Scores

মুমিনুলের ৭৫ থেকে ৪০

করোনা ভাইরাসের কারনে থমকে গিয়েছে পুরো ক্রিকেট বিশ্ব। সকল ধরনের ক্রিকেট আপাতত বন্ধ। শুধু ক্রিকেট নয় সকল ধরনের খেলার আসরই বলতে গেলে এখন বন্ধ। আইসিসি তাদের বিভিন্ন বাছাইপর্বের খেলা আগামী জুলাই মাস পর্যন্ত বন্ধ রেখেছে। লম্বা সময় ক্রিকেট ভক্তদের জন্য থাকছেনা কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। এই বিরতিতে তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক বাংলাদেশ ক্রিকেটের আলোচিত কিছু ম্যাচ, ঘটনা ও খেলোয়াড়দের কিছু ব্যক্তিগত সাফল্য ব্যর্থতার ব্যাপারে। সেই ধারাবাহিকতায় আজকের আলোচনায় থাকছে বাংলাদেশের বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হকের ক্যারিয়ারের উঠানামার কথা।

মুমিনুল

মুমিনুল হক বর্তমানে বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক। সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার পর এই দায়িত্ব আসে মুমিনুল হকের উপর। একসময় শুধু দেশের নয় পুরো বিশ্বেই আলোচিত একজন ব্যাটসম্যান ছিলেন তার অসাধারণ গড়ের জন্য। তবে সময় যতই গড়িয়েছে তা যেনো মরিচীকা মনে হচ্ছে। ২০১৩ সালে ক্যারিয়ারের শুরুটা করেন ভালোভাবেই। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে দুই ফিফটির দেখা পান। আলোচনায় আসেন নিউজিল্যান্ড টেস্ট সিরিজ দিয়ে। সেই সিরিজে ২ টেস্টে ১৮১ ও ১২৬ রানের দুইটি ইনিংস খেলেন।

Also Read - বিপিএলকে আরও জনপ্রিয় করার উপায় জানালেন রোহিত


পরবর্তীতে ২০১৪ সালেও ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সাফল্য পান। তবে ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে বেশ ঠান্ডা সময় যায় মুমিনুলের। ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা কোনো টেস্ট সিরিজেই বেশি সুবিধা করতে পারেননি মুমিনুল। ২০১৬ সালে খুব বেশি কিছু না করতে পারলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তার ঢাকা টেস্টে ফিফটি জয়ের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। এরপর লম্বা সময়ের জন্য দেশ ও দেশের বাইরে টেস্টে তার ব্যাটে তেমন রান আসেনি।

২০১৮ সালে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জোড়া শতক দিয়ে ফিরলেও পরবর্তীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে গিয়ে লাগাতার ব্যর্থ হন মুমিনুল। মাঝে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আবার ফর্মে ফিরেন। তবে ২০১৯ এ নিউজিল্যান্ডে গিয়ে আবার ব্যর্থতা। পরবর্তীতে অধিনায়ক হওয়ার পর ভারত পাকিস্তান সফরেও খুব বেশি কিছু করতে পারেননি মুমিনুল, সোজা বাংলায় বলতে গেলে ব্যর্থ ছিলেন ব্যাট হাতে।

ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ শতক করে মুমিনুল জানান দিয়েছেন এখনো শেষ হয়ে যাননি তিনি। ঘরের মাঠে তার ব্যাট হাতে সাফল্য থাকলেও ঘরের বাইরে তার পারফরম্যান্স আশাব্যঞ্জক নয়। তার ৯টি টেস্ট শতকের একটিও বাংলাদেশের বাইরে আসেনি, সবগুলোই দেশের মাটিতে। ঘরের মাটিতে যেখানে তার টেস্ট এভারেজ ৫৭, সেখানে ঘরের বাইরে তার টেস্ট গড় মাত্র ২২। ক্যারিয়াররের ১ম ৭ টেস্টের পর তার টেস্ট গড় ছিলো ৭৫, ১ম ১২ টেস্টের পর তার টেস্ট গড় ছিলো ৬৩। ৪০ টেস্টের পর তার টেস্ট গড় এখন কমতে কমতে ৪০ হয়ে গিয়েছে।

একসময় ৬০ এর ঘরে গড় থাকা খেলোয়াড়ের টেস্ট গড় কমতে কমতে ৪০ এ নেমে যাওয়ায় এখন বর্তমানের প্রতিভাবান সেরা টেস্ট খেলোয়াড়দের আলোচনায় নাম থাকেনা বাংলাদেশ অধিনায়কের। তবে মুমিনুলের কাছে এখনো সময় রয়েছে দেশের বাইরে নিজেকে প্রমাণ করার। অধিনায়কের বাড়তি দায়িত্বের পাশাপাশি নিজের দেশের বাইরের টেস্ট রেকর্ড কতটা সমৃদ্ধ করতে পারেন মুমিনুল সেটাই এখন দেখার বিষয়।

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

বাঁহাতি-ডানহাতিতে সমস্যা দেখেন না অপু

সাকিবের পাশে থিতু হতে চান অপু

বিসিবির স্পিন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেলেন রফিক

রাজুর ‘জায়গা পূরণে’র চেষ্টা

লিখনকে ক্যাম্পে চান মাশরাফিও