Scores

সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মোসাদ্দেক

বাংলাদেশ জাতীয় দলের উদীয়মান ক্রিকেটার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের অভিযোগ করে মামলা করেছেন তাঁর সহধর্মিনী সামিয়া শারমিন।  এদিকে তাঁর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মোসাদ্দেক ।

Image result for mosaddek hossain

বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটারদের বিপক্ষে কিছুদিন পর পর নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠছে। ক্রিকেটার রুবেল হোসেন দিয়ে সেই তালিকার সূচনা হলেও তা থেমে থাকে নি। সময়ের পরিবর্তনে তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরাফাত সানি, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মোহাম্মদ শহীদের নাম। এবার বাড়ল আরও এক ক্রিকেটার-মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে ময়মনসিংহে নারী নির্যাতনের মামলা করেছেন তাঁর সহধর্মিনী। 
 
২৩ ছুঁই ছুঁই মোসাদ্দেক আজ থেকে প্রায় ৬ বছর আগে ২০১২ সালের ২৮ অক্টোবর তার আপন খালাত বোন সামিয়া শারমিন সামিয়ার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হোন। বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ দলের সদস্য থাকাকালীন বিয়ে হয় মোসাদ্দেকের। প্রেমের সম্পর্ক থেকে বিবাহ হলেও এরপর ধীরে ধীরে মোসাদ্দেকের বিপক্ষে নানান অভিযোগ করেন শারমিন সামিয়া।
 
এই প্রসঙ্গে সৈকতের সহধর্মিনী শারমিন সামিয়ার বড় ভাই মোজাম্মেল কবির জানিয়েছে, ‘সে (মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত) ঘরে বসে বন্ধুদের নিয়ে মদপান করতে শুরু করে। অন্য নারীতে আকৃষ্ট হওয়া, তথা নানা অসামাজিক কার্যক্রমে লিপ্ত হতে থাকে। আমার বোন তাকে ওইসব অসামাজিক কার্যক্রম বন্ধের কথা বলতেই সে তেলে-বেগুনে জ্বলে ওঠে। তা থেকেই শুরু হয় বিবাদ ও দূরত্ব। আমরা বুঝতে পারি তারকা খ্যাতি, নাম-ডাক ও অর্থ তাকে বদলে দিয়েছে।’
 

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজনের কাছে অভিযোগ করেছিলেন শারমিন সামিয়া। উইন্ডিজ সফর শেষে মোসাদ্দেক দেশে ফিরলে আপোষ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সুজন। কিন্তু তা আর হয় নি। যার ফলে মামলা করতে বাধ্য হয়েছেন সামিয়া শারমিন।

এই প্রসঙ্গে মোজ্জাম্মেল বলেছেন, ‘সৈকত ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাবার আগে আমি ছোট বোন সামিয়া শারমিনকে আমার বাসায় এনে রাখি। সৈকত সুজন সাহেবের (খালেদ মাহমুদ সুজন) সঙ্গে বসার কথা বলে গত ১৪ আগস্ট আমার বোনকে তার বাসায় নিয়ে যায়। এরপর বোনের ওপর অকথ্য নির্যাতন চালায়। তাকে শারীরিকভাবে আঘাতের পাশাপাশি হুমকিও দেয়। সৈকতের নির্মম নির্যাতন ও হুমকিতে আজ আমার ছোট বোন তার বিপক্ষে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা করতে বাধ্য হয়েছে।’

Also Read - মোসাদ্দেক হোসেনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা


তবে মোসাদ্দেকের দাবী ভিন্ন। গত ১৬ আগস্ট তার স্ত্রীকে ডিভোর্স লেটার পাঠানোর পরই নাকি মামলা করা হয়। এই প্রসঙ্গে যমুনা নিউজকে মোসাদ্দেক জানিয়েছেন, ‘আমার এত সমস্যা থাকলে তারা তো ডিভোর্সের আগে এই অভিযোগ করতে পারতো। ডিভোর্সের পরে কেনো এসব অভিযোগ করছেন তারা।’

অন্যদিকে ডিভোর্সের কারণ হিসেবে তিনি বলেন,

‘সে আমার সাথে থাকতে পারছিল না। আমার মায়ের সাথে বাজে ব্যবহার করতো। সত্য কথা বলি, সে আমার মায়ের গায়ে হাত তুলেছিল সে কারণেই ডিভোর্স দিয়েছি তাকে। যখন কারো মায়ের গায়ে হাত তোলা হয় সে কীভাবে চুপ করে থাকবে?’

[আরও পড়ুনঃ স্পন্সরশূন্য হলো বাংলাদেশ!]

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে মাশরাফি

চার ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ সরফরাজ আহমেদ

ধোনি, গিলক্রিস্টদের টপকে সরফরাজের বিশ্ব রেকর্ড

নড়াইল-২ থেকে নির্বাচনে অংশ নিবেন মাশরাফি!

মাগুরা-১ থেকে নির্বাচন করবেন সাকিব!