Scores

রাফি হত্যা: লজ্জিত সাইফউদ্দিন

ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যা করার ঘটনায় শোকে কাতর গোটা দেশ। পরিকল্পিত এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়ে সারা দেশের মানুষ জানাচ্ছেন প্রতিবাদ। ব্যতিক্রম নন ক্রিকেটাররাও।

"মার খাওয়া থেকেই তো শিখব"

তবে অন্য ক্রিকেটারদের চেয়ে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ক্ষোভ একটু বেশিই। ঘটনাটি যে ঘটেছে তারই জেলা শহরে। তার এলাকার মানুষই গায়ে আগুন ঢেলে রাফিকে হত্যা করেছেন। আর তাই ক্ষোভ ও অসন্তোষের পাশাপাশি সাইফউদ্দিনের মধ্যে কাজ করছে লজ্জা।

Also Read - বুলবুলের বিশ্বকাপ দলে ইমরুল-তাইজুল, নেই সৌম্য


শুক্রবার (১২ এপ্রিল) সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে সাইফউদ্দিন বলেন, ‘সত্যি খুব মর্মাহত আমি। বিশেষ করে আমার জেলা ফেনীতে এই ঘটনা ঘটেছে এজন্য আমি লজ্জিত।’

গত ৬ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয় তার সহপাঠীরা। মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার প্ররোচনায় তার সহপাঠীরা এই জঘন্য কাজ ঘটায় বলে মৃত্যুর আগে জানায় রাফি। ঐ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে রাফির শ্লীলতাহানির গুরুতর অভিযোগও রয়েছে।

অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে সাইফউদ্দিন বলেন, ‘সত্যি বলতে শোক প্রকাশ করার মত ভাষা নেই। যদিও একটি মর্মান্তিক মৃত্যু… অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

গায়ে আগুন দেওয়ার পর ৪ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে রাফি। তার মৃত্যুতে পরিবারের সদস্যরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

এদিকে রাফি হত্যার পেছনে জড়িত মূল হোতা সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে গত ২৭ মার্চই শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। যদিও প্রভাব খাটিয়ে তিনি ‘সিরাজ উদদৌলা সাহেবের মুক্তি পরিষদ’ নামে কমিটি গঠন করে নিজের পক্ষে সাফাই গেয়ে যাচ্ছেন। রাফি হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে এখন পর্যন্ত মামলার অন্যতম আসামী সোনাগাজী পৌর কাউন্সিলর মকসুদুল আলম, তার সহযোগী মো. জাবেদ ও হামলার মদদদাতা ও অধ্যক্ষের ‘কাছের লোক’ খ্যাত নূর উদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

দলের অভ্যন্তরীণ বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন সাকিব

বিলম্বিত হচ্ছে সাইফউদ্দিনের ইংল্যান্ড-যাত্রা

সাইফউদ্দিনকে নিয়ে বিপাকে বিসিবি

সাইফউদ্দিনের একই চোট ৯ বছর ধরে!

‘লোভের বশে’, ‘লুকিয়ে’ ডিপিএল খেলেছেন সাইফউদ্দিন!