Scores

‘মিস্টার ইন্টারফেয়ারার’ রূপে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পাপন

আনন্দের মাঝে বিষাদ ছুঁয়ে দেখতে চান না বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তবে না চাইলেও বিশ্বকাপ জয়ের উৎসবের মধ্যেই বারবার উঠে আসছে জাতীয় দলের ব্যর্থতার প্রসঙ্গ। বুধবার জাতীয় দলকে নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পাপন জানান, আবারও ‘মিস্টার ইন্টারফেয়ারার’ রূপে ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশ ক্রিকেটে এখন এক মুদ্রার দুই পিঠ দৃশ্যমান। বুধবার দেশে ফিরেছে দুই দল। তবে যাদের নিয়ে স্বপ্নটা আকাশচুম্বী, সেই জাতীয় দলের ফেরার খবর কতজনই বা রেখেছেন! বিশ্বকাপজয়ী অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ফেরার আনন্দের নিচে চাপা পড়ে গেছে মূল দলের ফেরার খবর। তাতে বরং কিছুটা স্বস্তিই বলতে হবে জাতীয় দলের। বিমানবন্দরে গণমাধ্যমকে এমন বাজে হারের কারণ দর্শাতে হলো না।

Also Read - বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন সৌম্য


সম্প্রতি ফর্ম একেবারের ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের। মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদদের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সও হতশ্রী। যা চোখ এড়াচ্ছে না বোর্ড সভাপতিরও। পাপন মনে করেন, এদানিং তার কাছে মনেই হয় না যে এটা বাংলাদেশ দল।

অনূর্ধ্ব-১৯ দল বিশ্বকাপ জিতে দেশের ফেরার পর রাজসিক অভ্যর্থনা দিয়েছে বিসিবি। ফুলেল শুভেচ্ছার সাথে কেক কেটে বরণ করে নিয়েছে আকবর আলীর দলকে। এরপর আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এসে জাতীয় দলের ইস্যুতে এক প্রশ্নের জবাবে পাপন বলেন, হাথুরুসিংহে চলে যাওয়ার পর থেকেই জাতীয় দলে ছন্দপতন দেখতে শুরু করেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে বিস্তারিত জানান বোর্ড সভাপতি, ‘লক্ষ্য তো ছিল অনেক কিছুই। কিন্তু ছন্দপতন হয়েছে। গত বিশ্বকাপের পর, সত্যি বললে হাথুরুসিংহে চলে যাওয়ার পর থেকেই জাতীয় দলে ছন্দপতন দেখতে পেয়েছি। তারপরও সাকিব একাই টেনে নিয়ে গেছে। কিন্তু তেমন কোনো টিম ওয়ার্ক পাইনি। পেলে হয়তো আরেকটু ভালো করতাম। বিশ্বকাপের পর থেকে তো যাচ্ছেতাই পারফরম্যান্স। আমার তো মনেই হয় না যে এটা বাংলাদেশ দল।’

‘এজন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী যদি কাউকে করতে হয়, বড় দায়টা আমার নিজেরই। আমি একটু বেশিই ক্রিকেট থেকে সরে এসেছিলাম। সরে আসতে চাচ্ছিলাম আর কী। ভেবেছিলাম, অনেক হয়েছে, আস্তে আস্তে নিজেরাই সব করতে পারবে। এখন দেখছি, আবার আগের মতো হয়ে যেতে হবে।’ সাথে যোগ করেন তিনি।

এদিকে কারণে অকারণে নানান কারণে প্রায় প্রতিদিনই সংবাদের শিরোনাম হন পাপন। তার বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ, একজন বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসেবে যা দায়িত্ব পালন করার কথা, তার থেকে ঢের বেশি করে থাকেন তিনি। বোর্ডের বড় থেকে ছোট, প্রায় প্রতিটি বিষয়ে তার হস্তক্ষেপের জন্য ‘মিস্টার ইন্টারফেয়ারার’ নাম পড়ে যায় পাপনের।

তবে নাম যাই হোক না কেন, এসব তকমার পরোয়া করতে নারাজ পাপন। দেশের ক্রিকেটের স্বার্থে সমালোচিত হতেও রাজি আছেন তিনি, ‘আপনারা আমার নাম দিয়েছিলেন না “মিস্টার ইন্টারফেয়ারার”। এখন দেখছি যে আবার আগের মতো ওইরকম একটা নাম পড়তে যাচ্ছে।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

মোটা অঙ্কের ভর্তুকিসহ চলবে যুবাদের প্রশিক্ষণ

না জানা অনেক কথা জানালেন পাপন

বিশ্বকাপজয়ী দলের অভ্যর্থনা নিয়ে বিসিবির পরিকল্পনা

সুজনকে সবচেয়ে বেশি সম্মান দেওয়া উচিত : পাপন

জাতীয় দলের স্বার্থে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বিসিবি