব্যাটিং করছিলেন আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবি এবং সামিউল্লাহ শিনওয়ারি। ৪৯ তম ওভারে সাকিব আল হাসানের বলে নবির ছক্কা হাঁকানোর পর  আফগানিস্তানের হাতে চলে আসে ম্যাচ। ১০ বলে মাত্র ১২ রান প্রয়োজন ছিল তাদের। কিন্তু পরের বলেই নবিকে ফিরিয়ে দেন সাকিব। শেষ তিন বলে দেন মাত্র চার রান। ব্যাটিংয়ে দলকে লড়াকু সংগ্রহ এনে দেওয়ার জন্য ইমরুল কায়েস আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে কৃতিত্ব দেন অধিনায়ক।

এ নিয়ে মাশরাফি বলেন, “হাল ছাড়িনি। সাকিব তার শেষ তিন বল সত্যি ভালো করেছে।  এরপর আমরা মুস্তাফিজকে বলি উইকেটের জন্য বোলিং করতে কারণ তারা বল মিস করতে পারে। কিন্তু প্রথমত কৃতিত্ব দিতে হবে ইমরুল কায়েস এবং মাহমুদউল্লাহকে।”

বোলিংয়ের সময় পায়ের মাংশপেশিতে টান অনুভব করেন বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান।  নিজের সপ্তম ওভারের প্রথম বল করার পর ক্র্যাম্পের কারণে খানিক বিরতিও নিয়েছিলেন। ঐ ক্র্যাম্পের কারণেই মুস্তাফিজ ইয়র্কার দিতে পারেননি বলে জানান মাশরাফি। মাশরাফি বলেন, “আমরা তাকে দশ ওভার বোলিং করাতে চেয়েছিলাম কিন্তু সে পারেনি। এমনকি ইয়র্কারও দিতে পারেনি কারণ পায়ের মাংসপেশিতে ক্র্যাম্প হয়েছিল।”

 



আরো পড়ুনঃ  
প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে মাশরাফির ‘২৫০’


 

Related Articles

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

এই মিরাজ অনেক আত্মবিশ্বাসী

মিঠুনের ‘মূল চরিত্রে’ আসার তাড়না

‘আঙুলটা আর কখনো পুরোপুরি ঠিক হবে না’

এক নয় মাশরাফির তিন ইনজুরি