Scores

মাহমুদউল্লাহদের উড়িয়ে দিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে নাজমুলরা

বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপের চতুর্থ ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ একাদশকে ১৩১ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছে নাজমুল একাদশ। আসরের সবচেয়ে বড় পুঁজি নিয়ে সবচেয়ে বড় জয় পেয়েছে দলটি। তৃতীয় ম্যাচে এটি নাজমুল হোসেন শান্তর দলের দ্বিতীয় জয়, অন্যদিকে সমান সংখ্যক ম্যাচ খেলা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল হেরেছে দুটি ম্যাচে।

মাহমুদউল্লাহদের উড়িয়ে দিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে নাজমুলরা

২৬৫ রানের চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাহমুদউল্লাহ একাদশ গুটিয়ে যায় ১৩৩ রানে, ৩২.২ ওভারেই। সিলেটের দুই পেসার নাসুম আহমেদ ও আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী বল হাতে ছিলেন উজ্জ্বল। প্রথমবার খেলতে নেমে দুইজনই পেয়েছেন ৩টি করে উইকেট। এছাড়া রিশাদ আহমেদ ২টি ও আল আমিন হোসেন ১টি উইকেট শিকার করেন।

Also Read - ডি ভিলিয়ার্স ঝড়ে ব্যাঙ্গালোরের অবিশ্বাস্য জয়


জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নামা মাহমুদউল্লাহ একাদশ শুরুতেই হারায় ইমরুল কায়েসকে। এরপর লিটন দাস মুমিনুল হককে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। ২৭ বলে ২৭ রান করা লিটনের বিদায়ের পর একাই লড়েছেন আগের জয়ের নায়ক নুরুল হাসান সোহান, বাকি ব্যাটসম্যানরা ব্যস্ত ছিলেন আসা-যাওয়াতে। ৩৮ বলে ২৮ রান করা সোহান শেষপর্যন্ত অপরাজিতই থাকেন।

মাহমুদউল্লাহ একাদশ বনাম নাজমুল একাদশ

এর আগে মিরপুরে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৪ রান জড়ো করে নাজমুল একাদশ। যদিও শুরুতেই সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসেন শান্ত ও পারভেজ হোসেন ইমনকে হারিয়ে বিপদে পড়ে গিয়েছিল দলটি। চতুর্থ উইকেটে ১৪৭ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলের বিপর্যয় প্রতিহত করেন মুশফিকুর রহিম ও আফিফ হোসেন ধ্রুব।

আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকের চেয়েও এদিন বেশি উজ্জ্বল ছিলেন আফিফ। ১০৮ বলের মোকাবেলায় ৯৮ রান করেন ১২টি চার ও ১টি ছক্কার সহায়তায়। মুশফিকের সাথে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হন শতক থেকে মাত্র ২ রান দূরে থেকে। মুশফিকও ফেরেন আফিফের পরপরই। আফিফ সাজঘরে ফেরার পর অর্ধশতক পূর্ণ করা উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ৯২ বল কঘেলে ৫২ রান করেন, যে ইনিংসে ছিল মাত্র ১টি চার।

বড় ইনিংসের আভাস দিচ্ছেন মুশফিক-আফিফ

শেষদিকে ইরফান শুক্কুর ৩১ বলে ৪৮ রান করে অপরাজিত থাকেন। এছাড়া তৌহিদ হৃদয় ২৭ রান করেন। মাহমুদউল্লাহ একাদশের পক্ষে রুবেল হোসেন ৩টি, এবাদত হোসেন ২টি ও সুমন খান ১টি উইকেট শিকার করেন।

স্কোরকার্ড 

টস : মাহমুদউল্লাহ একাদশ

নাজমুল একাদশ : ২৬৪/৮ (৫০ ওভার)

ইমন ১৯ (২১), সৌম্য ৮ (৪), শান্ত ৩ (১৪), মুশফিক ৫২ (৯২), আফিফ ৯৮, হৃদয় ২৭ (২৯), শুক্কুর ৪৮* (৩১), রিশাদ ১, তাসকিন ০, নাসুম ০*

এবাদত ১০-০-৬০-২, রুবেল ১০-২-৫৩-৩, সুমন ৯-০-৫২-১, রকিবুল ১০-০-৩২-০, মিরাজ ৯-০-৪৮-১, রিয়াদ ২-০-১৮-০

মাহমুদউল্লাহ একাদশ : ১৩৩/১০ (৩২.২ ওভার)

ইমরুল ৪ (১১), লিটন ২৭ (২৭), মুমিনুল ১৩ (৩২), মাহমুদুল ১৩ (২৮), রিয়াদ ১১ (১০), সোহান ২৭* (৩৫), সাব্বির ১০ (১৭), মিরাজ ১৬ (১৯), রকিবুল ০ (১), সুমন ২ (৭), রুবেল ১ (৩)

তাসকিন ৬-৩-২৫-০, আল আমিন ৫-১-২০-১, নাসুম ৮.১-১-২৩-৩, রাহী ৭-২-৩৪-৩, রিশাদ ৬-২-২৬-২

ফল : নাজমুল একাদশ ১৩১ রানে জয়ী

পুরস্কার-
ম্যান অব দ্যা ম্যাচ : আফিফ হোসেন ধ্রুব
সেরা ব্যাটসম্যান : আফিফ হোসেন ধ্রুব
সেরা বোলার : রিশাদ হোসেন
সেরা ফিল্ডার : নাজমুল হোসেন শান্ত।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

Related Articles

তামিমের ব্যাটে রাজশাহীকে মাটিতে নামাল বরিশাল

ম্যারাডোনাকে শ্রদ্ধা জানিয়ে জয় উৎসর্গ করলেন শান্ত

শান্ত-আশরাফুলের ব্যাটে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রাজশাহী

সাইফউদ্দিনের ইনজুরি দুর্ভাগ্যবশত : শান্ত

‘ঘরোয়া লিগের নিয়মিত পারফর্মাররাই আমাদের দলে আছেন’