ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িত ২০১১ বিশ্বকাপজয়ী দলের ক্রিকেটার!

0
1021

ওভারের শেষ বলে অর্থ্যাৎ এক বলে দরকার ১২ রান। এমন পরিস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবে বোলিং দলই জিতবে। কিন্তু না, এমন ম্যাচও জিতে নেয় ব্যাটিং দল। শেষ বলটি করতে বোলার  বল করেন লেগ সাইডের অনেক বাইরে। সবাইকে ধোকা দিয়ে বল চলে যায় সীমানার বাইরে। ওয়াইডে চার হওয়ার সুবাদে ব্যাটিং দল পায় পাঁচ রান। পরের বলটি কোমরের ওপরে করলে আম্পায়ার ফ্রি-হিটের সংকেত দেন। ব্যাটসম্যান তাতে এক রান দৌড়ে নেন। যার ফলে নো বল আর এক রানে আসে আরও দুই রান। পরের বলটি আবারও লেগের অনেক বাইরে করে ওয়াইড-চার দেন বোলার। স্কোরকার্ডে আবারও যোগ হয় পাঁচ রান। ১ বলে ১২ রানের সমীকরণ মিলিয়ে জিতে যায় ব্যাটিং দল।

Advertisment

এমনই ঘটনা ঘটে রাজস্থানের জয়পুরে গত বছরের জুলাইতে বসা রাজপুতানা প্রিমিয়ার লিগের আসরে। ওই টুর্নামেন্টের একটি ম্যাচের শেষ ওভারে ঘটে এমন সন্দেহজনক ঘটনা। আর সেটা নিয়ে বেশ নড়েচড়ে বসে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) এর দুর্নীতিদমন শাখা। পরবর্তী সময়ে রাজস্থান পুলিশ ও সিআইডি যৌথভাবে তদন্ত শুরু করে। এরই মধ্যে সেই ম্যাচ গড়াপেটা চক্রের মূলহোতাকে খুঁজে বের করতে সক্ষম হয়েছে তদন্তকারীরা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের দাবি, ম্যাচ গড়াপেটা চক্রের সেই মূলহোতা ২০১১ বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় দলের সদস্য।

বর্তমানে জাতীয় দলে না থাকলেও ভারতের হয়ে তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটেই প্রতিনিধিত্ব করেছেন সেই ক্রিকেটার। সূত্রের বরাত দিয়ে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানাচ্ছে, সেই ক্রিকেটার রাজস্থানের টুর্নামেন্টে অংশ না নিলেও মাঠের বাইরে থেকেই গোটা বিষয়টি তদারকি করতেন। শুধু তাই নয়, মহেন্দ্র সিং ধোনির বিশ্বকাপজয়ী দলের ওই সদস্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন বলে জানায় ওই সূত্র।

রাজস্থানের ওই ম্যাচ গড়াপেটা কাণ্ডে গত বছরের জুলাইতেই জয়পুরের এক হোটেল থেকে ১৪ জনকে আটক করেছিল স্থানীয় পুলিশ। সে সময় তাদের কাছ থেকে মোবাইল, নগদ টাকা, ছাড়াও ল্যাপটপ, ওয়াকিটকি পাওয়া যায়। যদিও অভিযুক্তরা এখন জামিন পেয়ে গেছেন। এরপর গত বছরের নভেম্বরে পুরো ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় রাজস্থান পুলিশের সিআইডি দলকে। এরপরই ঘটনার মূলহোতা হিসেবে ওঠে আসে ২০১১’র বিশ্বজয়ী দলের ওই সদস্যের নাম। তদন্তের স্বার্থে ওই ক্রিকেটারের নাম এখনো জানায়নি সিআইডি।

আরো পড়ুনঃ নতুন দলে সাকিবের ভূমিকা হবে ‘ফিনিশার’!