SCORE

সর্বশেষ

রাজিনের দৃঢ়তায় সিলেটের রক্ষা

জয়ের জন্য সিলেট বিভাগের শেষদিনে প্রয়োজন ছিল ৩৮১ রান। হাতে ৮ উইকেট।  ম্যাচের পাল্লা ভারী ছিল চট্টগ্রাম বিভাগের দিকে। দিনের শুরুতে দুই উইকেট নিয়ে চট্টগ্রামের জয়ের সম্ভাবনা উজ্জ্বল করলেও দিনশেষে জয়ের হাসি হাসতে পারেনি। সিলেট  বিভাগকে রক্ষা করেছে রাজিন সালেহর দৃঢ় ব্যাটিং। তার শতকে ম্যাচ বাঁচিয়েছে সিলেট বিভাগ।

রাজিনের দৃঢ়তায় সিলেটের রক্ষা
রাজিনের দৃঢ়তায় সিলেটের রক্ষা

২ উইকেটে ৭৮ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে সিলেট বিভাগ। দিনের শুরুতেই ধাক্কা খায় সিলেট বিভাগ। দিনের তৃতীয় ওভারেই ইমতিয়াজ হোসেনকে ফিরিয়ে দেন মেহেদি হাসান রানা। দলীয় ৮৯ রানের মাথায় নাইটওয়াচম্যান এনামুল হক জুনিয়রকেও ফেরান রানা। ইমতিয়াজ ১৩ ও রানা করেন ৭ রান।

এরপর জাকির হাসানকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলেন রাজিন সালেহ। দুজন মিলে ৫১ রানের জুটি গড়েন। তাদের জুটি ভাঙেন প্রথম ইনিংসে পাঁচ উইকেট শিকার করা স্পিনার ইফতেখার সাজ্জাদ। ইফতেখারের বলে বোল্ড হন জাকির হাসান। ৩৪ রান করেন জাকির। তবে একপ্রান্ত আগলে রাখেন রাজিন সালেহ। মন্থর ব্যাটিং করলেও তার দৃঢ়তাই রক্ষা করে সিলেটকে।

Also Read - হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতল খুলনা

শাহানুর ৮৯ বল মোকাবেলা করে রান করেন মাত্র ৯। রান নয় শাহানুর আর রাজিনের জুটির লক্ষ্য ছিল ক্রিজে সময় কাটানো। আর তাতে পুরোপুরি সফল এ জুটি। জুটিতে মাত্র ৪১ রান এলেও তা টিকেছিল ১৫৬ বল। এরপর জাকের আলি অনিককে নিয়ে ১২০ রানের জুটি গড়েন রাজিন সালেহ। ২২৯ বল টিকেছিল এ জুটি। এ জুটির সুবাদেই ম্যাচ বাঁচায় সিলেট।

দলীয়  ৩০১ রানের মাথায় আউট হন রাজিন সালেহ। সাড়ে পাঁচ ঘন্টার মতো ক্রিজে ছিলেন তিনি। ২৫৪ বল মোকাবেলা করে রান করেন ১০৪। ১২ চারের পাশাপাশি হাঁকান তিন ছক্কা। শেষ বিকেলে দলকে নিরাপদ রাখেন জাকের আলি ও আবুল হাসান। ৪৬ রান করে অপরাজিত থাকেন জাকের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

চট্টগ্রাম বিভাগ ১ম ইনিংসঃ ২১৫/১০, ৬৭.৪ ওভার
ইয়াসির ৮১, সাদিকুর ৪৬, তাসামুল ৩৮
আবুল ৩/৩৪, এনামুল জুনিয়র ৩/৪৪, আবু জায়েদ ২/৫৮

সিলেট বিভাগ ১ম ইনিংসঃ ১৩৭/১০, ৪৯.৪ ওভার
আবুল ২৭, সায়েম ২৬, রাজিন ২৬
ইফতেখার ৫/৪৩, রানা ৩/৩০, সাইফউদ্দিন ১/২৯

চট্টগ্রাম বিভাগ ২য় ইনিংসঃ ৩৮০/৭, ডিক্লেয়ার, ১০৬ ওভার
ইয়াসির ১০২, সাইদ ৭৬, জসিমউদ্দিন ৫৬
এনামুল জুনিয়র ৩/১৩১, ইবাদত ২/৮৪, শাহানুর ১/৫৬

সিলেট বিভাগ ২য় ইনিংস ৩০৯/৭, ১২৬ ওভার
রাজিন ১০৭, সায়েম ৪৮, জাকের ৪৬
রানা ৩/৬৮, ইফতেখার ৩/১১২, সাইফউদ্দিন ১/৪২

ম্যাচসেরাঃ রাজিন সালেহ

আরও পড়ুনঃ হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতল খুলনা

Related Articles

“আব্বা থাকলে সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন”

ছুটি কমেছে টাইগারদের

ঘরোয়া লঙ্গার ভার্শনে মনোযোগ মাশরাফির

মাইলফলকের সামনে রাজ্জাক

অল্পের জন্য তামিমকে ছাড়িয়ে যেতে পারলেন না মিজানুর