যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশে আফিফ

0
2080

দিন কয়েক আগে পর্দা নেমেছে অনূর্ধ্ব-১৯ দলগুলোর সবচেয়ে বড় ক্রিকেট আসর যুব বিশ্বকাপের। আসর শেষে এখন চলছে এটি নিয়ে বিচার-বিশ্লেষণ। সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে ২০১৮ সালের যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশও। যেখানে স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটার আফিফ হোসেন ধ্রুব।

যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশে আফিফ

Advertisment

কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশকে হারানো ভারতের চ্যাম্পিয়ন হওয়া আসর বাংলাদেশ শেষ করে টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ দল হিসেবে। ক্ষুদে টাইগাররা প্রত্যাশা অনুযায়ী পারফরমেন্স করতে না পারলেও পুরো আসর জুড়ে দুর্দান্ত ছিলেন আফিফ। দলের অন্য ক্রিকেটাররা যেখানে ছিলেন নিষ্প্রভ, সেখানে তিনি দলকে রীতিমতো একাই এনে দিয়েছেন বলার মতো কিছু সাফল্য। যার পুরস্কার স্বরূপ ঠাই মিলেছে যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশে।

বিশ্বকাপের সেরা একাদশে আফিফ স্থান পেয়েছেন অলরাউন্ডার হিসেবে। একাদশে সর্বোচ্চ পাঁচজন খেলোয়াড় রয়েছেন শিরোপা জয়ী দল ভারতের। পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফগানিস্তানের ক্রিকেটার রয়েছেন দুজন করে। বাংলাদেশের একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে স্থান পেয়েছেন আফিফ।

আসরে সর্বোচ্চ চারটি হাফ-সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন আফিফ। এমনকি আসরের শেষ দুটি ম্যাচে দলের দুঃসময়েও খেলেছেন পঞ্চাশোর্ধ্ব দুটি ইনিংস। ৪৬.০০ গড়ে টুর্নামেন্টে তার রান ছিল ২৭৬, যা বাংলাদেশের হয়ে এবারের আসরে কোনো ব্যাটসম্যানের সেরা স্কোর। শুধু ব্যাট হাতেই নয়, আফিফ দুর্দান্ত ছিলেন বল হাতেও। তার স্পিন বলের ঘূর্ণি জাদুতে আসরে মোট নয়টি উইকেট শিকার করে নেন, যার মধ্যে পাঁচটি ছিল কানাডার বিপক্ষে এক ম্যাচেই। আইসিসির প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে আফিফকে ‘উদীয়মান তারকা’ আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে, দলের পারফরমেন্সের বৈপরীত্যে তার পারফরমেন্স প্রমাণ করেছে- খারাপ সময়েও ভালো পারফর্ম করা যায়।

২০১৬ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে খেলার মাধ্যমে প্রাদপ্রদীপের আলোর নিচে আসেন আফিফ। রাজশাহী কিংসের জার্সি গায়ে টি-২০ ফরম্যাটের সর্বকনিষ্ঠ বোলার হিসেবে তিনি সেবার এক ম্যাচে শিকার করেন পাঁচ উইকেট, তাও তখনকার শক্তিশালী দল চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে।

একনজরে যুব বিশ্বকাপের সেরা একাদশ-

আরও পড়ুনঃ মিরপুরেই কি খুলবে রাজ্জাকের কপাল?